পি কে হালদারের ‘বান্ধবী’ অবন্তিকা গ্রেফতার


poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১৩ জানুয়ারি ২০২১, ১৩:০০,  আপডেট: ১৩ জানুয়ারি ২০২১, ১৪:০৩

এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রশান্ত কুমার হালদার ওরফে পি কে হালদারের বান্ধবী অবন্তিকা বড়ালকে গ্রেফতার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। বুধবার তাকে গ্রেফতার করা হয়।

দুদকের উপ-পরিচালক মো. সালাউদ্দিনের নেতৃত্বে একটি দল ধানমন্ডি থেকে অবান্তিকা বড়ালকে গ্রেপ্তার করে দুদক কার্যালয়ে নিয়ে আসে বলে জানা যায়।

এর আগে বাংলাদেশের পলাতক আসামি প্রশান্ত কুমার হালদারের বিরুদ্ধে শুক্রবার (৮ জানুয়ারি) রেড নোটিশ জারি করে ইন্টারপোল। বাংলাদেশ পু‌লি‌শের ন্যাশনাল সেন্ট্রাল ব্যুরো (এনসিবি) অর্থাৎ ইন্টারপোলের ঢাকা শাখার অনুরোধে ইন্টারপোল এ রেড নোটিশ জারি করা হয়।

জানা যায়, গত ২৮ ডিসেম্বর অবন্তিকা বড়ালকে হাজির হতে নোটিশ দেয়া হয়েছিলো। রাজধানীর ধানমন্ডির ১০/এ সাত মসজিদ রোডে ৩৯ নম্বর বাড়ির ১২/ই ফ্ল্যাটের ঠিকানায় অবন্তিকাকে নোটিশ দেয়া হয়। এই ফ্ল্যাটটি তার নামেই কেনা।

ইতোপূর্বে দুদকের দেয়া নোটিশে উল্লেখ করা হয়, আসামি পিকে হালদারের সঙ্গে যোগসাজশে অসৎ উদ্দেশে বিভিন্ন অবৈধ ব্যবসা ও অবৈধ কর্মকান্ডের মাধ্যমে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও মানি লন্ডারিংয়ের অভিযোগ রয়েছে অবন্তিকার বিরুদ্ধে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সংস্থার উপ-পরিচালক মো.সালাহউদ্দিন এ নোটিশ পাঠান।

গত ২৮ ডিসেম্বর সকাল ১০টায় অবন্তিকাকে দুদকে হাজির হওয়ার সময় বেধে দেয়া হলেও নোটিশে তিনি সাড়া দেন নি। ব্যক্তিগত কোনো সমস্যার কারণে হাজির হতে পারেননি বা কবে হাজির হতে পারবেন-এ বিষয়েও লিখিত বা ফোনে দুদককে জানানো হয়নি। এ প্রেক্ষাপটে বিধি অনুযায়ী তাকে দ্বিতীয়বার নোটিশ করা হবে বলে জানানো হয়।

এর আগে ধানমন্ডি আবাসিক এলাকার ৬ নং রোডের পুরাতন ২১ নং ও নতুন ১৭ নং প্লটে নির্মিত ১৪ তলা বাড়ির সপ্তম তলায় ২ হাজার ৬০৩ বর্গফুটের এ-৭ নং ফ্ল্যাট এবং রূপগঞ্জে পিকে হালদারের মালিকানায় থাকা বিপুল সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ দেন ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালত।

এর আগে দুদকের কৌঁসুলি খুরশীদ আলম খান হাইকোর্টে এক ব্রিফিংয়ে জানান, পিকে হালদারের ৭০-৮০ জন বান্ধবী রয়েছে। তারার পিকে হালদারের অনিয়ম, দুর্নীতি এবং অর্থ পাচারের সঙ্গে নানাভাবে সংশ্লিষ্ট। এরপরই দুদক পিকে হালদারের বান্ধবীদের খোঁজে মাঠে নামে দুদক। ২৭১ কোটি ৯১ লাখ ৫৫ হাজার ৩৫৫ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জন ও দেড় হাজার কোটি টাকা পাচারের অভিযোগে দুদকের সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ চৌধুরী বাদী হয়ে পিকে হালদারের বিরুদ্ধে গত ৮ জানুয়ারি মামলা করেন।






ads