সুযোগ বেড়েছে করোনা পরীক্ষার 

করোনা পরীক্ষা
করোনা পরীক্ষা - ছবি: সংগৃহীত

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৩ এপ্রিল ২০২০, ২৩:৫৩

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে বিশ্বব্যাপী প্রতিদিনই ঝরে পড়ছে অসংখ্য মানুষের প্রাণ। বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে এ মহামারী। বাংলাদেশও মুক্ত নয় করোনার থাবা থেকে। ইতোমধ্যে দেশে ৬২ জন করোনা রোগী শনাক্ত করা হয়েছে আর প্রাণ হারিয়েছেন ৬ জন।

বাংলাদেশে প্রথম দিকে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটে (আইইডিসিআর) যোগাযোগ করত। বিষয়টি বিবেচনা করে প্রতিদিন গড়ে আটশ থেকে এক হাজার নমুনা পরীক্ষার চিন্তাভাবনা করছে সরকার। ইতোমধ্যে ১৪টি প্রতিষ্ঠানের ল্যাবরেটরি করোনা রোগী শনাক্তকরণ পরীক্ষার জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে।

এর মধ্যে রাজধানী ঢাকায় সাতটি। আরো ১৪টি ল্যাবরেটরি দ্রুততম সময়ে প্রস্তুত করার কাজ চলছে। এরই অংশ হিসেবে গত ২৪ ঘণ্টায় আইইডিসিআরে ১২৬টি ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে ৩৮৭টি নমুনাসহ মোট ৫১৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে ৫টি নমুনায় করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকার বাইরের ৩টি নমুনাতে করোনা শনাক্ত হয়। এদিকে চট্টগ্রামে আরো একজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।

জানা গেছে, প্রতিদিন লাখো মানুষ করোনার লক্ষণ-উপসর্গ নিয়ে পরামর্শ পেতে স্বাস্থ্য অধিদফতর, আইইডিসিআর, বিভিন্ন হাসপাতাল ও চিকিৎসক সংগঠনরের দেয়া ফোন নম্বরে ফোন করছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় শুধু স্বাস্থ্য অধিদফতরের ১৬২৬৩ ও ৩৩৩ নম্বরে এই ধরনের ৬৬,৬১০ জন ফোন করেছেন।

আইইডিসিআরে ফোন করেছেন ২৮৪৫ জনসহ মোট ৬৯৩১০ জন। বিভিন্ন হাসপাতাল ও চিকিৎসক সংগঠনের নম্বরে ফোন করে সেবা গ্রহণকারীদের পরিসংখ্যান তো অজানাই রয়েছে। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৪১ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। আইইডিসিআরে যারা ফোন করেন তারা ভাইরাসটির লক্ষণ-উপসর্গ দেখা পরীক্ষা করার সহায়তা চেয়ে ফোন করে থাকেন। কিন্তু প্রতিদিন যত মানুষ ফোন করছেন, সে পরিমাণ পরীক্ষা করা হচ্ছে না।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বারবারই বলছে, করোনা ভাইরাস মোকাবিলার মূল পদক্ষেপ হচ্ছে- পরীক্ষা করে যাদের সংক্রমণ শনাক্ত হয় তাদের আইসোলেশনে রাখা। সেই সঙ্গে সংক্রমিতরা যাদের সংস্পর্শে এসেছেন, তাদের খুঁজে বের করে কোয়ারেন্টাইনে রাখা। কিন্তু করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের শনাক্ত করতে অনেক দেশই যথেষ্ট পরীক্ষা করছে না।

তাই সব দেশের প্রতি আমাদের বলার বিষয় হচ্ছে- পরীক্ষা, পরীক্ষা, পরীক্ষা। ডব্লিউএইচও কোনো দেশের নাম উল্লেখ করেনি। তবে জনঘনত্ব ও মানুষের জীবনযাপনের ধরন বিবেচনায় নিয়ে বাংলাদেশকে উচ্চঝুঁকির দেশ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। কিন্তু প্রথম থেকে বাংলাদেশে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে সংক্রমিতদের শনাক্তকরণে পরীক্ষা একেবারেই কম হচ্ছে।

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বা স্বাস্থ্য অধিদফতর করোনা ভাইরাসের রোগী শনাক্তের ক্ষেত্রে কী ধরনের পলিসি নিয়ে কাজ করছে তা বোধগম্য নয়। তারা কী এই ভাইরাস সংক্রমণ নিয়ে খামখেয়ালি করছেন, নাকি বিষয়টি তারা বুঝতে পারছেন না। যদি সময়ের কাজ সময়ে না করে তা হলে সামনে বিপদ আছে, যার মাসুল দিতে হবে হাজার হাজার মানুষের প্রাণের বিনিময়ে।

এখনো সময় আছে করোনার পরীক্ষার পরিমাণ বাড়িয়ে আগে নিশ্চিত হওয়া যে আমাদের কমিউনিটিতে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের অবস্থা কী। পরীক্ষা যদি দেখা যায় রোগী কম তা হলে সেটি আমাদের জন্য ভালো। যাদের সংক্রমণ ধরা পড়বে তাদর আইসোলেনে নিলে সংক্রমণের ঝুঁকি কমে আসবে। তারা যদি এটি মনে করে থাকেন রোগী কম আছে, তা হলে এই বিষয়ে তারা অবহেলা করছেন কিংবা বিষয়টি বুঝতে পারছেন না।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের সাবেক পরিচালক (রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা) অধ্যাপক ডা. বেনজির আহমেদ বলেন, প্রধানমন্ত্রীও বলেছেন আমাদের পরীক্ষা বেশি করতে হবে। যত সম্ভব বেশি। উনি বলে দিয়েছেন প্রতিটি উপজেলা থেকে ন্যূনতম দুইটি পরীক্ষা করতে হবে। উনি আসলে এটির প্রয়োজন অনুভব করেই বলেছেন। বিভিন্ন উপজেলায় এই ধরনের রোগী আছে কি না।

শুক্রবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত অনলাইন ব্রিফিংয়ে যুক্ত হয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, ‘করোনার পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য কিটের সঙ্কট নেই। রাজধানীসহ সারা দেশে নমুনা পরীক্ষার ল্যাবরেটরির সংখ্যা বৃদ্ধি করা হয়েছে।’

করোনা আক্রান্ত সন্দেহভাজন রোগীদের স্বপ্রণোদিত হয়ে বেশি বেশি করে নমুনা পরীক্ষা করতে সংশ্লিষ্ট ল্যাবরেটরিতে যোগাযোগের আহ্বান জানান মন্ত্রী। প্রয়োজন ছাড়া বাসাবাড়ি থেকে বের না হতে দেশবাসীকে অনুরোধ জানান তিনি।

ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের হুবেইপ্রদেশের উহান শহরে এ ভাইরাসটি প্রথমে দেখা যায়। পরে ভাইরাসটি মহামারী আকারে বিশ্বের ১৯৯ দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে। বর্তমানে এ ভাইরাসটিতে সবচেয়ে বেশি সংক্রমিত দেশ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র সবার ওপরে রয়েছে। আর মৃত্যুর দিক দিয়ে ইতালি এগিয়ে রয়েছে। এর পরেই অবস্থান স্পেনের।

 




Loading...
ads






Loading...