manobkantha

অবৈধভাবে ইউরোপ প্রবেশে বাংলাদেশ পঞ্চম

মানবকণ্ঠ

চলতি বছরের প্রথম ৪ মাসে প্রায় ৬ হাজার অবৈধ অভিবাসী ছয়টি পশ্চিম বলকান দেশের মধ্য দিয়ে ইইউ প্রবেশ করেছে বলে দাবি ইউরোপীয় সীমান্ত ও উপকূলরক্ষী সংস্থা ফ্রন্টেক্সের। এসময় পশ্চিমাঞ্চলীয় বালকান রাষ্ট্রগুলো হয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোতে অনুপ্রবেশ ৬০ শতাংশ বেড়েছে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। তাদের তথ্যানুসারে, ইউরোপে অবৈধভাবে প্রবেশের তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান পঞ্চম।

জানা গেছে, ইউরোপের দেশগুলোতে প্রবেশে লিবিয়া থেকে ভূমধ্যসাগর হয়ে সাত থেকে আটটি রুট ব্যবহার করেন অভিবাসন প্রত্যাশীরা। সম্প্রতি কোস্টগার্ডের তৎপরতায় লিবিয়া থেকে সাগরপথে ইতালি বা গ্রিসে প্রবেশ কঠিন হয়ে পড়ায় বলকান রুট ব্যবহার করছে মানবপাচারকারীরা। ইউরোপের অন্যান্য অংশের তুলনায় বলকান অঞ্চলের ক্রোয়েশিয়া, স্লোভেনিয়া, সার্বিয়াসহ অন্যান্য দেশ অর্থনৈতিক দিক থেকে অনেকটাই দুর্বল। অপরাধপ্রবণতাও অনেক বেশি। এই সুযোগে বলকান দেশগুলোকে ঘিরে বর্তমানে ইউরোপে মানবপাচার চক্রের এক বিশাল নেটওয়ার্ক গড়ে উঠেছে।

এদিকে, গত মাসের শেষ দিকে লিবিয়ায় মানবপাচারকারী চক্রের গুলিতে ২৬ বাংলাদেশি নিহতের পর আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোতে ভূমধ্যসাগর হয়ে অভিবাসীদের ইউরোপে মানবপাচারের বিষয়টি আবারও আলোচনার জন্ম দেয়। এ ঘটনার প্রেক্ষিতে অভিবাসীদের প্রবেশ ঠেকাতে ক্রোয়েশিয়া সীমান্তে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করেছে স্লোভেনিয়া।

অভিবাসন ও নিরাপত্তা খাতে পশ্চিমা বলকান অংশীদারদের সঙ্গে সহযোগিতা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইউরোপীয় কাউন্সিল। আরও দক্ষ অভিবাসন নীতি এবং সীমান্ত পরিচালনা অর্জনের ক্ষেত্রে কাউন্সিল তাদের সহযোগিতা দিয়ে যাওয়ারও ঘোষণা দেয়া হয়।

মানবকণ্ঠ/এইচকে