দেশে ৮৭ হাজার ডিজিটাল সেন্টার স্থাপন করা: পলক


  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১১ নভেম্বর ২০২২, ২০:৫৭,  আপডেট: ১১ নভেম্বর ২০২২, ২১:০১

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, দেশের প্রতিটি গ্রামে একটি করে মোট ৮৭ হাজার ডিজিটাল সেন্টার স্থাপন করা হবে। এতে প্রতি ২ কিলোমিটারের মধ্যে একটি করে ডিজিটাল সেন্টার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে জনগণের হাতের নাগালে সব সেবা পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হবে।

শুক্রবার ডিজিটাল সেন্টারের পথচলার যুগপূর্তি উদযাপন উপলক্ষে এটুআই আয়োজিত অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে ২০৪১ সালের স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তাদের স্মার্ট উদ্যোক্তা হিসেবে তৈরি করা হবে। এজন্য সারাদেশে ছড়িয়ে থাকা ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তাদের অনলাইন ও অফলাইনে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে।

তিনি আরো বলেন, জনগণের দোরগোড়ায় সেবা পৌঁছে দেওয়ার ক্ষেত্রে ডিজিটাল সেন্টার একটি বৈশ্বিকভাবে স্বীকৃত রোল মডেল। দেশব্যাপী ৮ হাজার ৮০৫টি ডিজিটাল সেন্টারে এক যুগ ধরে সরকারি-বেসরকারি সব সেবা সহজে, দ্রুত ও স্বল্প ব্যয়ে নাগরিকদের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিচ্ছেন উদ্যোক্তা। এসব সেন্টার থেকে প্রতি মাসে গড়ে ৭০ লাখের বেশি মানুষকে সেবা দেওয়া হচ্ছে।

জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ডিজিটাল সেন্টারগুলোতে নতুন নতুন জনবান্ধব সেবা যুক্ত করার লক্ষ্যে এটুআই বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও স্টেকহোল্ডারের সঙ্গে কাজ করছে। বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত ডিজিটাল সেন্টার ভবিষ্যতে বিদেশের মাটিতে প্রতিস্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। তিন বছরের মধ্যে জাতিসংঘের অধিভুক্ত ১৭০টি সদস্য দেশের মধ্যে ৫০টি দেশে ডিজিটাল সেন্টারের মডেল প্রতিস্থাপনের পরিকল্পনা রয়েছে।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন- আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম, এটুআই’র প্রকল্প পরিচালক ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর, এটুআই’র পলিসি অ্যাডভাইজার আনীর চৌধুরী, বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির (বিসিএস) সভাপতি সুব্রত সরকার, ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ই-ক্যাব) সভাপতি শমী কায়সার প্রমুখ।

মানবকণ্ঠ/এসআরএস


poisha bazar