সাংবাদিকসহ সব নাগরিককে পেনশনের আওতায় আনা হবে: পরিকল্পনা মন্ত্রী

- ছবি: সংগৃহীত

poisha bazar

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ২৭ জানুয়ারি ২০২১, ২১:৩৬

সাংবাদিকসহ দেশের সব নাগরিককে পেনশনের আওতায় নিয়ে আসার কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম.এ. মান্নান এমপি।

তিনি বলেছেন, সাংবাদিকরা সমাজের অগ্রসর মানুষ। তারা আমাদের ভুরভ্রান্তি ধরিয়ে দেন। তারা সমাজের আয়না। তাদেরকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পেনশনের আওতায় আনার পরিকল্পনা আমাদের রয়েছে। বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর জন্য পেনশন স্কিমের কাজ চলছে।

বুধবার (২৭ জানুয়ারি) বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টাস এসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) প্রয়াত সদস্যদের স্মরণে আলোচনা সভা, মরেণোত্তর সন্মাননা ও সন্তানদের বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন পরিকল্পনা মন্ত্রী।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার জনবান্ধব ও পেশা বান্ধব। তবে কোথাও কখনো কিছূ অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলেও সার্বিকভাবে সরকার পেশার পক্ষেই কাজ করে। সাংবাদিকদের কাজে ঝুঁকি শুধু নয়; ভয়ংকর ঝুঁকি রয়েছে। তাই তাদের জন্য ঝুঁকি তহবিল কিভাবে করা যায় সেটি ভেবে দেখা হবে। এছাড়া সাংবাদিকদের যে কল্যাণ তহবিল যেটা আছে সেটি কিভাবে আরও প্রসারিত করা যায়, বরাদ্দ বাড়ানো যায় সেটি দেখা হবে। এবিষয়ে আমি মাননীয় অর্থমমন্ত্রী মহোদয়ের সঙ্গেও কথা বলবো।

ঢাকা রিপোর্টাস ইউনিটি (ডিআরইউ) নসরুল হামিদ মিলনাযতনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ক্র্যাবের সভাপতি মিজান মালিক। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন দৈনিক যুগান্তর সম্পাদক সাইফুল আলম, কুড়িগ্রাম-২ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য পনির উদ্দিন আহমেদ এমপি ও ডিআরইউ সভাপতি মুরসালিন নোমানী।

আরও বক্তব্য রাখেন, ক্র্যাবের সাবেক সভাপতি আবুল খায়ের ও আবুল হোসেন, ক্র্যাবের সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন আরিফ, ডিআরইউ এর সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান খান প্রমুখ।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে যুগান্তর সম্পাদক সাইফুল আলম বলেন, আমরা বলি একেকটি মৃত্যু পাহাড়ের চেয়ে ভারী। পিতা-মাতার কাঁধে সন্তানের লাশ এটা অত্যন্ত কঠিন কাজ। এখন কিন্তু মানুষ অনেক কিছুই মনে রাখে না। অনেকে ভাল কথা বলবো, প্রতিশ্রুতি দেন, কিন্তু মৃত্যুর পর আর মনে রাখেন না। এই অমোঘ সত্যকে মেনে নিয়েই আমাদের স্মৃতিচারণ করতে হয়। আমরা এমনই একটি জাতি যারা একসময় জাতির পিতা, ঐতিহ্য, ইতিহাস ও সমস্ত অর্জনই ভুলে যেতে বসেছিলাম। সব ধরণের অর্জন মুছে দেয়ার প্রচেষ্টা ছিল। সাংবাদিকদের মধ্যে যারা দিকপাল যেমন মানিক মিয়া, জহুর হোসেন তাদের কয়জনকে আমরা স্মরণ করি?

মানবকণ্ঠ/এসকে






ads
ads