থামছে না নৃশংস হত্যা-ধর্ষণ


poisha bazar

  • শাহীন করিম
  • ১৮ অক্টোবর ২০২০, ০৮:১২

বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসে মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেই। করোনা নিয়ে আতঙ্ক থাকলেও থামছে না নৃশংস হত্যাকাণ্ড, নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের মতো পৈশাচিক ঘটনা। সম্পতি ঝালকাঠির রাজাপুরে ৭ মাস বয়সী এক কন্যাশিশুর মাকে হত্যা করেছে পাষণ্ড স্বামী। মায়ের বুকের দুধের জন্য অবুঝ শিশুটি শুধুই কাঁদছে।

সাতক্ষীরার কলারোয়ার বাড়িতে ঢুকে ব্যবসায়ী শাহিনুর রহমান, তার স্ত্রী ও দুই শিশুসন্তানের গলাকেটে হত্যার পর ছয় মাস বয়সী শিশু মারিয়াকে জীবিত রেখে যায় খুনিরা। ঢাকায় বাস ভাড়া করে ডাকাতির সময় বাধা দেয়ায় হোটেল ব্যবসায়ী রবিউল ইসলামকে হত্যার পর সাভারে লাশ ফেলে দেয় বসির ডাকাত বাহিনী।

পাওনা টাকা চাওয়ায় হত্যার পর হাতিরঝিলে মিলেছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রের লাশ। নাটোরের লালপুুরে বোনের সতীনকে হত্যা করেছে ভাই। সিলেটের গোয়াইনঘাটে নিখোঁজের ধানক্ষেত থেকে শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। চলমান বৈশ্বিক মহামারী করোনা সংকটের মধ্যেও এভাবে সারাদেশে চলছে নৃশংস হত্যাকাণ্ড।

পারিবারিক সহিংসতা ও সংঘবদ্ধ অপরাধে হত্যাকাণ্ড, নির্যাতন-নিপীড়নের ঘটনা দিন দিন বাড়ছে। বিশ্বব্যাপী মহামারী করোনা ভাইরাসের সময়কে যেন পুুঁজি করেই রাজধানীসহ সারা দেশে তৎপর হয়ে উঠেছে অপরাধীরা। সিলেট এমসি কলেজে স্বামীর সামনে স্ত্রীকে গণধর্ষণ ও নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে গৃহবধূকে ধর্ষণচেষ্টা ও মধ্যযুগীয় বর্বরতা নিয়ে সারাদেশে যখন তোলপাড় এরই মধ্যেই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে একের পর এক ধর্ষণের খবর মিলছে। এমনকি কথিত বাবার বিরুদ্ধে মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগও উঠছে। ধর্ষণ-নিপীড়ন বিরোধী টানা আন্দোলন করছে একাধিক ছাত্র সংগঠন।

মানুষকে সচেতন করতে গতকাল প্রথমবারের মতো সারাদেশে ধর্ষণবিরোধী সমাবেশ করেছে পুলিশ। আলোচিত হত্যাকাণ্ড কিংবা ধর্ষণের ঘটনায় জড়িতদের দ্রুততম সময়ের মধ্যে পুলিশ গ্রেফতার করলেও থামছে না নৃশংস ঘটনা। করোনা সংকটের সুযোগে ফেসবুকে প্রতারণা, ছিনতাই, চুরি, বিদেশিদের প্রতারণা ও জালিয়াতিসহ বিভিন্ন অপরাধ বেড়ে যাওয়ার তথ্য পাওয়া যাচ্ছে।

তবে পুলিশ সদর দফতরের সূত্র জানায়, অতীতের হিসাবে দেশে প্রতি মাসে গড়ে শতাধিক হত্যাকাণ্ড ঘটে। দিনে কমপক্ষে চারটি। সে হিসাবে এখন হত্যাকাণ্ডসহ নৃশংস অপরাধ বাড়েনি। করোনাকালে অন্যান্য অপরাধের মামলা কমলেও এখন বাড়ছে। একইভাবে ধর্ষণের ঘটনা ইদানীং বেশি প্রকাশ পেলেই সংখ্যায় আগের চেয়ে বাড়েনি।

এক হিসাবে দেখা গেছে, দেশে জানুয়ারি মাসে ১৮ হাজার ছয়টি, ফেব্রুয়ারি মাসে ১৭ হাজার ৪৭২টি, মার্চে ১৭ হাজার ১৫০টি, এপ্রিলে ৯ হাজার ৯৮টি, মে মাসে ১১ হাজার ৫০০টি মামলা হয়। পারিবারিক সহিংসতার বিষয়টিতে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে বলে দাবি করেছেন সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তারা।

