manobkantha
খাশ আমদেদ মাহে রমজান

তাওবা ব্যতীত বিকল্প পথ নেই

খাশ আমদেদ মাহে রমজান

মাহে রমজানের রোজা আমরা সবাই ঠিকই পালন করে যাচ্ছি। কিন্তু করোনা কালীন রমজানে নেই কোনো আনন্দ-উচ্ছ্বাস, আমেজ। সবাই যেনো হতাশা, বিষাদ, শোক এবং অবসন্নতার অতল গহ্বরে নিমজ্জিত।

মানবজাতি একটু স্বস্তি এবং শান্তিতে থাকার রাস্তা খুঁজছে। কিন্তু করোনার ফলে সব কিছুই যেন অন্ধকারাচ্ছন্ন। এ সময়ে কেউ যেন কারো নয়। সবাই ইয়া নাফছি ইয়া নাফছি জপছে। এ মুহূর্তে দিশেহারা মানুষের আলোর পথ দেখাতে পারে একমাত্র আল কোরআন।

আল্লাহ পাক ঘোষণা করেন যে, ওয়া নুনাজ্জিলু মিনাল কোরআনি মা হুয়া শিফাউও ওয়া রাহমাতুল লিল মুমিনিন। অর্থাৎ আমি কোরআনে এমন বিষয় অবতীর্ণ করি, যাহা রোগের জন্য সুচিকৎসা এবং মুমিনদের জন্য রহমত।

সুতরাং দুনিয়াতে আমরা অসুস্থ বোধ করলে চিকিৎসক এবং হসপিটালের স্মরণাপন্ন হই। হসপিটাল ও চিকিৎসকের স্মরণাপন্ন হওয়া সুন্নত। কিন্তু কবরের জগতে যখন করোনা ভাইরাসের মতো যন্ত্রণাদায়ক আজাব ঘেরাও করবে, তখন হসপিটাল আর ডাক্তার পাবেন কোথায়?

অতএব, ইহকালীন এবং পরকালীন মুক্তির লক্ষ্যে মহান আল্লাহর নিকট একমাত্র তাওবা ব্যতীত অন্য কোনো বিকল্প পথ নেই। একমাত্র মহান আল্লাহর নিকট তাওবা এবং আল্লাহর দিকে ফিরে আসাটাই হবে মানবজাতির মুক্তির পাথেয়।

করোনা ভাইরাস বুঝাতে চেয়েছে যে জীবনে অনেক কিছুই করেছেন, এখন আর নয়, তাওবার দরজাটা বন্ধ হওয়ার আগেই মহান আল্লাহর নিকট শির নত করে তাওবা করাটা হলো বুদ্ধিমানের কাজ। মহান আল্লাহ পাক আমাদিগকে রমজান মাসে বেশি বেশি করে আল্লাহর নিকট তাওবা করার তাওফিক দান করুন। আমীন।