রাজধানীর সড়কে হাঁটু-কোমর পানি


  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২২ জুন ২০২১, ১৩:০০

কয়েক ঘণ্টার বৃষ্টিতে পানির নিচে তলিয়ে গেছে রাস্তা। ফুটপাতেও হাঁটু পানি। এর সঙ্গে মিশেছে নর্দমা আর ম্যানহোলের উপচানো পানির সাথে নগরের সব ময়লা। এই গা-ঘিনঘিনে পানি কোথাও হাঁটু অবধি, কোথাও বা কোমর ছুঁই ছুঁই।

পানি দেখে অনেক এলাকায় যেতেই রাজি নয় রিকশা চালকরা। সিএনজি তো রাস্তার মাঝেই বিকল হয়ে পড়ছে। আর যাঁরা বাসে উঠেছেন তারা ঘণ্টার পর ঘণ্টা যানজটে বসে ডুবে যাওয়া রাস্তা দেখেছেন।

মঙ্গলবার সকালে বৃষ্টির মধ্যে ঘর থেকে বেরিয়েই কোথাও হাঁটু, কোথাও কোমর পানির সামনে পড়তে হয় শহরের বাসিন্দাদের। পানিবদ্ধতার সাথে কর্মস্থলে ছুটতে থাকা মানুষগুলোকে ভোগান্তি পোহাতে হয় যানজটেও।

সরেজমিনে দেখা যায়, রাজধানীর শাহজাহানপুর, রাজারবাগ ও মালিবাগের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা পানিতে তলিয়ে গেছে। এছাড়া মগবাজার ওয়ারলেস গেট থেকে মধুবাগের রাস্তায়ও একই দৃশ্য। পুরান ঢাকার বিভিন্ন সড়কও তলিয়ে গেছে বৃষ্টিতে। ফলে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দুর্ভোগ পোহাতে হয় স্থানীয় বাসিন্দাদের। সামান্য বৃষ্টি হলে জলাবদ্ধতা শুরু হয় মাজেদ সরদার রোড, নাজিরা বাজার চৌরাস্তা ও সিক্কাটুলী এলাকায়। এতে অনেক দোকানপাট ও বাসা-বাড়ির নিচতলায় পানি ঢুকে যায়।

পুরান ঢাকার কয়েকজন বাসিন্দা জানান, টানা এক ঘণ্টা বৃষ্টি হলে সড়কে হাঁটু থেকে কোমর পানি জমে যায়। এই পানি সরতে এক থেকে দুদিন সময় লাগে। পানি জমলেই ড্রেনের ময়লা-আবর্জনায় পূর্ণ হয়ে যায় সড়কটি, ফলে চলাচল অযোগ্য হয়ে পড়ে। দীর্ঘদিন ধরেই এমন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে স্থানীয় বাসিন্দাদের।

এছাড়া রাস্তাঘাট তলিয়ে যাওয়ায় গণপরিবহনও অনেকটা কম ছিল। তাই ঘন্টার পর ঘন্টা রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে বিভিন্ন কর্মস্থলে যাওয়া মানুষদের। অনেকে আবার হাঁটু পানি মাড়িয়েই রাস্তা পার হচ্ছেন। অফিসগামী যাত্রীরা জানান, গণপরিবহন কম থাকায় অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে রিক্সায় যেতে হচ্ছে অফিসে। এছাড়া নিরুপায় হয়ে বাসেও গাদাগাদি করে যেতে দেখা গেছে যাত্রীদের।

রাজারবাগ পুলিশ লাইনের সামনে ও ভেতরে পানি আটকে জলবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। এছাড়া শাহজাহানপুর থেকে মগবাজার চৌরাস্তা পর্যন্ত সড়কটিতে ছিল তীব্র জানযট। স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা জানায়, মগবাজার ওয়ারলেস থেকে মগবাজার চৌরাস্তা পর্যন্ত ড্রেন সংস্কারের জন্য সড়কটি কেটে ফেলায় তীব্র জানযট লেগেই থাকে প্রতিদিন।

বর্ষার মৌসুমে রাজধানীর সড়কগুলোতে চলা কঠিন তারপরেও অনেক জায়গায় কাজের জন্য রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ি করায় ভোগান্তি যেন আরও চরমে পৌঁছেছে। এছাড়া ঢাকার সেন্ট্রাল রোড, মিরপুর রোড, কারওয়ান বাজার এলাকাতেও জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। ফলে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন নগরবাসী।

আবহাওয়া অফিস বলছে, মঙ্গলবার দিনভর রাজধানীতে বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে আকাশ মেঘলা থাকতে পারে। রাজধানীর বাইরে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সারাদিনই থেমে থেমে বৃষ্টি হতে পারে। তবে ২দিনের মধ্যে বৃষ্টির মাত্রা কমতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

আগামী ২৪ ঘণ্টায় খুলনা, বরিশাল, রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে মাঝারি ধরনের ভারী বর্ষণ হতে পারে।


poisha bazar

ads
ads