মানবাধিকার সংস্থাগুলোর তথ্য মতে, ধর্ষণের সঙ্গে পারিবারিক সহিংসতা, হত্যার মতো নিষ্ঠুর ঘটনা বাড়ছে। সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনায় ঘরবন্দি থাকার পর আর্থিকসহ জীবনের বিভিন্ন ধরনের হতাশা-সংকটে মানুষের হিংস্রতা বাড়ছে। নিজের ওপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে অনেকে অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে। সংঘবদ্ধ অপরাধীরাও সুযোগ নিচ্ছে।

মানবাধিকার কর্মীরা বলছেন, এই দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে কিছু মানুষের চাকরি তথা রিজিকে হাত পড়েছে। এটা আরো দীর্ঘ হলে সমাজে বেকারের সংখ্যা বাড়তে পারে। বিশেষ করে অভাবী মানুষের জমানো টাকা শেষ হয়ে যাওয়ায় তারা অস্থির হয়ে ওঠে। তারা আয়- রোজগারের জন্য আরো মরিয়া হয়ে উঠলে পরিস্থিতি খারাপ হওয়ার আশঙ্কাই বেশি। এর জন্য প্রশাসনকে বিশেষভাবে পরিকল্পনা নিতে হবে।

সিলেটের গোয়াইনঘাটে নিখোঁজের দুদিন পর ধানক্ষেত থেকে পাথরশ্রমিক রাসেল আহমদের (২০) লাশ উদ্ধার করেছিল পুলিশ। পাওনা টাকা ফেরত না দেয়ায় তাকে হত্যা করে মেহেদী হাসান নামের আরেক শ্রমিক। গতকাল এ হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন করে পুলিশ।

অন্যদিকে ঝালকাঠির রাজাপুরে হাইলাকাঠি গ্রামে শারীরিক নির্যাতনের পর ৭ মাস বয়সী এক কন্যাশিশুর মাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে তার স্বামী। বর্তমানে মায়ের বুকের দুধ না পেয়ে শিশুটি কান্নায় ভেঙে পড়েছে। ক্ষুধা নিবৃত্ত করাতে তাকে গুঁড়া দুধ খাওয়ানো হচ্ছে। বৃহস্পতিবার রাতে মিরাজ হোসেন (২০) পারিবারিক কলহের জেরে স্ত্রী আইরিন আক্তারকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে।

এদিকে নাটোরের লালপুরে বড়বোনের সংসার টিকিয়ে রাখতে দুলাভাইয়ের দ্বিতীয় স্ত্রীকে হত্যা করে ধরা পড়েছে টুটুল নামের এক ব্যক্তি। আদালতে স্বীকারোক্তি দিয়ে সে জানিয়েছে, এ ঘটনায় তার দুলাভাই আসাদুল জড়িত। সাতক্ষীরার কলারোয়ার হেলাতলা ইউনিয়নের খলসি গ্রামে মাছের ঘের ব্যবসায়ী শাহিনুর রহমান, তার স্ত্রী ও দুই শিশুসন্তানের গলাকেটে হত্যার পর খুনিরা জীবিত রেখে যায় ছয় মাস বয়সের শিশু মারিয়াকে।

বৃহস্পতিবার ভোরে ওই নৃশংস ঘটনার পর শুক্রবার শাহিনুরের ছোট ভাই রায়হানুলকে গ্রেফতারের পর পুলিশ জানায়, পারিবারিক বা জমিসংক্রান্ত বিরোধে পরিচিতরাই এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। একই দিন ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈলের ধর্মগড় ইউনিয়নের ভরনিয়া শিয়ালডাঙ্গী গ্রামে ডোবা থেকে মাসহ দুই সন্তানের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

গত মঙ্গলবার রাজধানীর হাজারীবাগের বসিলায় লাল মিয়া নামের এক ব্যক্তিকে তার ছেলেরা বাসার ভেতরে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেন। আগের স্ত্রীকে তালাক দিয়ে আরেকটি বিয়ে করতে চাওয়া এবং ফ্ল্যাটের মালিকানা নিয়ে বিরোধে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে পুলিশ জানায়।

গত সোমবার রাজধানীর হাতিরঝিল থেকে উদ্ধার করা হয় চট্টগ্রামের বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্র আজিজুল ইসলাম মেহেদীর লাশ। পাসপোর্টের নাম সংশোধনের কাজের জন্য বাল্যবন্ধু আহসান এবং পরিচিত আলাউদ্দিনকে দুই লাখ ৮০ হাজার টাকা দিয়েছিলেন তিনি। কাজ না হওয়ায় টাকা ফেরত চাওয়ায় ঘনিষ্ঠরাই তাকে ডেকে এনে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে।

