অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকাই নেবেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী

- ছবি: সংগৃহীত

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১৮ মার্চ ২০২১, ১৪:৩৯

নিরাপত্তা-শঙ্কায় ইউরোপের বেশ কিছু দেশ সাময়িকভাবে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনার টিকার ব্যবহার স্থগিত করেছে। তবে এই টিকার নিরাপত্তা নিয়ে ওঠা প্রশ্ন পার্লামেন্টে নাকচ ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষায় অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি ভ্যাকসিনই নেবেন তিনি। 

বরিস বলেন, ‘আমি অবশেষে জানতে পেরেছি যে, খুব দ্রুতই আমাকে ভ্যাকসিন নিতে হবে, আমি এটা জানতে পেরে আনন্দিত। এটা অবশ্যই অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা হবে, এটাই আমি নেব।’

ভ্যাকসিন নেয়ার পরবর্তী ধাপে যারা রয়েছেন, ৫৬ বছর বয়সী জনসনও তাদের একজন। আগামী জুলাইয়ের মধ্যে ব্রিটিশ সরকার সকল প্রাপ্তবয়স্কদের ভ্যাকসিন প্রয়োগের পরিকল্পনা করেছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক জানান, সময়সূচী নিয়মমতোই চলছে। যদিও ব্রিটেনের জাতীয় স্বাস্থ্যসেবাকে (এনএইচএস) প্রশাসন চিঠি দিয়ে জানিয়েছে, ২৯ মার্চ থেকে এক মাস পর্যন্ত ভ্যাকসিন সরবরাহে ‘উল্লেখযোগ্য ঘাটতি’ তৈরি হতে পারে।

হ্যানকক বলেন, ‘ভ্যাকসিনের সরবরাহ সবসময়েই অনিশ্চিত তাই আমরা নিয়মিতভাবে এনএইচএসকে চিঠি দেই যেন সরবরাহের উত্থান-পতনগুলো কয়েক সপ্তাহ আগেই অবহিত করা যায়।’

যুক্তরাজ্যে আড়াই কোটিরও বেশি মানুষকে ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ১ কোটি ১০ লাখকে দেয়া হয়েছে অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন। দেশটিতে ফাইজার-বায়োএনটেকের ভ্যাকসিনও প্রয়োগ করা হচ্ছে। তবে যারা ভ্যাকসিন নিচ্ছেন তারা সাধারণত নিজের পছন্দমত কোনো বিশেষ কোম্পানির ভ্যাকসিন নিতে পারেন না।

দ্য টাইমস সংবাদপত্রে প্রকাশিত এক নিবন্ধে বরিস জনসন লিখেছেন, অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন ‘নিরাপদ এবং খুবই ভালোভাবে কাজ করে’। স্বাস্থ্যমন্ত্রী হ্যানকক ও যুক্তরাজ্যের প্রধান চিকিৎসা কর্মকর্তাও সংবাদ সম্মেলনে জনসনের বক্তব্যের সঙ্গেই সুর মিলিয়েছেন। খবর এএফপি।

মানবকণ্ঠ/এমএ






ads
ads