কয়েক বছরে দুর্নীতি কিছুটা কমেছে: দুদক চেয়ারম্যান

- ফাইল ছবি

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৮:৩৩

বিগত কয়েক বছরে দেশে দুর্নীতি কিছুটা কমেছে বলে দাবি করেছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

তিনি বলেন, দুদকের প্রতি ৮৬ শতাংশ মানুষের আস্থা দায়িত্ব আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। তাদের এই আস্থা টেকসই করতে হবে। দুদককে নিরবচ্ছিন্নভাবে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হবে।

রোববার (২৯ নভেম্বর) ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের ‘গ্লোবাল করাপশন ব্যারোমিটার এশিয়া ২০২০’ প্রতিবেদনের বিষয়ে দেয়া এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি এসব কথা বলেন।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, কঠোর আইন প্রয়োগের মাধ্যমে দুর্নীতিপরায়ণদের কাছে এই বার্তা পৌঁছাতে হবে যে, দুর্নীতি করলে আইনের মুখোমুখি হতেই হবে। কঠোর শাস্তি পেতে হবে। দেশে এমনকী বিদেশে পালিয়েও শান্তিতে থাকা যাবে না। দুদক পিছু ছাড়বে না। এক্ষেত্রে কারো ব্যক্তিগত পরিচয়, সামাজিক, পেশাগত, ধর্মীয় অন্য কোনো পরিচয়ে কাজ হবে না।

তিনি বলেন, দুর্নীতি যে শুধু সরকারি খাতে তা না। সর্বব্যাপী দুর্নীতির বিস্তৃতি রয়েছে। এতে কোনো সন্দেহ নেই। সমস্যা আছে, দুর্নীতি আছে। দুর্নীতির বিষয়ে আমরা যেমন কঠোর, সরকারের কমিটমেন্টও (প্রতিশ্রুতি) কঠোর। বিগত কয়েক বছরে দুর্নীতির মাত্রা কিছুটা কমেছে বলে আমার ব্যক্তিগত ধারণা।

ইকবাল মাহমুদ বলেন, সরকারি পরিষেবা প্রাপ্তিতে ঘুষ-দুর্নীতির প্রকোপ রয়েছে একথা আমরা কখনও অস্বীকার করি না। তবে ঘুষ-দুর্নীতি বন্ধে আমরা বহুমাত্রিক ব্যবস্থা নিয়েছি। তৃণমূল পর্যায়ে দুর্নীতি ঘটার আগেই তা প্রতিরোধে কমিশন প্রায় প্রতিদিনই অভিযান পরিচালনা করছে।

তিনি বলেন, বিগত পাঁচ বছরে ফাঁদ মামলার মাধ্যমে অসংখ্য ঘুষখোরকে ঘুষের টাকাসহ হাতে-নাতে গ্রেফতার করা হয়েছে। এদের কারো কারো বিচারিক আদালতে সাজাও হচ্ছে। গণশুনানির মাধ্যমে তৃণমূল পর্যায়ে জনগণের কণ্ঠকে উচ্চকিত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। গণশুনানির মাধ্যমে তৃণমূল পর্যায়ের অসংখ্য সমস্যার সমাধান করা হচ্ছে। সব মিলিয়ে দুর্নীতির বিরুদ্ধে একটা সমম্বিত উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

মানবকণ্ঠ/এসকে






ads