যেভাবে বিত্তের পাহাড় গড়েছেন পাপিয়া-মফিজুর দম্পতি

যেভাবে বিত্তের পাহাড় গড়েছেন পাপিয়া-মফিজুর দম্পতি - মানবকণ্ঠ

poisha bazar

  • শাহীন করিম
  • ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৩:০৪,  আপডেট: ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১১:২৪

রাজনীতিবিদ সেজে সমাজসেবার আড়ালে অসহায় সুন্দরী নারীদের নিয়ে দীর্ঘদিন অনৈতিক ব্যবসা ও তদবির বাণিজ্য করে শত শত কোটি টাকার মালিক বনেছেন  নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক শামীমা নূর পাপিয়া। শুধ তাই নয়, অবৈধ অস্ত্র ও মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজি, চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা, জমির দালালিসহ সব ধরনের অপকর্মে তার যোগসাজশ ছিল।

সরকারি দলের সাইনবোর্ড ব্যবহার করে নানা অবৈধ ও অনৈতক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে সম্পদের পাহাড় বানিয়েছেন র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার পাপিয়া ও সুমন দম্পতি। যিনি প্রতিদিন ঢাকার একটি অভিজাত হোটেলের বারে শুধু মদের বিল দিতেন প্রায় আড়াই লাখ টাকা। নরসিংদীতে তার ক্যাডার বাহিনীর নাম ‘কিউ অ্যান্ড সি’।

কথিত রাজনীতিবিদ পাপিয়ার ঢাকা ও নরসিংদীতে চারটি বিলাসবহুল ফ্ল্যাট ছাড়াও তাদের দুটি দুই কোটি টাকা দামের প্লট এবং পাঁচটি বিলাসবহুল গাড়িরও সন্ধান মিলেছে। অবৈধভাবে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়া শামীমা নূর পাপিয়া ও সুমন দম্পতির ফার্মগেটের ইন্দিরা রোডের বাসা থেকে গতকাল রোববার দুপুরে জব্দ করা হয়েছে বিদেশি অস্ত্র-গুলি ও ম্যাগাজিন। শুধু তাই নয়, জব্দ করা হয়েছে বিদেশি মদ ও  ৫৮ লাখ ৪১ হাজার টাকা উদ্ধার করেছে র‌্যাব।

এদিকে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার পর নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক শামিমা নূর পাপিয়াকে আজীবনের জন্য সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। গতকাল যুব মহিলা লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। 

এর আগে শনিবার সন্ধ্যায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে দেশত্যাগের সময় শামীমা নূর পাপিয়াসহ চারজনকে গ্রেফতার করে ‌র‌্যাব । অন্যরা হলেন-পাপিয়ার স্বামী মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরী ওরফে মতি সুমন (৩৮), সাব্বির খন্দকার (২৯) ও শেখ তায়্যিবা (২২)। এ সময় তাদের কাছ থেকে ৭টি পাসপোর্ট, ২ লাখ ১২ হাজার ২৭০ টাকা, ২৫ হাজার ৬০০ জাল টাকা, ১১ হাজার ৯১ ইউএস ডলারসহ বিভিন্ন দেশের মুদ্রা জব্দ করা হয়।

গতকাল বিকেলে কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে ‌র‌্যাব-১-এর অধিনায়ক (সিও) লেফটেন্যান্ট কর্নেল শাফী উল্লাহ বুলবুল বলেন, পাপিয়া ও মফিজুরের সুনির্দিষ্ট কোনো পেশা নেই। কিন্তু খুব অল্প সময়েই তারা বিপুল পরিমাণ সম্পদ ও অর্থবিত্তের মালিক হয়েছেন। ফার্মগেট ২৮ ইন্দিরা রোডে ‘রওশন্স ডমিনো রিলিভো’ নামে বিলাসবহুল ভবনে তাদের দুটি ফ্ল্যাট রয়েছে। দুটি ফ্ল্যাট রয়েছে নরসিংদীতেও। সেখানে দুই কোটি টাকা দামের দুটি প্লট রয়েছে। কালো ও সাদা রঙের দুটি হায়েস মাইক্রোবাস, একটি হ্যারিয়ার, একটি নোয়াহ এবং একটি ভিজেলসহ পাঁচটি বিলাসবহুল গাড়ি রয়েছে তাদের।

