ঝর্ণা ছাড়াও ৪-৫ নারীর সাথে মামুনুলের অনৈতিক সম্পর্ক ছিল ​: পুলিশ


poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৩ মে ২০২১, ২২:০২,  আপডেট: ০৩ মে ২০২১, ২২:১০

কওমি মাদ্রাসা ভিত্তিক সংগঠন হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে গ্রেফতারের পর বেড়িয়ে আসছে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। হেফাজতের এই শীর্ষ নেতা মামুনুলের সাথে আরও চার থেকে পাঁচজন নারীর সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কের তথ্য পাওয়া গেছে। পুলিশ বলছে, ওই নারীদের সাথে ‘মানবিক বিয়ের’ সম্পর্ক গড়ে তুলে অনৈতিক কাজ করতেন মামুনুল।

সোমবার (৩ মে) ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবি) যুগ্ম-কমিশনার মাহবুবুল আলম গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানান।

গত ৩ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের একটি রিসোর্টে এক নারীসহ অবরুদ্ধ হয়েছিলেন হেফাজত নেতা মামুনুল হক। ঘটনার দিন থেকেই ওই নারীকে নিজের দ্বিতীয় স্ত্রী বলে দাবি করলেও পরে বিয়ের বিষয়ে বৈধ কোনো কাজগপত্র দেখাতে পারেননি হেফাজতের এই নেতা। পরে মোহাম্মদপুর থানায় করা এক সাধারণ ডায়েরিতে মামুনুলের তৃতীয় বিয়ের খবর পাওয়ায়। এরপর আরও একাধিক নারীর সঙ্গে মামুনুলের সম্পর্কের খবর উঠে আসে। সম্প্রতি কথিত দ্বিতীয় স্ত্রী সোনারগাঁ থানায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে মামুনুলের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা করেন।

ডিবির যুগ্ম-কমিশনার মাহবুবুল আলম বলেন, ‘মামুনুল হক যাদের সঙ্গে মানবিক বিয়ের সম্পর্ক গড়ে অনৈতিক কাজ করতেন এমন আরও চার থেকে পাঁচজন নারীর সঙ্গে সম্পর্কের তথ্য পাওয়া গেছে। তিনি একটি বিয়ের ছাড়া অন্য কোনোটির কাবিননামা দেখাতে পারেননি। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে।’

তাবলিগ জামাতকে দুই ভাগ করার নেপথ্যেও হেফাজত মন্তব্য করে ডিবির এই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘তাবলিগ জামাতকে দুই ভাগ করার নেপথ্যেও হেফাজত নেতাদের হাত ছিল। রমজানকে সামনে রেখে দেশজুড়ে বড় ধরনের নাশকতার পরিকল্পনা ছিল হেফাজতের। রমজান মাসে বদরের যুদ্ধ হয়েছিল। আরেকটি বদর যুদ্ধের ডাক দিয়েছিল হেফাজত। গত ২৬ মার্চ শুরু হওয়া সহিংসতা রমজান পর্যন্ত টেনে আনার পরিকল্পনা ছিল তাদের।’

মানবকণ্ঠ/এম






ads
ads