manobkantha

লকডাউনেও চলবে বাংলাদেশ গেমস

সোমবার থেকে দেশে শুরু হচ্ছে এক সপ্তাহের লকডাউন। এ সম্পর্কিত বিষয়ে রোববার প্রজ্ঞাপন জারি করে সরকার। লকডাউনে অনেক ক্ষেত্রে ফের স্থবিরতা নেমে আসলেও চলমান বঙ্গবন্ধু ৯ম বাংলাদেশ গেমস চালিয়ে যাওয়ার কথা জানিয়েছে বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন (বিওএ)।

সংস্থাটির মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা কাল আনুষ্ঠানিকভাবে দেশের গণমাধ্যমকে এই তথ্য দিয়েছে। তবে পূর্ব নির্ধারিত ১০ এপ্রিল নয়, একদিন আগেই গেমসের পর্দা নামবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

শনিবার থেকেই উৎকণ্ঠা, লকডাউনে কি হবে বাংলাদেশ গেমসের ভবিষ্যৎ। শাহেদ রেজা জানিয়েছিলেন, সরকারি আদেশের অপেক্ষায় আছেন তারা।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ গেমস চলবে। যেগুলো ইভেন্ট বাকি আছে আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে শেষ করব। আমি আশাবাদী। সরকার বিষয়টি জানে। পক্ষ থেকে ইতিবাচক উত্তর পাব। এরইমধ্যে সবার সঙ্গে কথা হয়েছে। তারা আশ্বাস দিয়েছেন গেমসটা ঠিক মতো হবে। আগামী ৯ তারিখের মধ্যে গেমসটি শেষ করে ফেলব।’

ঝুঁকি নিয়েই দেশের সবচেয়ে বড় ক্রীড়া উৎসব বাংলাদেশ গেমসের পর্দা উঠে গত ১ এপ্রিল। জাঁকজমক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে ৮ বছর পর্দা ওঠে এবারের গেমসের। তবে করোনা পরিস্থিতি প্রতিদিনই অবনতি হওয়ায় শনিবার লকডাউনের প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। যার প্রক্রিয়া শুরু হবে আজ।

এদিকে, লকডাউনের মধ্যে দেশব্যাপী সাতটি জেলার যে ২৯টি ভেন্যুতে এই ক্রীড়াযজ্ঞ চলছে, সেখানেই বাকি খেলাগুলো সম্পন্ন করার ইচ্ছে আছে বিওএর। বাংলাদেশ জিমন্যাস্টিকস ফেডারেশনের সভাপতি ও বিওএর সহ-সভাপতি শেখ বশির আহমেদ মামুন এ তথ্য দিয়েছেন।

কাল জিমন্যাস্টিকস ইভেন্টের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান শেষে তিনি দেশের গণমাধ্যমকে জানান, স্বাস্থ্যবিধি মেনেই আসর শেষ করতে চান তারা, ‘স্বাস্থ্যবিধি মেনে আমরা কম লোকসমাগমের উপস্থিতিতে রেখে গেমসটি করব। আপনারা এখন পুরস্কার বিতরণী (জিমন্যাস্টিকসের পুরস্কার বিতরণী) অনুষ্ঠানে দেখেছেন যে আমরা একদম বাইরের লোক প্রবেশাধিকার বন্ধ করেছি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে আমরা এই গেমসটি সম্পন্ন করব এবং এই ব্যাপারে সরকারের সঙ্গে আমাদের কথা হয়েছে। সরকারি সিদ্ধান্ত মোতাবেক আমরা খেলা চালিয়ে যাচ্ছি এবং সব ভেন্যুতেই খেলা চলবে ইনশাআল্লাহ।’