ভারত থেকে আরও ১২৮ বাংলাদেশি ফিরলেন

ভারত থেকে আরও ১২৮ বাংলাদেশি ফিরলেন
ভারত থেকে আরও ১২৮ বাংলাদেশি ফিরলেন - ছবি: সংগৃহীত

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৫ মে ২০২০, ১৯:১১

করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) লকডাউনে ভারতে আটকা পড়া আরও ১২৮জন বাংলাদেশিকে ফিরিয়ে আনা হয়েছে।

মঙ্গলবার (৫ মে) বিকেলে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি বিশেষ ফ্লাইটে তারা দিল্লি থেকে ঢাকার হযরত শাহজালার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান। এ পর্যন্ত দুই সহস্রাধিক আটকে পড়া বাংলাদেশিকে আকাশপথে দেশে আনা হয়েছে।

মঙ্গলবার দিল্লিতে অবস্থিত বাংলাদেশ হাইকমিশন থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, আকাশপথের পাশাপাশি সড়কপথেও প্রত্যাবর্তন প্রক্রিয়া চালু রয়েছে। লকডাউন শুরু হওয়ার পর বিভিন্ন স্থল সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশ মিশনসমূহের সহায়তায় দেশে ফেরা যাত্রীর সংখ্যা ৫০০। মঙ্গলবার দিল্লি থেকে সড়ক পথে ২৬ জন বাংলাদেশি বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে দেশে ফিরেছেন। এ ছাড়া দিল্লি, হরিয়ানা, উত্তর প্রদেশ ও তামিলনাড়ুসহ বিভিন্ন দূরবর্তী রাজ্য থেকে আগামী কয়েক দিনে সড়ক পথে শতাধিক বাংলাদেশি দেশে ফেরার অনুমোদন প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।

সড়কপথে দেশে ফিরতে ইচ্ছুক যাত্রীদের উদ্দেশ্যে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, তাদেরকে অবিলম্বে হাইকমিশনের বিজ্ঞপ্তি-৯ (৩০ এপ্রিল ২০২০) অনুযায়ী প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করে ভারতীয় কর্তৃপক্ষের অনুমোদনের জন্য হাইকমিশনে যোগাযোগ করতে অনুরোধ করা যাচ্ছে। সড়কপথে দীর্ঘ ভ্রমণের ক্ষেত্রে রোগীদের শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় রেখে চিকিৎসকের অনুমতি গ্রহণ করতে হবে। বিশেষ ট্রেনযোগে রেলপথে ভ্রমণের ব্যবস্থার জন্য ভারতের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। তবে বিষয়টি পদ্ধতিগত কারণে সময়সাপেক্ষ হবে বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন।

এতে আরও বলা হয়েছে, আকাশপথে প্রত্যাবর্তনের তৃতীয় পর্যায়ের প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। কলকাতা, মুম্বাই, দিল্লি, ও চেন্নাই ছাড়াও বেঙ্গালুর থেকে বিশেষ ফ্লাইট পরিচালনার জন্য হাইকমিশনের প্রস্তাব দুই দেশের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হয়েছে। পর্যাপ্ত যাত্রী সংখ্যা ও অনুমোদন প্রাপ্তি সাপেক্ষে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটগুলো পরিচালনার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে । কলকাতা ১০ মে (রোববার), মুম্বাই ১২ মে (মঙ্গলবার), বেঙ্গালুরু ১৩ মে (বুধবার), ১৫মে (শুক্রবার) দিল্লী ১৪ মে বৃহস্পতিবার। তবে চূড়ান্ত তারিখ সামান্য পরিবর্তিত হতে পারে।

এছাড়াও পর্যাপ্ত যাত্রী সংখ্যা ও অনুমোদন প্রাপ্তি সাপেক্ষে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স আগামী ০৮-১০ মে ও ১৩ ১৪ মে তারিখসমূহে চেন্নাই থেকে মোট পাঁচটি বিশেষ ফ্লাইট পরিচালনা করবে। সড়ক ও আকাশপথে ভ্রমণেচ্ছু প্রত্যেকের অবশ্যই “কোভিড- ১৯ মুক্ত” বা “কোভিড -১৯ উপসর্গমুক্ত সনদ থাকতে হবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

মানবকণ্ঠ/এসকে




Loading...
ads






Loading...