র‌্যাবের অভিযানে সাহেদের ‘গোপন ফ্ল্যাটে’ যা মিলল

- ছবি: সংগৃহীত

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১৫ জুলাই ২০২০, ১৫:০৪,  আপডেট: ১৫ জুলাই ২০২০, ১৫:১২

করোনার ভুয়া রিপোর্ট দেয়াসহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে গ্রেফতার রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. সাহেদকে নিয়ে উত্তরার একটি ফ্ল্যাটে অভিযান চালিয়েছে র‌্যাব। সেখানে থেকে এক লাখের ওপরে জাল টাকা উদ্ধার করা হয়েছে।

বুধবার (১৫ জুলাই) দুপুরে সাহেদকে নিয়ে উত্তরার ১১ নম্বর সেক্টরের ২০ নম্বর রোডের ৬২ নম্বর বাড়িতে এক ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে অভিযান চালায় র‌্যাব।

র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ বলেন, সাহেদের দেওয়া তথ্যমতে ওই গোপন বাসা থেকে বেশকিছু কাগজপত্রসহ জাল টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত জানানো হবে। অভিযান শেষ করে সাহেদকে আবারও র‌্যাব সদর দফতরে নেওয়া হয়েছে।

বাসাটিতে অভিযানের আগে সাহেদের উপস্থিতিতে দরজা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করেন র‌্যাব সদস্যরা।

র‌্যাবের আরেকজন কর্মকর্তা বলেন, সাহেদের ওই বাসা থেকে এক লাখের মতো জাল টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। সেখানে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উপস্থিত ছিলেন।

বাড়ির মালিক সাংবাদিকদের বলেন, প্রায় ১৫ মিনিট লাগে দরজা ভাঙতে। দুই মাস আগে বাসাটি ভাড়া নেন সাহেদ। গত মাসের ভাড়াও দেননি তিনি। বাসায় রাতের বেলায় আসতেন সাহেদ।

এর আগে বুধবার ভোরে সাড়ে পাঁচটায় সাতক্ষীরার দেবহাটা সীমান্ত এলাকা থেকে সাহেদকে বোরকা পরিহিত অবস্থায় অবৈধ অস্ত্রসহ গ্রেফতার করে র‌্যাব।

গত ৬ জুলাই করোনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট দেয়ার অভিযোগে র‍্যাব উত্তরার রিজেন্ট হাসপাতালে অভিযান চালায়। এরপর রিজেন্ট হাসপাতালের উত্তরা ও মিরপুর শাখা সিলগালা করে দেয়া হয়। ৭ জুলাই করোনা পরীক্ষা না করেই সার্টিফিকেট প্রদানসহ বিভিন্ন অভিযোগে রিজেন্ট হাসপাতালের বিরুদ্ধে উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলা করে র‌্যাব।

মামলায় রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদ করিমকে প্রধান আসামি করে ১৭ জনের নাম উল্লেখ করা হয় এজাহারে। এরপর থেকেই পালিয়ে ছিলেন সাহেদ। তাকে গ্রেফতারে দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায় র‌্যাব। অবশেষে সাতক্ষীরা থেকে তাকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় তারা।

মানবকণ্ঠ/এসকে





ads






Loading...