লকডাউনের ইতিবৃত্ত

মানবকণ্ঠ
আশরাফুল আলম খোকন - ফাইল ছবি

poisha bazar

  • আশরাফুল আলম খোকন
  • ০৫ মে ২০২০, ২১:৪২,  আপডেট: ০৫ মে ২০২০, ২১:৫৬

মার্চের ২০ তারিখ থেকে শুরু হলো লকডাউন করে না ক্যান? লকডাউন হলো। বললেন ফ্লাইট বন্ধ করতে হবে। সরকার করলো। এরপর বললেন আটকে পরা প্রবাসীরা অর্থনীতির অন্যতম চালিকা শক্তি। তাদেরকে ফেরত আনতে হবে। তাও আনলো। এরপর বললেন এদেরকে এনে করোনা আমদানি করা হয়েছে।

লকডাউনকে মানুষ ঈদের ছুটি মনে করে পঙ্গপালের মত ঢাকা ছাড়া শুরু করলো। সরকার ওদের ঠেকায় না ক্যান? অনেক কষ্টে সরকার তাও ঠেকাইলো।

ওমা মানুষতো ঘরে থাকে না। সরকার কঠোর হয় না ক্যান? সরকার কঠোর হইলো। কঠোর হয়ে প্রশাসন উত্তম মধ্যম দেয়া শুরু করলো। এরপর প্রতিক্রিয়া, ওহো.. মানবাধিকার লংঘন করা উচিত না। বুঝিয়ে বললেই হয়।

প্রশাসন বুঝানো শুরু করলো। এইবার আবার ভিন্নমত। বাঙালিরে সোজা আঙুলে ঘি উঠে না। কঠোর থাকা দরকার ছিলো।

একমাস’তো হয়ে গেলো। এতদিন লকডাউন চললো কিন্তু খেটে খাওয়া মানুষ চলবে ক্যামনে। লকডাউন যখন তুলে ফেলবে তখন তো আবার করোনা ছড়াবেই। বন্ধ রেখে অর্থনীতির ক্ষতি করে কি লাভ।

সরকার অর্থনীতির কথা চিন্তা করে স্বাস্থ্যবিধি ঠিক রেখে সীমিত আকারে সবকিছু ধীরে ধীরে ওপেন করার চেষ্টা করছে। এরপর আপনাদের প্রতিক্রিয়া ইতিহাসে স্থান পাবার মত।

যারা এই রকম মতামত ব্যক্ত করে নাই এই স্ট্যাটাস নিয়ে তাদের মন খারাপ কিছু নাই। আপনার মতো, আমার মতামতকেও ভিন্নমত হিসাবে নিয়ে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। আমার এই পর্যবেক্ষণ নিয়ে ক্ষুব্ধ হইয়েন না, বিরক্ত হইয়েন না।

আসেন নিজের নিরাপত্তার জন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি। দেশের অর্থনীতির চাকাও সচল রাখি।

(লেখকের ফেসবুক থেকে। বানান অপরিবর্তিত রাখা হলো।)

লেখক: আশরাফুল আলম খোকন-  প্রধানমন্ত্রীর ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি। 

মানবকণ্ঠ/জেএস




Loading...
ads






Loading...