manobkantha

নাসিরের সঙ্গে থাকা তিন নারীকে নিয়ে মিলল চাঞ্চল্যকর তথ্য

হালের জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা পরীমনি অভিযোগ করেছেন, তাকে ধর্ষণ ও হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলায় গ্রেফতার হয়েছেন ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদ। সে সময় তার সঙ্গে অমিসহ তিনজন নারীও ছিল।

সেই তিন নারী যদি রাজি হয় তাহলে নাসিরের বিরুদ্ধে আরও একটি মামলা হবে। এছাড়া আরও একটি মাদক মামলা হবে উত্তরা পশ্চিম থানায়। একই সঙ্গে নাসিরের সহযোগী তুহিন সিদ্দিকী অমির বিরুদ্ধেও একই মামলা দায়েরের প্রস্তুতির কথা জানিয়েছে পুলিশ।

সোমবার বিকেলে উত্তরার এক নম্বর সেক্টরের ১২ নম্বর সড়কের একটি বাসা থেকে এই দু’জনের সঙ্গে তিন নারীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। নারীরা হলেন— লিপি আক্তার (১৮), সুমি আক্তার (১৯) ও নাজমা আমিন স্নিগ্ধা (২৪)।

গোয়েন্দা পুলিশের উপ-কমিশনার মশিউর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, সাভার থানার মামলা ছাড়াও তাদের বিরুদ্ধে মাদক মামলা হবে উত্তরা পশ্চিম থানায়। ওই তিন নারী যদি রাজি হয়, তাহলে তাদের বিরুদ্ধে জোরপূর্বক যৌন কাজ করানোর অভিযোগ এনে আরও একটি মামলা হবে।“ মামলার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এই গোয়েন্দা কর্মকর্তা জানান, উত্তরার যে বাসা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে সেটি স্নিগ্ধা নামের নারীর। স্নিগ্ধা নামের ওই নারী দাবি করেন, এই বাসায় নাসির ও অমি ‘আমোদ-ফুর্তি’ করতে আসতেন। গ্রেফতার অভিযানের সময় ওই বাসা থেকে এক হাজার ইয়াবা ও বিভিন্ন ব্র্যান্ডের বিদেশি মদ-বিয়ার উদ্ধার করা হয়।

পরীমনির অভিযোগের পর রোববার রাত থেকে ঘটনাটি আলোচনায় রয়েছে। সোমবার সাভার থানায় নির্যাতন ও ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে নাসির উদ্দিন মাহমুদসহ ছয়জনের নামে মামলা দায়ের করেন এই অভিনেত্রী। এরপর পাঁচজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। মঙ্গলবার শোন অ্যারেস্ট দেখিয়ে তাদের আদালতে হাজির করে প্রত্যেকের ১০ দিন করে রিমান্ডের আবেদন জানান তদন্ত কর্মকর্তা।

পরে ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও তুহিন সিদ্দিকী অমিকে মাদক আইনের মামলায় সাত দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি পেয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ। পাশাপাশি এ ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া তিন নারী লিপি আক্তার, সুমি আক্তার ও নাজমা আমিন স্নিগ্ধাকেও তিন দিন করে রিমান্ডে পাঠিয়েছে আদালত।

দেখুন: