ভোটকেন্দ্রেও করোনার প্রভাব; ভোটারদের উপস্থিতি কম ছিল

ভোটকেন্দ্রেও করোনার প্রভাব
ভোটকেন্দ্রেও করোনার প্রভাব - ছবি: সংগৃহীত

poisha bazar

  • সাইফুল ইসলাম
  • ২২ মার্চ ২০২০, ০১:১০

করোনা ভাইরাসের মধ্যে দিয়েই অনুষ্ঠিত হয়ে গেল ঢাকা-১০ আসনের উপনির্বাচন। ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়। সকাল থেকেই ভোটকেন্দ্রে ভোটাদের উপস্থিতি কম ছিল। সিটি কলেজ ও ঢাকা কলেজসহ একাধিক কেন্দ্রেই ভোটারদের অনুপস্থিতির একই অবস্থা দেখা যায়।

ভোটারদের উপস্থিতি নাই বললেও চলে। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত দেশের বড় দুই দলের দলীয় নেতাকর্মীদের ছাড়া ভোটারদের দেখা যায়নি। প্রার্থীদের আশানুরূপ ভোটার দেখা যায়নি। সকাল ৯টা ১০ মিনিটে ঢাকা সিটি কলেজ কেন্দ্রে ভোট দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ পুতুল, ঢাকা-১০ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন।

প্রার্থী মহিউদ্দিন প্রায় ঘণ্টা দুয়েক চেষ্টা করে প্রথমবার ভোট দিতে না পারলেও দ্বিতীয়বার তিনি বিকেল সাড়ে তিনটায় ভোট দেন। এদিকে ঢাকা-১০ আসনের উপনির্বাচনে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন। তিনি প্রায় ১৫ হাজার ৯শ’ ৯৫টি ভোট পেয়েছেন। তার নিকটস্থ প্রতিদ্বন্দ্বী ধানের র্শীষ প্রাথী শেখ রবিউল আলম রবি পরাজিত হয়েছেন। তিনি ৮শ ১৭ ভোট পেয়েছেন। এই নির্বাচনে মোট ভোট পড়েছে ৫.২৮ শতাংশ। তবে ভোট কেন্দ্রের পরিস্থিতি দেখে ফলাফল ঘোষণার আগেই গতকাল ভোট প্রত্যাখান করেছেন বিএনপির (ধানের শীর্ষ) প্রার্থী শেখ রবিউল আলম।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, ঢাকা-১০ আসনের উপ-নির্বাচন উপলক্ষে নির্বাচন কমিশন (ইসি) গতকাল শনিবার সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ করেন। করোনাভাইরাসে আতঙ্কে ভোটারদের মধ্যে অনেক ভয় কাজ করছিল। অনেকটাই চিন্তিত ছিলেন এই আসন থেকে নির্বাচনে অংশ নেয়া ৬ প্রার্থী। প্রার্থীরা যা আশঙ্কা করেছেন সেটাই দেখা গেছে ভোট কেন্দ্রে।

নির্বাচনে প্রভাব পড়েছে করোনা ভাইরাসের। যার জন্য প্রতিটি ভোট কেন্দ্রই ছিল প্রায় শূন্য। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত তেমন ভোটার দেখা যায়নি চোখে পড়ার মতো। সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হলেও করোনা আতংকে ভোটার উপস্থিত অন্যান্য ভোটের তুলনায় অনেক কম ছিল। যদিও নির্বাচন কমিশন থেকে হ্যান্ড স্যানিটাইজেশনের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা ছিল প্রতিটি কেন্দ্রে।

অন্যদিকে সকাল ৯টা ৫০ মিনিটে লেক সার্কাস উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় কেন্দ্রে আসেন আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী। এক ঘণ্টা ১৫ মিনিট অপেক্ষা করেও ভোট দিতে পারেননি মো. শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন। অপেক্ষা করতে করতে পরে ১১টা ৫ মিনিটে তিনি ভোটকেন্দ্র থেকে চলে যান। প্রথমে ছবিযুক্ত তালিকা দেখে তার পরিচয় শনাক্ত করা হয়।

কিন্তু ফিঙ্গারপ্রিন্ট না মেলায় জটিলতা সৃষ্টি হয়। পরে বাইরে রাখা প্রার্থীর গাড়ি থেকে ভোটার আইডি কার্ড নিয়ে আসা হয়। এতেও কাজ হয়নি। মেশিন অফ করে চালু করা হয়। নির্বাচনী কর্মকর্তারা তার কাছে থাকা অন্য একটি কার্ড দিয়েও চেষ্টা করেন। টিস্যু দিয়ে আঙ্গুল মুছে ম্যাচ করানোর চেষ্টা করা হয়। তাতেও কাজ হয়নি। অন্য আরেকটি মেশিনেও চেষ্টা করা হয়, কিন্তু কাজ হয়নি।

প্রিজাইডিং কর্মকর্তা আহসানুল হক বলেন, উনি সম্প্রতি উত্তরা থেকে মাইগ্রেট হয়ে ধানমণ্ডিতে এসেছেন। এসডি কার্ডে উনার তথ্য আপডেট হয়নি। ছবিযুক্ত হার্ড কপিতে উনার নাম আছে। কিন্তু ফিঙ্গারপ্রিন্টে আসছে না। প্রথমবারে ভোট দিতে না পারার বিষয়ে প্রার্থী বলেন, টেকনোলজিতে এমন সমস্যা হয়। গতবার জাতীয় নির্বাচনে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের ক্ষেত্রেও এমনটি হয়েছিল। এটা হতেই পারে।

