খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন

- ফাইল ছবি

poisha bazar

  • মানবকণ্ঠ প্রতিনিধি
  • ০৩ মার্চ ২০২১, ১৫:৫৩,  আপডেট: ০৩ মার্চ ২০২১, ১৫:৫৫

শর্তসাপেক্ষে অন্তর্বর্তীকালীন মুক্তিতে থাকা বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের মেয়াদ বাড়ানোর জন্য পরিবারের পক্ষ থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন করা হয়েছে। মহামারি করোনা পরিস্থিতিতে বেগম জিয়ার চিকিৎসা যথাযথভাবে করতে না পারায় তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে সাজা স্থগিতের মেয়াদ বৃদ্ধির মঙ্গলবার (২ মার্চ) এ আবেদন করা হয়।

বুধবার (০৩ মার্চ) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দফতর থেকে গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফারেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিশেষ আদালতের রায়ে ৫ বছরের কারাদণ্ড নিয়ে খালেদা জিয়ার কারাবাস শুরু হয়। এক বছরেরও বেশি সময় নাজিমউদ্দিন রোডের পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি জীবন অতিবাহিত হয় তাঁর। এরপর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসার জন্য তাঁকে নিয়ে আসা হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) কেবিন ব্লকের প্রিজন সেলে।

২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হওয়ার পর প্রথম এক বছরে অন্যান্য মামলায় হাজিরার জন্য বিভিন্ন সময়ে বেগম জিয়াকে ৯ বার আদালতে হাজির করা হয়। এর মধ্যে নাইকো দুর্নীতি মামলায় হাজিরার জন্য পুরান ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে অবস্থিত ঢাকার ৯ নম্বর বিশেষ জজ আদালতে ৭ বার এবং গ্যাটকো দুর্নীতি মামলায় হাজিরার জন্য বকশীবাজার আলিয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার-৩ নম্বর বিশেষ জজ আদালতে ২ বার হাজির করা হয় সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে।

কারাবাসের প্রথম বছরে বেগম জিয়াকে চিকিৎসার জন্য তিনবার বিএসএমএমইউ হাসপাতালে নেয়া হয়। এর মধ্যে ২০১৮ সালের ৭ এপ্রিল, একই বছরের ৬ অক্টোবর এবং ২০১৯ সালের ১ এপ্রিল তাঁকে হাসপাতালে নেয়া হয়। আগের দু’বার হাসপাতাল থেকে কারাগারে ফিরিয়ে নেয়া হলেও শেষবার অর্থাৎ ২০১৯ সালের ১ এপ্রিল থেকে পরবর্তী প্রায় ১১ মাস বিএসএমএমইউ হাসপাতালে কারা নজরদারিতে চিকিৎসাধীন ছিলেন খালেদা জিয়া।

এরপর ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১-এর উপধারা ১ ধারা অনুযায়ী বয়স বিবেচনায় মানবিক কারণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সরকারের নির্বাহী আদেশে দণ্ড স্থগিত করে ৬ মাসের জন্য বেগম জিয়াকে শর্তসাপেক্ষে মুক্তি দেয়া হয়। শর্ত অনুযায়ী, মুক্ত থাকাকালীন খালেদা জিয়াকে নিজ বাসায় থেকে চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে। ওই সময়ে তিনি দেশের বাইরে যেতে পারবেন না।

২ বছর ১ মাস ১৯ দিন বন্দিদশায় থাকার পর ২০২০ সালের ২৫ মার্চ বিকেলে ৬ মাসের অন্তর্বর্তীকালীন মুক্তি পেয়ে গুলশানের বাসা ‘ফিরোজা’য় যান খালেদা জিয়া। গেল বছরের ২৪ সেপ্টেম্বর মুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই শর্ত অপরিবর্তিত রেখে সরকার খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ আরও ৬ মাস বৃদ্ধি করে। শর্তসাপেক্ষে পাওয়া সেই মুক্তি নিয়ে গত ১১ মাসেরও বেশি সময় ধরে গুলশানের বাসা ‘ফিরোজা’য় থেকে চিকিৎসাধীন আছেন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী।

মানবকণ্ঠ/এমএ






ads
ads