করোনা : ফেব্রুয়ারিতেই টিকা পাওয়ার আশা


poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১৯:১৭

আগামী জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারির মধ্যেই করোনার টিকা পেতে পারে বাংলাদেশ। গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ভ্যাকসিনস অ্যান্ড ইমিউনাইজেশনস-গ্যাভি এ ব্যাপারে সরবরাহের আশ্বাস দিয়েছে।

এই আন্তর্জাতিক জোট বিশ্বের নিম্ন ও মধ্য আয়ের ৯২টি দেশকে করোনার টিকা সরবরাহের উদ্যোগ নিয়েছে। তার অংশ হিসেবে বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার ২০ শতাংশের জন্য টিকা সরবরাহ করা হবে।

ব্যক্তি প্রতি টিকা দেয়া হবে দুই ডোজ করে। সেই হিসাবে বাংলাদেশ জনসংখ্যার ২০ শতাংশের জন্য গ্যাভির কাছ থেকে ৬ কোটি ৮০ লাখ ডোজ টিকা পাওয়া যাবে বলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মা, শিশু ও কৈশোর স্বাস্থ্য কর্মসূচির লাইন ডিরেক্টর ডা. মো. শামসুল হক জানিয়েছেন।

বুধবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, যারা আগে জাতীয় ভ্যাকসিন বিতরণ পরিকল্পনা জমা দেবে তারাই আগে ভ্যাকসিন পাবে। গ্যাভি যখন থেকে পরিকল্পনা জমা নেওয়া শুরু করবে, আশা করছি আমরা প্রথম দিনই আমাদের পরিকল্পনা জমা দিতে পারব।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম গণমাধ্যমকে বলেন, জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে আমরা এসব টিকা পেতে পারি। এটা একটা সম্ভাবনা। আমরা ভারতের সঙ্গে যে চুক্তি করেছি সেখান থেকে তিন কোটি ডোজ টিকা পাব।

গ্যাভির কাছ থেকে প্রতি ডোজ টিকা আনতে এক দশমিক ৬২ থেকে দুই ডলারের মতো ব্যয় হবে। ভর্তুকি দিয়ে টিকা সরবরাহ করবে তারা। অপরদিকে বেক্সিমকোর মাধ্যমে যেসব টিকা আসবে তার প্রতি ডোজের জন্য ৫ ডলার করে লাগবে বলে প্রতিষ্ঠানটির অন্যতম কর্ণধার এবং প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান জানিয়েছেন।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, টিকা পাওয়ার পর তা কোথায় সংরক্ষণ করা হবে সে বিষয়ে যেমন কাজ চলছে, তেমনি দেশে অগ্রাধিকারভিত্তিতে কাদের আগে তা প্রয়োগ করা হবে তার তালিকা তৈরি শুরু হয়েছে। এমনকি মাঠপর্যায়েও স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রস্তুত করা হচ্ছে টিকা প্রয়োগের জন্য। আগেই সরকার কোভেক্সভুক্ত হয়েছে এবং নির্দিষ্ট অঙ্কের টাকাও দিয়েছে, যেখান থেকে প্রাথমিকভাবে ২০ শতাংশ জনগোষ্ঠীর জন্য টিকা পাবে বাংলাদেশ। 

জানা গেছে, করোনার টিকা প্রস্তুত হলে তা প্রাপ্তি সাপেক্ষে সঠিক নিয়মে সংরক্ষণ, পরিবহন ও সুষ্ঠুভাবে সরবরাহের লক্ষ্যে গত ২০ অক্টোবর স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেককে উপদেষ্টা করে ২৬ সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটির একজন সদস্য বলেন, আমরা করোনা মোকাবিলায় অক্সফোর্ডের তৈরি যে টিকা পেতে চুক্তি করেছি সেটি যে নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় রাখতে হয়, তা রাখার মতো ক্যাপাসিটি আমাদের আছে। আমরা অন্যান্য টিকা সেভাবে রাখি সব সময়। তবে আমাদের আরও কিছু অতিরিক্ত যন্ত্রপাতি কেনা লাগবে, সেটি খুব কঠিন কাজ নয়। আরেকটি কথা হলো আমরা যে ৩ কোটি টিকা কিনছি তা একসঙ্গে আসবে না। আমরা প্রতি মাসে ৫০ লাখ করে ছয় মাস টিকা পাব। আর একসঙ্গে ৫০ লাখ টিকা রাখার মতো ক্যাপাসিটি আমাদের রয়েছ।

তিনি আরও বলেন, টিকা আসলে কারা আগে পাবেন ও কীভাবে পাবেন, তার জন্য ন্যাশনাল ডিপ্লোমেট প্ল্যানে প্রায়োরিটি সিলেকশন নামে একটি খাত রয়েছে। সেখানে বলা আছে, কারা আগে পাবেন এবং কীভাবে পাবেন। এ জন্য একটি ন্যাশনাল গ্রুপ তৈরি করা হয়েছে, সেই গ্রুপ নিয়ে এখন কাজ চলছে। ইতোমধ্যে এ সংক্রান্ত প্রাথমিক খসড়া তালিকা প্রস্তুত হয়েছে এবং সেটি সবাই দেখছেন। সবাই দেখে মতামত দিলে সেটি ফাইনাল ড্রাফট করে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে দাখিল করব। মন্ত্রণালয় অনুমোদন দিলে তা আমরা জানাতে পারব কারা আগে পাবেন এবং কীভাবে পাবেন।

এদিকে স্বাস্থ্য অধিদফতরের দেয়া সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, দেশে এখন পর্যন্ত ৪ লাখ ৪৭ হাজার ৩৪১ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। দেশে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ৩৮৮ জনের। আর সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩ লাখ ৬২ হাজার ৪২৮ জন।

মানবকণ্ঠ/এইচকে 






ads