manobkantha

মান্দায় বাঁধ কেটে ধান নষ্ট করার প্রতিবাদে মানববন্ধন

এম এ রাজ্জাক, নওগাঁ

নওগাঁর মান্দায় বাঁধ কেটে তলিয়ে দিয়ে শতাধিক বিঘা জমির বোরো ধান নষ্ট করার অভিযোগ উঠেছে প্রভাবশালী দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে। তাদের বিরুদ্ধে ভাড়াটিয়া বাহিনীর সহযোগিতায় দুইটি পাওয়ার টিলার ও ২০টি শ্যালোমেশিন পুড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগও পাওয়া গেছে।

এর প্রতিবাদে শনিবার (১৫ জানুয়ারি) দুপুরে পাকুড়িয়া শহীদ বাজারে বধ্যভূমির সামনে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছেন ভূমিহীন পরিবারের সদস্যরা।

এসময় বক্তব্য দেন, পাকুড়িয়া-কালিসভা ভূমিহীন সমিতির সভাপতি দানেছ আলী প্রামাণিক, সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান, মমতাজ উদ্দিন, মোবারক হোসেন, নাসির উদ্দিন, রুবিনা বিবি প্রমুখ।

পাকুড়িয়া ভূমিহীন সমিতির সভাপতি দানেছ আলী প্রামাণিক বলেন, বিলউথরাইল জলমহালের ৯৩৩ একর খাস জমির মধ্যে শতাধিক বিঘা পাকুড়িয়া ও কালিসফা গ্রামের ভূমিহীন ৮০ পরিবার দীর্ঘদিন ধরে ভোগদখল করে আসছেন। বর্ষা মৌসুমে বিলে মাছ শিকার করেন মৎসজীবী ও ভূমিহীন পরিবারের লোকজন। শুষ্ক মৌসুমে ওই খাস সম্পত্তিতে বোরো ধানের চাষ করেন তারা। ওই সম্পত্তি দখল নিতে দীর্ঘদিন ধরে পাঁয়তারা করে আসছিলেন পাকুড়িয়া গ্রামের আতাউর রহমান ও ফারুক আহমেদ। গত শুক্রবার জুমার নামাজের সময় আতাউর ও ফারুকের নেতৃত্বে শতাধিক ভাড়াটিয়া বাহিনী বাঁধ কেটে দিয়ে ভূমিহীনদের বোরো ধান তলিয়ে দেন। এতে অন্তত ২০ বিঘা জমির ধান নষ্ট হয়ে যায়। প্রভাবশালীদের ভাড়াটিয়া বাহিনী এসময় দুইটি পাওয়ার টিলার ও ২০টি শ্যালোমেশিন পুড়িয়ে দেয়।

সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান বলেন, এসব জমি চাষ করতে ভূমিহীনদের কাছ থেকে চাঁদাও দাবি করেন ভূমিদস্যুরা। চাঁদা না দেওয়ার ভূমিদস্যুরা সরকারি সম্পত্তি থেকে তাদের উচ্ছেদের চক্রান্ত করে। খাস সম্পত্তির দখল নিতে শুক্রবার রাতে ভূমিদস্যু ফারুক আহমেদ বাদি হয়ে ভূমিহীন পরিবারের লোকজনের বিরুদ্ধে মান্দা থানায় একটি সাজানো মামলা দিয়েছে। মামলার পর আসামি ধরার নামে ওই রাতেই পুলিশ ভূমিহীনদের বাড়িতে তাণ্ডব চালিয়ে দরজা ভাঙচুর ও আসবাবপত্র তছনছ করে।

এ বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত ফারুক আহমেদের মোবাইলে বারবার কল দেওয়া হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিনুর রহমান বলেন, বিলউথরাইল বিলে মারপিটের ঘটনায় ফারুক আহমেদ বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন। ওই মামলার আসামি গ্রেফতারে শুক্রবার রাতে অভিযান দেওয়া হয়েছিল। ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের লোকজনও মামলা করতে পারেন।