সাভারে হোটেল ব্যবসায়ী রবিউল ইসলাম হত্যার রহস্য রহস্য বৃহস্পতিবার উদঘাটন করেছে পিবিআই। সংবাদ সম্মেলনে পিবিআই প্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার জানান, বাস ভাড়া করে যাত্রী বেশে ছিলেন বসির ডাকাত বাহিনী। ডাকাতিতে বাধা দেয়ায় ওই ব্যবসায়ীকে হত্যার পর তার লাশ সাভারে ফেলে ছিল দুর্বৃত্তরা।

গোয়েন্দা সূত্রতগুলো জানায়, চলমান করোনা সংকটের প্রথম দিকে সারাদেশে অপরাধ অনেকটাই কমে গিয়েছিল। গত মাস তিনেক ধরে ফের হত্যা, ধর্ষণ, চুরি-ডাকাতি ও অপহরণসহ সব ধরনের অপরাধ ফের বেড়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে একের পর এক নৃশংস হত্যাকাণ্ড ও ধর্ষণের ঘটনা ঘটেই চলেছে। কক্সবাজারে সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহা রাশেদ পুলিশের গুলিতে নিহত হন।

এ ঘটনা নিয়ে সারাদশে তোলপাড়ারের মধ্যেই কিছুদিন পরপর আরেকটি চাঞ্চল্যকর হত্যা কিংবা ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে। যদিও অধিকাংশ অপরাধে জড়িত আসামিদের গ্রেফতারে সক্ষম হয়েছে পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। করোনার শুরুতে অন্যান্য অপরাধ কমলেও বর্তমানে আবার বেড়েছে।

সম্প্রতি পুলিশ হেফাজতে টাকা আদায়ের জন্য নির্যাতনে মৃত্যুর অভিযোগেও তোলপাড় চলছে। গত শনিবার মধ্যরাতে রায়হান নামের এক যুবককে সিলেট মহানগর পুলিশের কোতোয়ালি থানার বন্দরবাজার ফাঁড়িতে আটকে রেখে নির্যাতনে মারা যান। এ ঘটনায় জড়িত এসআই আকবর পলাতক রয়েছে। এ নিয়ে চাঞ্চলের সৃষ্টি হয়েছে। এর আগে গত মাসে সিলেটে এমসি কলেজে গৃহবধূকে দলবদ্ধ ধর্ষণের পর চলতি মাসে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ঘটনা প্রকাশ পেলে ধর্ষণ-নির্যাতনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয় বিভিন্ন মহল।

করোনা সংকটের মধ্যে হঠাৎ করে পারিবারিক সহিংসতাসহ নৃশংস ঘটনা বেড়ে যাওয়া জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের পরিচালক ডা. মোহিত কামাল বলেন, হতাশা থেকে রাগ এবং ধৈর্য হারানোর ঘটনা ঘটছে এখন। এটা ব্যক্তিত্বের ওপরও নির্ভর করে। হতাশার কারণে পারিবারিক সহিংসতার ঘটনা দেখা যাচ্ছে। কারো কারো অপরাধ মনোভাব তৈরি হতে পারে। হতাশা দূর করতে মানসিক স্বাস্থ্যের ব্যায়ামগুলো করা দরকার। সামাজিক কর্মকাণ্ড এবং জীবিকা নিরাপত্তা।

তিনি বলেন, ধৈর্যচ্যুতির কারণে অল্পতেই সহিংস হয়ে উঠছে মানুষ। এখন আইন-শৃঙ্খলা ঠিক রাখতে পুলিশকে নতুন কৌশল অবলম্বন করতে হবে। কমিউনিটিকে সঙ্গে নিয়ে পরিকল্পনা করতে হবে।

জানতে চাইলে পুলিশ সদর দফতরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি-মিডিয়া) মো. সোহেল রানা বলেন, প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা হিসেবে পুলিশ বখাটে, কিশোর গ্যাং ও ইভ টিজারদের বিরুদ্ধে সারা দেশে বিভিন্ন স্থানে আইনি পদক্ষেপ নিয়েছে। আবার সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতেও নিয়মিত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। পারিবারিক সহিংসতার বিষয়টি পুলিশ সদর দফতরের নজরে আসার পরই সচেতনতা, নিরাপত্তামূলক বিভিন্ন ব্যবস্থা ও নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।

তিনি বলেন, অপরাধ আগের চেয়ে বাড়েনি। কিছু ক্ষেত্রে পারিবারিক কলহে কিছু ঘটনা ঘটছে। সাম্প্রতিক সময়ের ঘটে যাওয়া অধিকাংশ অপরাধের সঙ্গে জড়িতদের দ্রুত সময়ের মধ্যে গ্রেফতার করে আইনের মুখোমুখি করেছে পুলিশ।

 





ads