র‌্যাবের তথ্য অনুযায়ী, বিএফডিসির সামনে কার এক্সচেঞ্জ নামে একটি গাড়ির শোরুমে পাপিয়ার এক কোটি টাকার বিনিয়োগ রয়েছে। নরসিংদী শহরে কেএমসি কার ওয়াশ অ্যান্ড অটো সলিউশন নামে একটি প্রতিষ্ঠানে এই দম্পতির ৪০ লাখ টাকা বিনিয়োগ রয়েছে। এ ছাড়া দেশের বিভিন্ন ব্যাংকে নামে ও বেনামে অ্যাকাউন্ট খুলে বিপুল পরিমাণ অর্থ গচ্ছিত রয়েছে বলেও র‌্যাবকে জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন পাপিয়া ও মফিজুর।

র‌্যাব কর্মকর্তা শাফী উল্লাহ বুলবুল বলেন, গত বছরের ১২ অক্টোবর থেকে এ বছরের ১৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত রাজধানীর হোটেল ওয়েস্টিনের ২১ তলার প্রেসিডেন্সিয়াল সুট ভাড়া নিয়েছিল পাপিয়া-মফিজুর। ৫৯ দিনে মোট ৮১ লাখ ৪২ হাজার ৮৮৮ টাকা বিল পরিশোধ করেছেন তারা। এর বাইরে হোটেলের বার এককভাবে ভাড়া নিয়ে প্রতিদিন আড়াই লাখ টাকা বিল দিতেন। এত বিপুল পরিমাণ অর্থের উৎস জানতে চাইলে তারা কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি।

যেভাবে বিত্তের পাহাড় পাপিয়া-মফিজুর দম্পতির: র‌্যাবের প্রাথমিক অনুসন্ধানে পাপিয়া-মফিজুরের বিপুল পরিমাণ অর্থবিত্ত অর্জনের নেপথ্যের কিছু তথ্য বেরিয়ে এসেছে বলে জানান ‌র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল শাফী উল্লাহ বুলবুল। তিনি বলেন, পাপিয়া ও তার স্বামী মফিজুর রহমান নরসিংদী এলাকায় অবৈধ অস্ত্র ও মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজি, চাকরি দেয়ার নাম করে টাকা নিয়ে প্রতারণা, জমির দালালি, সিএনজি পাম্পের লাইসেন্স ও গ্যাস সংযোগ দেয়ার নামে মানুষের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করেছে।

এ পর্যন্ত র‌্যাবের পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, পাপিয়া-মফিজুর দম্পত্তি পুলিশের এসআই ও বাংলাদেশ রেলওয়েতে বিভিন্ন পদে চাকরি দেয়ার নামে ১১ লাখ টাকা, একটি কারখানায় অবৈধ গ্যাস সংযোগ দেয়ার কথা বলে ৩৫ লাখ টাকা ও একটি সিএনজি পাম্পের লাইসেন্স দেয়ার নাম করে ২৯ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন। তবে টাকার বিনিময়ে কাউকে চাকরি কিংবা পাম্পের লাইসেন্স ও গ্যাসের সংযোগ দিতে দিতে পারেননি তারা। তবে নরসিংদী এলাকায় চাঁদাবাজি, মাদক, অস্ত্র ব্যবসাসহ বিভিন্ন অপরাধ কর্মকাণ্ড রয়েছে তাদের, যার মাধ্যমে তারা কোটি কোটি টাকা অবৈধভাবে উপার্জন করেছেন।

