বিশ্বে একদিনে প্রায় ৭ হাজার প্রাণহানি


poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৬ আগস্ট ২০২০, ০৯:০৯

চীনের উহান থেকে শুরু হওয়া অদৃশ্য করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে আরও ৬ হাজার ৮৩৮ প্রাণ কেড়ে নিলো। নতুন এই ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছে দু’লাখ ৭১ হাজার ৪০৬ জন।

করোনা নিয়ে আপডেট দেয়া ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী, বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক কোটি ৮৯ লাখ ৭১ হাজার ৬৯৮ জনে। মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭ লাখ ১১ হাজার ১১৬ জন। সুস্থ হয়েছেন এক কোটি ২১ লাখ ৬০ হাজার ৯৪৬ জন।

চীনের উহানে করোনা সংক্রমণ সৃষ্টি হলেও এখন অদৃশ্য এই ভাইরাসটির বেশি প্রকোপ আমেরিকা ও দক্ষিণ এশিয়ায়। ইউরোপের কিছু দেশেও ফের ভাইরাসটির সংক্রমণ বেড়েছে। নতুন করে আক্রান্তের রেকর্ড হয়েছে চীন-জাপানেও। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সতর্ক করেছে, অনেকে দেশে করোনার সংক্রমণের মাত্রা মারাত্মক ঊর্ধ্বমুখী। তাই করোনা প্রতিরোধের পদক্ষেপ দ্বিগুণ করতে হবে।

করোনায় আক্রান্তের দিক থেকে প্রথম অবস্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। করোনায় সবচেয়ে বিপর্যস্ত যুক্তরাষ্ট্রে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৪৯ লাখ ৭৩ হাজার ৫৬৮ জন। যুক্তরাষ্ট্রে করোনার আঘাতে মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৬১ হাজার ৬০১ জনের। করোনায় মোট মৃতের দিক থেকেও প্রথমে রয়েছে দেশটি। দেশটিতে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২৫ লাখ ৪০ হাজার ১৩৭ জন।

করোনায় আক্রান্তের থেকে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ব্রাজিল। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ২৮ লাখ ৬২ হাজার ৭৬১ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ৯৭ হাজার ৪১৮ জনের। আর এ পর্যন্ত ব্রাজিলে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২০ লাখ ২০ হাজার ৬৩৭ জন।

করোনায় আক্রান্তের দিক থেকে রাশিয়াকে টপকে তৃতীয় অবস্থানে উঠে আসা ভারতে মোট ১৯ লাখ ৬৩ হাজার ২৩৯ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। আর দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ৪০ হাজার ৭৩৯ জনের এবং সুস্থ হয়েছেন ১৩ লাখ ২৭ হাজার ২০০ জন।

চতুর্থ অবস্থানে থাকা রাশিয়ায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৮ লাখ ৬৬ হাজার ৬২৭ জন। আর করোনায় মৃত্যু হয়েছে ১৪ হাজার ৪৯০ জনের।

পঞ্চম স্থানে থাকা দক্ষিণ আফ্রিকায় মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫ লাখ ২৯ হাজার ৮৭৭ জন। তাদের মধ্যে মারা গেছেন ৯ হাজার ২৯৮ জন।

প্রাণঘাতী ভাইরাসটির সংক্রমণ বাড়ছে বাংলাদেশেও। ১৬ নম্বর অবস্থানে থাকা বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত ২ লাখ ৪৬ হাজার ৬৭৪ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। দেশে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৩ হাজার ২৬৭ জনের। আর সুস্থ হয়ে উঠেছেন এক লাখ ৪১ হাজার ৭৫০ জন।

 





ads







Loading...