৪৬শ' করোনা আইসোলেশন বেড হচ্ছে ঢাকায় : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক
স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক - ফাইল ছবি।

poisha bazar

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ০৯ এপ্রিল ২০২০, ১৮:৩৮,  আপডেট: ০৯ এপ্রিল ২০২০, ১৮:৫৯

মহামারি করোনাভাইরাস মোকাবেলায় রাজধানী ঢাকায় দ্রুতই অন্তত ৪৬শ' আইসোলেশন বেড হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক। আজ বৃহস্পতিবার (৯ এপ্রিল) দুপুরে নিজ বাসা থেকে ভিডিও বার্তায় তিনি এ তথ্য জানান।

মন্ত্রী বলেছেন, করোনার প্রকোপ ঠেকাতে রাজধানীর বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারে অন্তত দুই হাজার আইসোলেশন বেড করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আগামী ১৫-২০ দিনের মধ্যেই সব আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়ে কাজ শুরু হবে। পাশাপাশি রাজধানীর নর্থ সিটি সেন্টারকে ১৪'শ বেড এবং উত্তরার দিয়া বাড়ির পূর্বনির্ধারিত ৪টি বিল্ডিংয়ে আরও ১২'শ বেডের আইসোলেশন সেন্টার করার কথাও বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

আইসিইউ ও ভেন্টিলেটর এক জিনিস নয় এবং এ ব্যাপারে মানুষের মনে কিছুটা বিভ্রান্তি রয়েছে উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরো বলেন, দেশে সাড়ে ৫'শ-এর উপড়ে ভেন্টিলেটর রয়েছে।পাশাপাশি আরো ৩৮০ টি নতুন ভেন্টিলেটর আনা হচ্ছে। আইসিইউ আর ভেণ্টিলেটর এক জিনিস নয়। একটি আইসিইউ ইউনিটে একাধিক ভেন্টিলেটর থাকতে পারে।

উল্লেখ্য, দেশে বর্তমানে সরকারি ও বেসরকারিভাবে মোট ১২৫৭ টি আইসিইউ ইউনিট রয়েছে। যার মধ্যে সরকারি ৫২০ টি এবং প্রাইভেট ৭৩৭ টি। এগুলোর মধ্যে ঢাকায় আছে ৯২৬ টি এবং ঢাকার বাইরে রয়েছে ৩৪১ টি। এগুলোর মধ্যে শুধু করোনার জন্য ডেডিকেটেড আইসিইউ প্রস্তুত রাখা আছে ১০০-১৫০ টি। তবে করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি পেলে অন্যান্য আইসিইউ করোনা মোকাবেলায় সংযুক্ত করা যাবে।

অন্যদিকে দেশে জেলা ও উপজেলা সরকারি হাসপাতালসমূহের মোট ৬৫৪ টি কেন্দ্রে বর্তমানে মোট শয্যাসংখ্যা রয়েছে ৫১ হাজার ৩১৬ টি। এবং প্রাইভেট হাসপাতালের মোট ৫,০৫৫ টি কেন্দ্রে ৯০ হাজার ৫৮৭ টি শয্যা রয়েছে। এদের মধ্য থেকে দেশব্যাপী ৬৬৯৩ টি বেড শুধু করোনার জন্যই আলাদাভাবে প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

অনলাইন ব্রিফিংকালে বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ এসোসিয়েশনের সভাপতি এম এ মুহিত খান জানান, তাদের এসোসিয়েশনের আওতায় থাকা ৬৯ টি হাসপাতাল থেকে প্রয়োজন হলে যেকোন হাসপাতাল সরকার চাইলে করোনার জন্য ডেডিকেটেড করা হবে। এখন থেকে এই এসোসিয়েশনের আওতাধীন হাসপাতালগুলো ২৪ ঘন্টা খোলা থাকবে ও দেশের মানুষের সেবা প্রদান করবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অনলাইন ভিডিও প্রেস ব্রিফিংকালে আরো উপস্থিত ছিলেন ত্রাণ ও দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী ডা এনামুর রহমান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর আবুল কালাম আজাদ, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক প্রফেসর সানিয়া তাহমিনা ও আইইডিসিয়ার এর পরিচালক অধ্যাপক মীরজাদি সাব্রিনা ফ্লোরা।

মানবকণ্ঠ/এইচকে




Loading...
ads






Loading...