বিদেশফেরতদের সংস্পর্শ নয়, উপসর্গ থাকলেই করা যাবে করোনার টেস্ট

নাগেশ্বরীতে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রীর মুখ চেপে ধরে ধর্ষণ
ছবি - সংগৃহীত।

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০২ এপ্রিল ২০২০, ১৬:৪৫,  আপডেট: ০২ এপ্রিল ২০২০, ১৭:০০

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে ফ্রিতে করোনাভাইরাস টেস্ট করানো যাচ্ছে। এ টেস্টের ফল জানতে ঢামেকে সময় লাগছে মাত্র ৩ ঘন্টা। আর বিএসএমএমইউয়ে ৪ ঘণ্টা। গতকাল বুধবার (১ এপ্রিল) থেকে করোনাভাইরাসের টেস্ট করানো যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একেএম নাসিরউদ্দিন। কিন্তু ফ্রিতে কারা করাতে পারছেন করোনা টেস্ট?

গুঞ্জন উঠেছে বিদেশফেরতের সংস্পর্শে যারা গিয়েছেন তারা এই টেস্ট করাতে পারবে। কিন্তু বিদেশফেরতদের সংস্পর্শ নয়, করোনার উপসর্গ থাকলেই ফ্রিতে করানো যাবে টেস্ট। ঢামেক পরিচালক বলেন, যাঁরা ঢামেকে বহির্বিভাগে সেবা নিতে আসবেন কিংবা যাঁরা হাসপাতালের অন্তর্বিভাগে ভর্তি রয়েছেন, তাঁদের মধ্যে কোনো রোগীর ব্যাপারে চিকিৎসক যদি সন্দেহ করেন, তিনি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত, তখন চিকিৎসকের সুপারিশ অনুযায়ী ভাইরোলোজি বিভাগ ওই রোগীর নমুনা সংগ্রহ করবে এবং করোনাভাইরাসের পরীক্ষা করা হবে।

এ কে এম নাসির উদ্দিন বলেন, ‘বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজে বিভিন্ন রোগী আসে। তাদের একটা বড় অংশের না হলেও আমরা লক্ষ করছি, বেশ কিছু রোগীর বিভিন্ন রকমের লক্ষণ এসে যায়। অন্য রোগ নিয়ে এসেছে, সেগুলো আমাদের এক্সক্লুড করার দরকার হয়। সেটা করার ক্ষেত্রে এই ল্যাবরেটরি আমাদের অনেক সাহায্য করবে।’

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক বলেন, ‘সম্পূর্ণ বিনা মূল্যে করোনাভাইরাস শনাক্তের পরীক্ষার রিপোর্ট জানা যাবে। এই পরীক্ষা করতে রোগীর একটি টাকাও লাগবে না। যদিও পরীক্ষাগুলো খুবই ব্যয়বহুল। সরকারের নির্দেশে বিনা মূল্যে করা হবে।’

তিনি বলেন, আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য কোনো জরুরি নম্বর নেই। স্বশরীরে হাসপাতালে এসে টেস্ট করাতে হবে।

এ পর্যন্ত ঢামেকে করোনা আক্রান্ত কোনো রোগী শনাক্ত হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রতিদিনই রোগী আসছে। যাদের করোনার উপসর্গ আছে, তাদের পরীক্ষা করা হচ্ছে। এ পরীক্ষায় কোনো রোগীর যদি করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে, তাকে ঢাকা মেডিকেল ছাড়া সরকারের বরাদ্দ করা হাসপাতালগুলোতে করোনাভাইরাসের চিকিৎসার জন্য পাঠানো হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ে গত মাসের ৮ তারিখে। এ পর্যন্ত ৫৬ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২৬ জন। মারা গেছেন ৬ জন।

মানবকণ্ঠ/এইচকে 




Loading...
ads






Loading...