সংসদে নালিশ দেয়ার চিন্তা


  • জাহাঙ্গীর কিরণ
  • ২৫ জুন ২০২১, ১০:২৩

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ নিয়ন্ত্রণাধীন প্রতিষ্ঠান স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক (ডিজি) আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলমের বিরুদ্ধে জাতীয় সংসদে নালিশ জানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে এ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। করোনাকালীন সময়ে মাস্ক, কিট, ভ্যাকসিন ক্রয় এবং সংকট মোকাবিলায় মন্ত্রণালয়ের পদক্ষেপ জানতে বারবার তাকে ডাকা হলেও বৈঠকে না আসায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

তবে সংসদে উত্থাপনের বিষয়টি নির্ভর করছে তার বিরুদ্ধে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কী ধরনের ব্যবস্থা নেয় এর ওপর। জাতীয় সংসদ ভবনে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ ও অসন্তোষ প্রকাশ করে কমিটির সদস্যরা এ সিদ্ধান্ত নেন। এ সময় করোনার চিকিৎসা দিতে গিয়ে যেসব ডাক্তার, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী প্রাণ হারিয়েছেন তাদের পরিবারকে প্রণোদনা না দেয়ার বিষয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়।

কমিটির সভাপতি শেখ ফজলুল করিম সেলিমের সভাপতিত্বে ওই বৈঠকে কমিটির সদস্য স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, আ ফ ম রুহুল হক, মো. আব্দুল আজিজ, সৈয়দা জাকিয়া নুর, রাহগির আলমাহি এরশাদ (সাদ এরশাদ) এবং মো. আমিরুল আলম মিলন অংশ নেন। মন্ত্রণালয় ও জাতীয় সংসদের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত রবিবার অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে কোভিড-১৯ মহামারী শুরুর পর এ পর্যন্ত কত টাকার মাস্ক ও কিট ক্রয় করা হয়েছে, ভ্যাকসিন সংকট মোকাবিলায় কী কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে, ভ্যাকসিন জিটুজি নাকি এজেন্টের মাধ্যমে আনা হচ্ছে, কোভিড-১৯ মোকাবিলায় আইসিইউ ও অক্সিজেনের বর্তমান অবস্থা ও সম্ভাব্য সংকট থেকে উত্তরণ নিয়ে আলোচনা করা হয়।

কমিটির সদস্যরা করোনা মোকাবিলায় সংসদীয় কমিটির সদস্য এবং সমাজের ‘আইকন’ ব্যক্তি, যেমন: ইমাম, পুরোহিত, ফাদার, তারকা খেলোয়াড়দের অন্তর্ভুক্ত না করায় অসন্তোষ জানান। এ সময় তারা স্বাস্থ্যের ডিজিকে বারবার তলব করার পরও বৈঠকে উপস্থিত না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

কমিটির বেশ কয়েকজন সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, বৈঠকে উপস্থিত থাকার জন্য ডিজিকে তার পিএসের মাধ্যমে কমপক্ষে তিনবার অনুরোধ জানানো হয়েছে। তারপরও তিনি কমিটির বৈঠককে গুরুত্ব দেননি। আজ অনেক বিষয় নিয়ে আলোচনা ছিল। কমিটির সভাপতি এ নিয়ে ডিজির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য মন্ত্রণালয়কে পরামর্শ দিয়েছেন। যদি ব্যবস্থা নেয়া না হয়, তবে বিষয়টি সংসদের অধিবেশনে উত্থাপন করা হতে পারে বলে সভাপতি মিটিংয়ে জানিয়েছেন।

এদিকে বৈঠকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য ‘প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রণোদনা’ এখনো না পৌঁছানোয় অসন্তোষ প্রকাশ করা হয়। কমিটি সহজতর প্রক্রিয়ায় যাচাই-বাছাইয়ের মাধ্যমে দ্রুততম সময়ে তাদের পরিবারের কাছে প্রণোদনার অর্থ পৌঁছানোর সুপারিশ করেছে।

এ বিষয়ে কমিটির সদস্য আব্দুল আজিজ বলেন, ‘অনেকে আমাদের কাছে অভিযোগ করেছেন যে, তারা প্রণোদনা পাননি। অনেক ধরনের জটিলতা তৈরি হচ্ছে। এই মানুষগুলো মারা গেছেন। তাদের পরিবার নিঃস্ব। তারা যদি প্রণোদনা ঠিকমত না পান, পরিবার কষ্টে থাকছে। আমরা মন্ত্রণালয়কে বলেছি- দ্রুত এই প্রণোদনা যাতে সংশ্লিষ্টদের পরিবারের কাছে পৌঁছায়।’

সংসদ সচিবালয় জানায়, বৈঠকে দেশের জনগণকে টিকার আওতায় নিয়ে আসার লক্ষ্যে টিকা উৎপাদন প্রক্রিয়ায় দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করা হয়। এ সময় কমিটির পক্ষ থেকে বর্তমানে করোনা ভাইরাসের ভারতীয় ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট আরো দক্ষভাবে মোকাবিলা করার জন্য আহ্বান জানানো হয়।

এ ছাড়া বৈঠকে তথ্য বিভ্রান্তি এড়াতে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য প্রদান ও পর্যালোচনা শুধু স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে প্রদানের লক্ষ্যে অন্যান্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে সহযোগিতা করার অনুরোধ করা হয়।


poisha bazar

ads
ads