manobkantha

কলাপাড়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় আহতদের দায়িত্ব নিলেন এমপি মহিব

পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে বরিশাল ও ঢাকায় মুমূর্ষু অবস্থায় চিকিৎসাধীন থাকা একই পরিবারের তিন সদস্যের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন পটুয়াখালী ৪ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ মো. মহিব্বুর রহমান মহিব।

আজ রোববার (২৫ সেপ্টেম্বর) বিকেলে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে চিকিৎসাধীন মিম ও জাহানারা বেগম এবং ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মুমূর্ষু অবস্থায় চিকিৎসাধীন থাকা শিশু জুনায়েদ এর চিকিৎসার জন্য নগদ পঁচিশ হাজার টাকা তুলে দেন এমপি।

এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন কলাপাড়া মহিলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ও তার সহধর্মিনী অধ্যক্ষ ফাতেমা আক্তার রেখা, ধানখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহজাদা পারভেজ টিনু মৃধা, নীলগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্পাদক মাসুদ নিজামী প্রমুখ। পরে এমপি মহিব হাসপাতালের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে ফ্লোরে চিকিৎসাধীন থাকা রোগীদের সিট নিশ্চিত করেন।

এর আগে রবিবার বিকেলে ঢাকা থেকে বরিশাল বিমানবন্দরে নেমে হাসপাতালে ছুটে গেলে সড়ক দুর্ঘটনায় স্ত্রী ও পুত্র শোকে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়া ধানখালী ইউনিয়নের মরিচ বুনিয়া গ্রামের মিঠু খান এমপিকে জড়িয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন। এ সময় হাসপাতাল করিডোরে এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের সৃষ্টি হয়।

প্রসঙ্গত, শনিবার দুপুর ১২টার দিকে বালীয়াতলী ইউপি'র মুসুল্লিয়াবাদ এলাকায় কুয়াকাটা বিকল্প সড়কে মর্মান্তিক এক সড়ক দুর্ঘটনায় মিঠু খানের শিশু পুত্র জিহাদ (১২) ঘটনাস্থলে নিহত ও তার স্ত্রী মুক্তা বেগম (৪০) এর দু'পা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।  এছাড়া গুরুতর আহত হয় বড় মেয়ে মিম আক্তার (১৪), ছোট ছেলে জুনায়েদ (০৬) ও মা জাহানারা বেগম (৬৫)।

স্থানীয়রা তাদের কলাপাড়া হাসপাতালে নিয়ে এলে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল রেফার করা হয়। পরে রাত এগারোটার দিকে অবস্থার অবনতি হলে জুনায়েদ ও মুক্তা বেগমকে বরিশাল থেকে ঢাকায় পাঠানো হয়। পথিমধ্যে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে দু'পা বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া মুক্তা বেগম। এ ঘটনায় ট্রলির মালিক ও চালককে আসামী করে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মানবকণ্ঠ/এমআই