manobkantha

মুন্সীগঞ্জে পুলিশ-বিএনপির সংঘর্ষ: ২ মামলায় আটক ২৬

মুন্সীগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি নেতাকর্মিদের সংঘর্ষের ঘটনায় ১ হাজার ৩৬৫ জনকে আসামী করে দুটি মামলা করেছে পুলিশ। এর মধ্যে ২৬ বিএনপি নেতাকর্মিকে আটক করা হয়েছে। বুধবার বিকাল থেকে বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত সদর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। পরে আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করে সন্ধ্যায় আদালতের মাধ্যমে জেলা হাজতে প্রেরণ করে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, বুধবার শহরের উপকন্ঠ মুক্তারপুর এলাকায় পুলিশের উপর বিএনপি নেতাকর্মিদের অর্তকিত হামলার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে এখন পর্যন্ত ২৬ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপরাধের অভিযোগ এনে দুটি মামলা করে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের অপর আসামীদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে বলেও জানায় পুলিশ।

এদিকে বুধবার দিবাগত গর্ভীর রাত ১টার দিকে সদর উপজেলার মিরেশ্বরের খালাসি বাড়ি এলাকায়  বিএনপি নেতা নিজাম মেম্বারের সুতার কারখানায় অগ্নি কান্ডের ঘটনা ঘটে। আগুনে সুতার কারখানাসহ ৩টি বসতঘর পুড়ে ছাই হয়ে যায়া। এতে অর্ধকোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি ক্ষতিগ্রস্থ্যদের। তবে ষড়যন্ত্র করে কেবা কাহারা আগুন লাগিয়েছে বলে অভিযোগ করেন কারখানা মালিক নিজাম মেম্বার।

অপরদিকে পুলিশের উপর বর্বরোচিতর অভিযোগ এনে প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল করেছে জেলা আওয়ামী লীগ। বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৫টায় শহরের কাচারি চত্বরে বিএনপির নৈরাজ্য ও পুলিশের উপর বর্বরোচিত হামলার অভিযোগ করে এই প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করে জেলা আওয়ামী লীগ। এতে বিএনপি-জামায়াতে সন্ত্রাসী ও ধ্বংসাত্ত্বক কর্মাকান্ডের তীব্র সমালোচনা করে ও পুলিশের উপর হামলা কারীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তির দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধর ঘনিষ্ট সহচর ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মো. মহিউদ্দিন।

এছাড়া আরও বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আনিছুজ্জামান আনিছ, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী আফসার উদ্দিন ভূইয়া, মুন্সীগঞ্জ পৌর মেয়র হাজী ফয়সাল বিপ্লব ও বিভিন্ন অংগসংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে কাচারি চত্বর থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ্য সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় কাচারি চত্বরে এসে শেষ হয়।

মানবকণ্ঠ/এমআই