দুপুর পর্যন্ত ভোট পড়েছে ৫ শতাংশ: ঢাকা-১০ আসনে উপনির্বাচনে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত ৫ শতাংশ ভোট পড়েছে। সকাল ৯টায় ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ার পর দুপুর আড়াই পর্যন্ত প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে এ তথ্য জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সচিব মো. আলমগীর। বিকেল সাড়ে ৪টায় প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য তুলে ধরেন তিনি। করোনা ভাইরাসের কারণে সারা বিশ্বের পাশাপাশি বাংলাদেশেও জনসমাগমে কড়াকড়ি থাকলেও শনিবার এ তিন আসনে উপনির্বাচন সম্পন্ন করে নির্বাচন কমিশন। সকাল থেকেই ঢাকা-১০ আসনের বেশিরভাগ ভোটকেন্দ্রে ভোটার শূন্যতা দেখা গেছে। এক্ষেত্রে করোনা ভাইরাস ভীতিই ভোটারদের ভোটবিমুখ করেছে বলে মত দিয়েছেন অনেকে।

ফল প্রত্যাখ্যান ও নতুন ভোটের দাবি বিএনপি প্রার্থীর: ঢাকা-১০ উপনির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে নতুন ভোট ও নির্বাচন ব্যবস্থার সংস্কার দাবি করেছেন বিএনপি প্রার্থী শেখ রবিউল আলম রবি। ভোটগ্রহণ শেষে রাজধানীর বাংলামোটরে নিজের প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন।

রবিউল আলম রবি বলেন, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের আধিপত্য বিস্তার, দখল ও কেন্দ্রে ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টির কারণে মানুষ ভোট বিমুখ হয়েছে। যে নির্বাচনে মানুষ ভোট দিতে পারল না, সে নির্বাচন আমার দল বিএনপি এবং আমি বর্জন করছি। ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে নতুন নির্বাচনের দাবি জানাচ্ছি। যে নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারল না, সেখানে আমাকে বিজয়ী করা হবে একটা নাটক। জনগণ যেখানে ভোট দেয়ার সুযোগ পায়নি, আমি সে ফলাফলও প্রত্যাখ্যান করব।

নির্বাচনে ৩৬টি কেন্দ্র পরিদর্শনের অভিজ্ঞতার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, আমি বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত কেন্দ্রগুলো ঘুরেছি। কোনো কোনো কেন্দ্রে ১০ থেকে ১৩ ভোট কাস্টিং হতে দেখেছি। ভোটার উপস্থিতি ভয়ঙ্কর রকমের খারাপ। কোনো কোনো কেন্দ্রের আশপাশে ৪ থেকে ৫শ’ লোক দেখেছি। তারা যদি ভোটার হতো তাহলে ভোট দিত। খোঁজ নিয়ে জেনেছি তাদের সবাই বহিরাগত। আওয়ামী লীগ প্রার্থী তাদের বাহির থেকে কেন্দ্র দখল করতে এনেছে- বলেন রবিউল আলম রবি।

ঢাকা-১০ আসনের উপনির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ছয়জন প্রার্থী। আসনটিতে উপনির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দের পর আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. শফিউল ইসলাম ‘নৌকা’, বিএনপি প্রার্থী শেখ রবিউল আলম ‘ধানের শীষ’, জাতীয় পার্টির (জাপা) মো. শাহজাহান ‘লাঙ্গল’, বাংলাদেশ কংগ্রেসের মিজানুর রহমান চৌধুরী ‘ডাব’, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের নবাব খাজা আলী হাসান আসকারী ‘হারিকেন’ ও প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দলের (পিডিপি) আব্দুর রহীম ‘বাঘ’ প্রতীক নিয়ে ভোটের মাঠে প্রচার চালিয়েছেন। আসনটিতে মোট ভোটার ৩ লাখ ১২ হাজার ২৮১ জন। নির্বাচনে ১১৭টি ভোটকেন্দ্রের ৭৭৬টি ভোটকক্ষে ভোটগ্রহণ করা হয়। ঢাকা-১০ আসনটি ধানমণ্ডি ও হাজারীবাগ থানা এলাকা নিয়ে গঠিত। ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) ১৪-১৮ নম্বর ওয়ার্ড ও ২২ নম্বর ওয়ার্ড এ আসনের অন্তর্ভুক্ত।

গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্যাপুর-পলাশবাড়ী) আসনের উপনির্বাচন: গাইবান্ধা প্রতিনিধি জানান, গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্যাপুর-পলাশবাড়ী) আসনে শনিবার অনুষ্ঠিত উপ-নির্বাচনে ভোটারদের উপস্থিতি ছিল তুলনামূলকভাবে অনেক কম। সকালের দিকে কোনো কোনো কেন্দ্রে ভোটারদের উপস্থিতি কিছুটা বেশি পরিলক্ষিত হলেও ১১টার পর থেকেই ভোটকেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের উপস্থিতি কমতে শুরু করে। এরপর থেকেই একজন দুজন করে এসেই ভোট দিতে থাকে।

ভোট শুরু হওয়ার সাথে সাথেই সাতারপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটারের সংখ্যা অনেক বেশি এবং ভোটারদের উৎসাহ-উদ্দীপনা পরিলক্ষিত হয়। পার আমলাগাছিতেও সকালে ভোটারদের উপস্থিতি ছিল ভালো। এ খবর লেখা পর্যন্ত কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

 

 






ads