ওয়াজ মাহফিলে হাদিয়া গ্রহণকারী এবং দাতা উভয়ই গুনাহগার

মাওলানা এম এ করিম ইবনে মছব্বির

- ফাইল ছবি

poisha bazar

  • ০২ জানুয়ারি ২০২১, ২১:৪৯,  আপডেট: ০২ জানুয়ারি ২০২১, ২১:৫২

পৃথিবী সৃষ্টি থেকে মহান আল্লাহ পাক রাব্বুল আলামীন, মানবজাতিকে হিদায়তের জন্য যুগে যুগে অসংখ্য, অগণিত নবী এবং রাছুল প্রেরণ করেছেন। বিশ্ব নবী হযরত মোহাম্মদ (সা.) বিনা হাদিয়াতে তায়েফের মাঠে ইসলামের দাওয়াত দিতে গিয়ে জুলুমের শিকার ও হয়েছিলেন। রাসুল (সা.) এর দাওয়াত ছিলো যে, সারা বিশ্ব মানব লা ইলাহা ইল্লালাহু মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ এর ছায়ার নীচে চলে আসুক। যাতে করে মানবজাতি ইহকাল এবং পরকালে শান্তি এবং কল্যাণকামী হয়ে যায়।

নবী মুহাম্মাদুর রাছুলুল্লাহ (সা.) তিনি নিজেই কাপড়ের ব্যবসা করতেন। মুসলিম জাতির আদি পিতা হযরত ইব্রাহিম (আ.) মিস্ত্রীর কাজ করতেন অর্থাৎ গৃহ নির্মাণের কাজ করতেন। নবী হযরত ইদরীছ (আ.) টেইলারিং অর্থাৎ কাপড় সেলাই করে জীবীকা নির্বাহ করতেন। আর বর্তমান যুগে আমাদের বাংলাদেশের কিছু কিছু হুজুররা ইসলামের কথা বলার জন্য তাদের সময় নেই, তাদেরকে হেলিকপ্টারে যেতে হবে। তাদের কে এডভান্স মানি পে করে তাদের ডায়েরী মেইনটেন্স করতে হয়। হায়রে ধর্ম বাবসায়ী অন্ধ কিছু কিছু কাঠ মৌলভীরা ধিক্কার জানাই তোমাদের অশিক্ষিত বিবেক কে।

ইলমে ফাছাহাত এবং ইলমে বালাগতের ইলিম না জেনে তারা পোষ্টার এবং তাদের ভিজিটিং কার্ডে তারা হয়ে যায় মুফাসসিরে কোরআন। মাসয়ালা, মাসাইলের নলেজ না থেকে তারা হয়ে যায়, ঘরে ঘরে মুফতী। সাধারণ মানুষ কে তারা কোরআন এবং হাদিসের আসল তথ্য না বলে তারা শুধু কেচ্ছা, কাহিনী এবং টাকা কামানোর কেচ্ছা কাহিনি শুরু করে। তাহলে জেনে নিন মহা পবিত্র আল কোরআনের আলোকে, ওয়াজ মাহফিল করে হেলিকপ্টার এবং বিনিময় গ্রহণ জায়িজ কিনা?

এক. আমি তোমাদের নিকট কোন প্রতিদান চাই না, আমার যাহা পাবার তাহা একমাত্র মহান আল্লাহর নিকট থেকেই পাবো। সুরায়ে শুআরা,আয়াত ১০৯।

দুই. বলে দিন আমি তোমাদের নিকট এ জন্য কোন পারিশ্রমিক বা হাদিয়া চাই না। ইহা সারা দুনিয়ার (ইহা আল কোরআন সারা দুনিয়ার মানবজাতির জন্য উপদেশ মাত্র) জন্য উপদেশ মাত্র। সুরায়ে আনয়াম, আয়াত ৯০।

তিন. বলুন আমি তোমাদের নিকট কোন প্রতিদান চাই না। যার ইচ্ছা সে তাঁর রবের পথ অবলম্বন করবে। সুরায়ে ফুরকান, আয়াত ৫৭।

চার. নবীদের কে অনুসরণ করো। অনুসরণ করো তাদের কে যারা তোমাদের নিকট কোন বিনিময় বা প্রতিদান চান নাই। সুরায়ে ইয়াছিন, আয়াত ২০, ২১।

পাঁচ. হে কাওম হে গোত্র আমি (তোমাদের নিকট ওয়াজ মাহফিলের বিনিময়ে হাদিয়া) বা বিনিময় চাই নাই। আমার হাদিয়া বা বিনিময় আমাকে আমার আল্লাহ ই দিবেন। সুরায়ে হুদ, আয়াত ৫১।

ইদানিং করোনাভাইরাস কালীন সময়ে কিছু কিছু মৌলভীদের ওয়াজ মাহফিল বন্ধের কারণে তাদের হালুয়া রুটির ধান্দা বাজির কোন রাস্তা নেই বলেই তারা মানুষ কে তাওবার কথা না বলে শুধু কেমনে টাকা রুজি করা যায় সে ধান্দাতে মত্ত হয়ে উঠেছে, কিছু কিছু ধর্ম ব্যবসায়ী কাঠমোল্লারা।

মহান আল্লাহ পাক আমাদের সবাইকে নবী ওয়ালা কাজ দাওয়াতে ইসলামকে সহীহ শুদ্ধভাবে বিনা হাদিয়া বিনা পারিশ্রামিকে গোটা উম্মাহের নিকট পৌঁছে দেয়ার তাওফিক দান করুক। মহান আল্লাহ পাক আমাদের সকলের সহায় হোন। আমীন।

মানবকণ্ঠ/এসকে






ads
ads