manobkantha

চিকিৎসা সেবায় ইতিহাস গড়তে যাচ্ছে আশিয়ান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

বাংলাদেশে চিকিৎসাসেবার ইতিহাস গড়তে যাচ্ছে আশিয়ান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। বিশ্বমানের বিশেষায়িত এ হাসপাতাল গড়ে উঠেছে রাজধানীর বরুয়া খিলক্ষেতে। এতে রয়েছে বিশ্ববিখ্যাত ডাক্তারদের চিকিৎসাসেবার সব সুযোগ-সুবিধা। এ কারণে দিন দিন হাসপাতালের প্রতি রোগীদের আস্থা বাড়ছে। ২৪ ঘণ্টা চলছে ভালো মানের চিকিৎসা। স্বনামধন্য চিকিৎসক এবং প্রত্যেক বিভাগে প্রফেসর ও অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর সার্বক্ষণিক নিয়োজিত রয়েছেন রোগীদের সেবায়। রাজধানী ছাড়াও সারাদেশ থেকে রোগীরা আসছেন চিকিৎসা নিতে।

খুব অল্প সময়ে দেশ ও মানুষের আস্থার ঠিকানা হিসেবে পরিণত হয়েছে হাসপাতালটি। রোগীদের ভরসাস্থল হওয়ার পর ঢাকাসহ সারাদেশ থেকে প্রতিদিন হাজার হাজার রোগী ভিড় করছেন। ভালো চিকিৎসার পাশাপাশি গরিব, অসহায়দের বিনা পয়সায় চিকিৎসা চালু করেছেন আশিয়ান গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নজরুল ইসলাম ভূঁইয়া। তিনি বলেন, অদূর ভবিষ্যতেও চলবে এ সেবা। দিনের পর দিন উন্নতি হচ্ছে, ভবিষ্যতেও এ সুনাম অব্যাহত থাকবে। নজরুল ইসলাম ভূঁইয়া বলেন, উন্নত সেবাদানের ফলে যোগ্যতা অর্জন করছে আশিয়ান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। প্রয়োজনে আরো উন্নত সেবা দেয়া হবে এখানে। হাসপাতালটিতে প্রবেশেই সবুজঘেঁষা মাঠের পাশেই আধুনিক সাজ-সজ্জা ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন পরিবেশ চোখ জুড়িয়ে যায়। রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোড থেকে ৩০০শ’ ফুট হয়ে বোয়ালিয়া ব্রিজের পাশে স্বদেশ গেটে নামতে হয়। তারপর ৫শ’ গজ উত্তরে গেলেই চোখে পড়ে এই আধুনিক হাসপাতালটি। এ ছাড়া খিলক্ষেত থেকে লেক সিটি হয়ে সরাসরি আসতে হয় এ হাসপাতালে।

বিশাল এ হাসপাতালের আয়তন। হাসপাতালে গিয়ে অবাকই হতে হয় অনেককে। কারণ রাজধানীর অন্য সাধারণ হাসপাতালগুলোর সঙ্গে এর কোনো মিল নেই। এখানে নেই কোনো দালালের দৌরাত্ম্য। নেই কোনো বিশৃঙ্খলা। শুধু তাই নয়, বিশেষায়িত এই হাসপাতালে গেলে যে কারো মন ভালো হয়ে যাবে এর নান্দনিক অবকাঠামো দেখে। চিকিৎসাসেবার জন্যও এখানে আছে অনেক আয়োজন। আছে আধুনিক প্রযুক্তির সব চিকিৎসা সরঞ্জাম। সেবা দিতে সবসময়ই প্রস্তুত আছেন দক্ষ চিকিৎসক, নার্স ও মেডিকেল টেকনোলজিস্টরা। প্রয়োজনে দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের পরামর্শও নিতে পারবেন এ হাসপাতাল থেকে। শুধু তাই নয়, হাসপাতালটি একদিন বিশ্বের সেরা হাসপাতালে পরিণত হবে বলে জানায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। মূলত চিকিৎসার জন্য যেন দেশের অন্যান্য হাসপাতাল বা বিদেশে যেতে না হয় সেই লক্ষ্য নিয়েই গড়ে তোলা হয়েছে আশিয়ান মেডিকেল কলেজ বিশেষায়িত এ হাসপাতাল।

সংশ্লিষ্টরা জানান, এই হাসপাতালটি গত কয়েক বছরের মধ্যে দেশের অন্যান্য নামি-দামি হাসপাতালের মতো ইতিহাস গড়তে যাচ্ছে। যা রোগীদের কাছে আরো অধিকতর আস্থাভাজন করে তুলবে। হাসপাতালটির বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো দেশখ্যাত ডাক্তাররা রোগী দেখেন নিয়মিত। এমনকি বিখ্যাত ডাক্তাররাও বসেন। রয়েছে দরিদ্র রোগীদের বিশেষ সুযোগ-সুবিধা। সুবিধাবঞ্চিতদের বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবার সুযোগ রয়েছে। রয়েছে সড়ক দুর্ঘটনায় আহতদের দ্রুত চিকিৎসার বিশেষ ব্যবস্থা। এ ছাড়া প্রতিবন্ধী আর নির্যাতিত নারীদের সেবায় অগ্রাধিকার দেয়া হয় এখানে।

অন্যদিকে আশিয়ান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল চিকিৎসা সেবায় বাংলাদেশে এক মাইলফলক হিসেবে কাজ করছে স্থানীয় এলাকাবাসীর কল্যাণে। একান্ত সাক্ষাৎকারে গতকাল হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নজরুল ইসলাম ভূঁইয়া বলেন, রাজধানীর বরুয়া, খিলক্ষেত, কাওলা, পাতিরা, ডুমনি, এয়ারপোর্ট, কাঞ্চন, উত্তরখান, দক্ষিণখান, ইছাপুরা, রূপগঞ্জ ও শিমুলিয়া এলাকার জনগণের জন্য এ ফ্রি চিকিৎসাসেবা উন্মুক্ত থাকবে। এ ছাড়া রাজধানীসহ ঢাকার আশপাশের কেউ ডেঙ্গুজ্বরসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হলে তাকেও চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এ জন্য তিনি হাসপাতালে ডেঙ্গুজ্বরের সব ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা ফ্রি করেছেন।

এদিকে উন্নত সেবাদানের ফলে শত শত ডাক্তার প্রতিদিন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করছেন উন্নত চিকিৎসা সেবা দেয়ার জন্য। পত্রিকায় বিজ্ঞাপন ছাড়াই ভালো বায়োডাটা জমা পড়েছে। চাহিদার চেয়ে বেশি বায়োডাটা জমার ফলে বিকল্প পদ সৃষ্টি করতে যাচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। হাসপাতালে সকল বিভাগে ডাক্তার নেয়ার পর আর কোনো বাড়তি ডাক্তার নিতে পারছে না। অপরদিকে বাকি যারা রয়েছেন তাদের নিয়োগ দেয়ার জন্য দ্রুত ব্যবস্থা নিচ্ছেন আশিয়ান গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. নজরুল ইসলাম ভূঁইয়া। একই সঙ্গে তিনি মেডিকেলে পরিচালক পদ সৃষ্টি করছেন।

অন্যদিকে মো. নজরুল ইসলাম ভূঁইয়া তার হাসপাতালের ডাক্তার, পরিচালকসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে বলে দিয়েছেন যে, কসাইয়ের মতো জবাই করে কোনো রোগী থেকে টাকা নেয়া যাবে না। কেউ টাকা না দিতে পারলে বিনা পয়সায় তাকে হাসপাতাল থেকে রিলিজের নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। স্থানীয় এলাকার গরিব, দরিদ্র মানুষের জন্য, বাংলাদেশের মানুষের জন্য নামমাত্র টাকা নিয়ে জটিল ও কঠিন রোগের চিকিৎসা অব্যাহত রাখতে তিনি নির্দেশ দিয়েছেন।

একেবারেই কম টাকা অথবা বিনা পয়সায় চিকিৎসা সেবা নিতে চাইলে আশিয়ান মেডিকেল হাসপাতালে আসতে হবে। এ ছাড়া বাংলাদেশে যে কোনো জেলার গরিব-অসহায় রোগীদের টাকার অভাবে চিকিৎসা হচ্ছে না। সে সব রোগী বিনা চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করতে পারেন এ হাসপাতালে। আশিয়ান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ও কার্ডিওলজি বিভাগের ডাক্তার মোহাম্মদ মোবারক হোসেন (সিআরএ-কানাডা, এআরডিসিএ-আমেরিকা, ডিপ্লোমা-টিটি, অস্ট্রিয়া) জানান, ব্যবসায়ীর প্রতি ব্যবসায়ীর শত্রুতা থাকতে পারে। কিন্তু এ হাসপাতালে এসে দেখলাম ভিন্ন এক মহামানব।

তিনি হচ্ছেন- আশিয়ান গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নজরুল ইসলাম ভূঁইয়া। মোবারক হোসেন বলেন, উনার ও এ হাসপাতালের পরিচালকদের কথা শুনে আমি খুব খুশি। নজরুল সাহেব অনেক বড় মনের মানুষ। তার হৃদয় সকলের জন্য উন্মুক্ত। ডাক্তার মোবারক আরো বলেন, কম পয়সায় চিকিৎসা করতে পারব রোগীদের। এ কথা শুনে আমি আনন্দিত ও গর্বিত। যে কোনো রোগের জন্য আপনারা এ হাসপাতাল থেকে সহযোগিতা নিতে পারবেন।

মানবকণ্ঠ/এএম