মোহাম্মদ নাসিমের শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন

মোহাম্মদ নাসিমের শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন
- প্রতিবেদক

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৬ জুন ২০২০, ২১:১৫

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন। তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে (আইসিইউ) ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছে। শনিবার রাতে গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন মোহাম্মদ নাসিমের সাবেক এপিএস মোশাররফ হোসেন।

তিনি জানান, উনার অবস্থা সংকটাপন্ন। বর্তমানে আইসিইউতে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছে। ৪৮ ঘণ্টা পার হলে চিকিৎসকরা পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নাসিম গত ছয় দিন ধরে রাজধানীর শ্যামলীর বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এর মধ্যে শুক্রবার সকালে তার ‘ব্রেইন স্ট্রোক’ হওয়ার পর সেখানেই মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচার করা হয়।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিউরো সার্জন বিভাগের প্রধান প্রফেসর ডা. রাজিউল হকের নেতৃত্বে ব্রেন সার্জারি করা হয় সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের।

তিনি বলেন, 'সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের ব্লাড প্রেশার (বিপি) আনস্টেবল। বিপি মেইনটেইন করতে ড্রাগসের প্রয়োজন হচ্ছে। ওনার শারিরীক অবস্থা এখন সংকটাপন্ন।'

ডা. রাজিউল হক বলেন, 'মোহাম্মদ নাসিমকে ক্রিটিক্যাল অবস্থায় অপারেশন করা হয় একটা চান্স নেয়ার জন্য। অপারেশনের পর থেকে তিনি ভেন্টিলেশনে আছেন। তাকে এখন ঘুমের ওষুধ টোটালি ডিপ করে দেয়া আছে। ওষুধ আস্তে আস্তে কম করে দিয়ে আগামীকাল তার জ্ঞান ফেরানোর চেষ্টা করা হতে পারে। তবে বিপি আনস্টেবল থাকলে সে চেষ্টা করা হবে না। বিপি আনস্টেবল থাকাটাই শঙ্কার।

উল্লেখ্য, গত পহেলা জুন প্রথম সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের দেহে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়ে। এরপর তাকে রাজধানীর শ্যামলীতে অবস্থিত বাংলাদেশ বিশেষায়িত হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভর্তির সময় তিনি শারীরিকভাবে অনেকটা দুর্বল ছিলেন।

শুক্রবার নাসিমের ছেলে ও সাবেক সাংসদ তানভীর শাকিল জয় গণমাধ্যমকে জানান, 'করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর বৃহস্পতিবার রাত পর্যন্তও বাবার শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি লক্ষ্য করা যাচ্ছিল। কিন্তু শুক্রবার সকালেই হঠাৎ করে তার ব্রেইন হেমোরেজ (মস্তিকে রক্ষক্ষরণ) হলে তাক্ষণিকভাবে তার সার্জারি করা হয়। সবাই আমার বাবার জন্য দোয়া করবেন, যাতে তিনি তার ভক্ত ও অনুসারীদের মাঝে সুস্থ হয়ে ফিরতে পারেন।'

মানবকণ্ঠ/এআইএস




Loading...
ads






Loading...