টোকিও অলিম্পিকের পর্দা উঠল

- ছবি: সংগৃহীত

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২৩ জুলাই ২০২১, ১৯:৪৯,  আপডেট: ২৩ জুলাই ২০২১, ১৯:৫৩

নানান চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে অবশেষে বর্ণিল আয়োজনের মধ্য দিয়ে পর্দা উঠল বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রীড়া আসর টোকিও অলিম্পিকের।

শুক্রবার (২৩ জুলাই) বাংলাদেশ সময় বিকেল ৫টায় টোকিও অলিম্পিক উদ্বোধন ঘোষণা করেন জাপানের রাজা নারুহিতো।

করোনাভাইরাসের মহামারির কারণে এবার আর আগের মতো তেমন জাঁকজমক ছিলো না। স্বল্প সংখ্যক অ্যাথলেট, অনেক অনেক ফেসমাস্ক এবং জীবাণু-বিহীন ফ্ল্যাগ-এসব নিয়েই শুরু হলো এবারের আসর।

বিশ্বের সবচেয়ে বড় আন্তর্জাতিক এই ক্রীড়াযজ্ঞের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত আছেন হাতেগোনা ৯৫০ জন। প্রধান অতিথি হিসেবে আছেন জাপানের সম্রাট নারুহিতো।

করোনার মহামারিতে মারা যাওয়া ব্যক্তিদের উদ্দেশে শুরুতেই সমবেদনা জানিয়ে নীরবতা পালন করা হয় অলিম্পিকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে।

গত বছর হওয়ার কথা থাকলেও করোনার জন্যই পিছিয়ে যায় টোকিও অলিম্পিক। ভিলেজের মধ্যে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ায় এবারও শেষ মুহূর্তে আসর বাতিল হতে পারে বলে আশঙ্কা তৈরি হয়েছিল আয়োজক প্রধানের কথায়। তবে শেষ পর্যন্ত অলিম্পিক শুরু হওয়ায় স্বস্তি ফিরল ক্রীড়াপ্রেমীদের মনে।

অনুষ্ঠানে অলিম্পিক লরেল নামের বিশেষ সম্মাননা দেওয়া হয়েছে বাংলাদেশের নোবেল পদকজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে। ভার্চুয়ালি তাকে এই সম্মাননা দেওয়া হয়।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আসরের আয়োজক জাপানের সংস্কৃতি বিশ্বের সামনে তুলে ধরা হয়েছে। জাপানের অক্ষর অনুযায়ী মার্চ পাস্টে অংশ নেয় অংশগ্রহণকারী দেশগুলো।

অলিম্পিকে অংশগ্রহণকারী অ্যাথলেটের সংখ্যা ১১ হাজারের বেশি। নিয়মানুযায়ী প্রতিটি দেশের অ্যাথলেটরাই মার্চপাস্টে অংশগ্রহণ করে থাকেন।

এবারের অলিম্পিকে ৩৩টি খেলার ৫০টি ডিসিপ্লিনে ৩৩৯টি ইভেন্ট তথা স্বর্ণপদকের জন্য লড়বেন প্রায় ২০৫টি দেশের ১১ হাজার ৩২৪ জন ক্রীড়াবিদ। বাংলাদেশ থেকে ৬ জন ক্রীড়াবিদ রয়েছেন এবারের আসরে।

মানবকণ্ঠ/এসকে


poisha bazar

ads
ads