manobkantha

জাল দলিলে ঋণ নিয়ে পরস্পরকে দোষারোপে ব্যস্ত কর্মকর্তারা

আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক খিলক্ষেত শাখায় ভুয়া দলিলপত্রে দেয়া শত শত কোটি টাকার ঋণ নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা একে অন্যকে দোষারাপ করছেন। মধ্যসত্ত্বভোগী কমিশনভোগীরা গা ঢাকা দেয়ায় এই কর্মকর্তারা নিজেদের বাঁচাতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। কেউ কেউ পালিয়ে বিদেশ চলে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। এর মধ্যে ব্যাংকটি ঊর্ধ্বতন কয়েকজন কর্মকর্তা রয়েছেন। যারা এসব ঋণ দেয়ার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট রয়েছেন।

সূত্র জানায়, একজন ব্যবসায়ীর প্রায় ১৪০০ কোটি টাকা নিয়ে একজন দায়িত্বশীল বিদেশে চলে গেছেন। ওই ব্যবসায়ী ব্যাংকটির ঊর্ধ্বতন ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের কাছে বারবার ধরনা দিয়েও টাকা ফেরত পাওয়ার বিষয়ে আশ্বস্ত হতে পারছেন না।

এদিকে আমানত নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন খিলক্ষেত শাখার গ্রাহকরা। অনেকেই ব্যাংকটির হিসাব বন্ধ করে অন্য ব্যাংকে চলে যেতে চাইছেন। কেউ কেউ এফডিআরসহ নানা ধরনের আমানত তুলে নিতে চাইছেন। গ্রাহকদের অভিযোগ, ব্যাংকটির খিলক্ষেত শাখার ম্যানেজার ও সেকেন্ড অফিসার শাখাটিকে ধ্বংসের পথে নিয়ে গেছেন। তাদের অব্যবস্থাপনায় গ্রাহকরা অতিষ্ঠ। বারবার অভিযোগ করেও গ্রাহক হয়রানি বন্ধ হচ্ছে না। গ্রাহকসেবার দিকে মনোযোগ নেই তাদের। তারা ব্যস্ত ঋণ প্রদান ও কমিশন বাণিজ্য নিয়ে।

জানা গেছে, যেসব গ্রাহক কর্মকর্তাদের অনিয়ম-দুর্নীতির প্রতিবাদ করছেন তাদেরকে ভুয়া ঋণ সিন্ডিকেট সদস্যরা নানা রকম হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। ফলে গ্রাহকরা ব্যাংকটির প্রতি আর আস্থা রাখতে পারছেন না।

 

দেখুন: