• বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২
  • ই-পেপার

ঢাকা ওয়াসার এমডি'র টাকার হিসাব চেয়েছেন হাইকোর্ট


  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১৮ আগস্ট ২০২২, ১০:৪৯,  আপডেট: ১৮ আগস্ট ২০২২, ১১:২১

ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তাকসিম এ খান বেতন-ভাতা, উৎসাহ ভাতা, আনুষঙ্গিক সুবিধা হিসেবে যত টাকা নিয়েছেন তার হিসাব চেয়েছেন হাইকোর্ট। আগামী ২ মাসের মধ্যে এ হিসাব দাখিল করতে বলা হয়েছে।

রিটের শুনানি শেষে গতকাল বুধবার বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া এবং বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

সরকারি সিদ্ধান্তে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগের ক্ষেত্রে বেতন কাঠামোর প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। তা সত্ত্বেও ঢাকা ওয়াসা পরিচালনা বোর্ড এমডির বেতন-ভাতা দফায় দফায় বৃদ্ধি করে। শুনানিকালে এ প্রসঙ্গে হাইকোর্ট বলেন, এ যেন এক দেশে দুই নীতি।

রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া। শুনানিতে সরকারি সিদ্ধান্তে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগের ক্ষেত্রে বেতন কাঠামো নিয়ে ২০১৬ সালের ২৬ জানুয়ারি অর্থ মন্ত্রণালয়ের জারিকৃত প্রজ্ঞাপন আদালতে উপস্থাপন করেন এই আইনজীবী।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের ওই সিদ্ধান্তটি পর্যালোচনার পর ওয়াসা এমডির নিয়োগের ক্ষেত্রে ওয়াসা বোর্ডের সিদ্ধান্ত অর্থ মন্ত্রণালয়ের জারি করা সিদ্ধান্তের সঙ্গে পুরোপুরি সাংঘর্ষিক বলে মন্তব্য করেন আদালত। এ সময় আদালত উষ্মা প্রকাশ করে বলেন, এ যেন এক দেশে দুই নীতি।

শুনানি শেষে আদালত ওয়াসার এমডিকে অপসারণের ক্ষেত্রে ওয়াসা বোর্ডের নি®িঙঊয়তা কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে নাÑ এই মর্মে রুল জারি করেন। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদশ (ক্যাব) এ রিট করে।

রিটে উল্লেখ করা হয়, ২০০৯ সাল থেকে ঢাকা ওয়াসার এমডি পদে রয়েছেন তাকসিম এ খান। প্রথম নিয়োগের পর থেকে এ পর্যন্ত ৬ বার তার নিয়োগের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। নিয়োগ চুক্তির মেয়াদ বৃদ্ধিসহ নানা কারণে ওয়াসার এই শীর্ষ কর্মকর্তা আলোচিত-সমালোচিত। বিভিন্ন ধরনের মন্তব্য করেও তিনি সমালোচনার জন্ম দিয়েছেন। ঢাকায় অনেক এলাকায় ওয়াসার সরবরাহ করা পানি পানের অনুপযুক্ত হলেও তিনি দাবি করেন ওয়াসার সরবরাহ করা পানি সুপেয় এবং তিনি সেটি না ফুটিয়েই পান করেন। পরে সমাজকর্মীরা তাকে পূর্ব জুরাইন এলাকায় সরবরাহ করা ওয়াসার পানির শরবত খাওয়াতে আসেন ওয়াসা ভবনে। কিন্তু তিনি সেদিন দেখা দেননি। সম্প্রতি ওয়াসার পানির দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব করেন সরকারের কাছে।

তিনি জানান, ওয়াসা এখনও ভিক্ষা করে বা সরকারের ভর্তুকিতে চলে। তাই পানির দাম বৃদ্ধি করে সেই ভর্তুকি কমাতে চান। এরই মধ্যে আবার তিনি নিজের বেতন বাড়ানোর কথা বলেন বোর্ডকে। 

 

মানবকণ্ঠ/পিবি


poisha bazar