সাড়ে এগারোর নিচে নামল ডিএসইর পিই

সাড়ে এগারোর নিচে নামল ডিএসইর পিই
- ফাইল ছবি।

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২২ মার্চ ২০২০, ১৮:২৭

অব্যাহত টানা পতনের মধ্যে পড়ে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক মূল্য আয় অনুপাত (পিই) সাড়ে এগারোর নিচে নেমে গেছে। গত সপ্তাহে লেনদেন হওয়া চার কার্যদিবসের মধ্যে তিন কার্যদিবস দরপতন হওয়ায় এভাবে কমে গেছে পিই।

সপ্তাহজুড়ে তালিকাভুক্ত সব খাতেরই প্রায় অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দরপতন হয়েছে। এতে কিছু খাতের পিই বাজারের সার্বিক পিইর নিচে চলে গেছে। এর মধ্যে রয়েছে ব্যাংক, বীমা, সেবা ও আবাসন, টেলিযোগাযোগ এবং বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত।তালিকাভুক্ত কোম্পানির শেয়ারে বিনিয়োগ ঝুঁকি নির্ণয় করা হয় মূল্য আয় অনুপাত বা পিই রেশিও দিয়ে। যে কোম্পানির পিই যত কম ওই কোম্পানির শেয়ারে বিনিয়োগ ঝুঁকি তত কম।

সাধারণত ১০-১৫ পিই থাকা কোম্পানির শেয়ারের বিনিয়োগ করা ঝুঁকি মুক্ত ধরা হয়। আর ১০-এর নিচে পিই থাকলে ওই কোম্পানির শেয়ার দাম অবমূল্যায়িত ধরা হয়।

তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, গত সপ্তাহে বড় দরপতনের ফলে প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক মূল্য আয় অনুপাত এখন ১১ দশমিক ২১ পয়েন্টে অবস্থান করছে, যা গত সপ্তাহে ছিল ১১ দশমিক ৬৩ পয়েন্টে।

সার্বিক বাজারের যখন এই চিত্র তখন ব্যাংক খাতের পিই রয়েছে ৬ দশমিক ৩১ পয়েন্টে, যা গত সপ্তাহে ছিল ৬ দশমিক ৪০ পয়েন্ট। দীর্ঘদিন ধরেই ব্যাংক খাতের পিই ১০-এর নিচে রয়েছে। পিই ১০-এর নিচে থাকা অন্য খাতের মধ্যে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের পিই অবস্থান করছে ৯ দশমিক ৭১ পয়েন্টে, যা গত সপ্তাহে ছিল ৯ দশমিক ৯৫ পয়েন্টে। টেলিযোগাযোগের পিই ৯ দশমিক ৯৮ পয়েন্ট থেকে কমে ৯ দশমিক ৩৯ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। গত সপ্তাহের বড় দরপতনের কারণে সবক’টি খাতের পিই কমে গেছে।

পিই ১৫-এর নিচে থাকা খাতগুলোর মধ্যে সেবা ও আবাসনের ১১ দশমিক ৩৭ পয়েন্ট থেকে কমে ১০ দশমিক ৬৭ পয়েন্টে অবস্থান করছে। বীমার ১১ দশমিক শূন্য ৮ পয়েন্ট থেকে কমে ১০ দশমিক ৪৬ পয়েন্টে নেমে এসেছে। এ ছাড়া ওষুধ ও রসায়নের ১৫ দশমিক শূন্য ৩ পয়েন্টে, প্রকৌশলের ১৪ দশমিক ৭৫ পয়েন্টে, বস্ত্রের ১৪ দশমিক ৪৬ পয়েন্টে, খাদ্যের ১৬ দশমিক ৬৮ পয়েন্টে, তথ্য প্রযুক্তির ১৭ দশমিক ৮৪ পয়েন্টে, চামড়ার ১৯ দশমিক ৭৬ পয়েন্টে, বিবিধের ২১ দশমকি ৫১ পয়েন্টে এবং সিরামিকের ২২ দশমিক ৪৯ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

আর পিই সব থেকে বেশি থাকা খাতগুলোর মধ্যে- ভ্রমণ ও অবকাশের ৩১ দশমিক ৫৪ পয়েন্টে, পাটের ৩৩ দশমিক ৬৩ পয়েন্টে, সিমেন্টে ২৯ দশমিক ৭৫ পয়েন্টে, কাগজের ৪৩ দশমিক ৪১ পয়েন্টে এবং আর্থিক খাতের ৪৩ দশমিক ৮৯ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

মানবকণ্ঠ/এআইএস




Loading...
ads






Loading...