এই র‌্যাব কর্মকর্তা বলেন, পাপিয়া-মফিজুর দম্পত্তির আয়ের আরো একটি উৎস নারীদের দিয়ে জোরপূর্বক অনৈতিক কাজ করানো। তারা চাকরি দেয়ার নাম করে নরসিংদী থেকে তরুণীদের ঢাকায় নিয়ে আসত। এরপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের মাধ্যমে তাদের অনৈতিক কাজে যুক্ত হতে বাধ্য করত। রাজধানীর বিভিন্ন বিলাসবহুল হোটেলে অবস্থান করে এসব মেয়ের অনৈতিক কাজে বাধ্য করত বলে জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন উদ্ধার হওয়া মেয়েরা।

র‌্যাব কর্মকর্তা বলেন, নরসিংদীতে পাপিয়া-মফিজুর দম্পত্তির একটি ক্যাডার বাহিনী রয়েছে। ওই ক্যাডার বাহিনীর নাম দিয়েছেন ‘কিউ অ্যান্ড সি’। এই বাহিনীর প্রত্যেক সদস্যদের হাতে ট্যাটু করা আছে। তাদের কাছে সবসময় আগ্নেয়াস্ত্র থাকে। তাদের দুটি হাইয়েস গাড়ি দেয়া হয়েছে, তারা সেই গাড়িতে করে বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজ করে বেড়ায়। তাদের পাঁচটি মোটরসাইকেলও রয়েছে। এসব গাড়িতে করে মাসোহারা আদায়, চাঁদাবাজির টাকা তোলা এবং অস্ত্র ও মাদকের ব্যবসা দেখাশোনা করত তারা।

তিনি আরো বলেন, পাপিয়া সমাজসেবার নামে নরসিংদী এলাকায় অসহায় নারীদের আর্থিক দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে তাদের অনৈতিক কাজে লিপ্ত করতেন। এজন্য অধিকাংশ সময় নরসিংদী ও রাজধানীর বিভিন্ন বিলাসবহুল হোটেলে অবস্থান করে অনৈতিক কাজে নারী সরবরাহ করে আসছিলেন।

প্রভাবশালী অনেকের সঙ্গেই পাপিয়ার ছবি দেখা গেছে- এ বিষয়ে জানতে চাইলে র‌্যাব কর্মকর্তা বুলবুল বলেন, কোনো অপরাধীর সঙ্গে কারো ছবি থাকা মানেই যে তিনি অপরাধে জড়িত, এমন নয়। কোনো ধরনের পরিস্থিতিতে অনেকের সঙ্গেই অনেকে ছবি তুলে থাকতে পারেন। এগুলো ব্যক্তির অনুমতির বিষয়। তিনি বলেন, পাপিয়া-মফিজুর দম্পতি ও তাদের সহযোগীদের বিরুদ্ধে বিমানবন্দর থানায় অস্ত্র, মাদক ও অর্থ পাচারের অভিযোগে মামলা দায়ের করে তাদের আদালতে পাঠানো হয়েছে।

নরসিংদীতে ভয়ঙ্কর পাপিয়ার উত্থান যেভাবে:  নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক পাপিয়া চৌধুরী ও তার স্বামী শহর ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক মফিজুর রহমান চৌধুরী সুমন ওরফে মতি সুমনকে নিয়ে নরসিংদীজুড়ে চলছে সমালোচনার ঝড়। রাজনীতির অন্তরালে অস্ত্র, মাদক ও দেহ ব্যবসায় জড়িত থাকার দায়ে র‌্যাব তাদের আটক করে। নারী নেত্রীর অন্তরালে নানা অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের কথা বের হতে শুরু হয়েছে। মুখ খুলতে শুরু করেছে সাধারণ মানুষ। সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি ও পতিতাভিত্তিক ব্যবসার পাশাপাশি বø্যাকমেইল করে গড়ে তুলেছেন কোটি কোটি টাকার সাম্রাজ্য। অনৈতিক কার্যকলাপের ভিডিও ধারণ করে ধনাঢ্য ব্যক্তিদের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেয়াই তাদের প্রধান পেশা।

স্থানীয় রাজনীতিবিধ ও এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ২০০০ সালের দিকে নরসিংদী শহর ছাত্রলীগের সাবেক আহŸায়ক মফিজুর রহমান চৌধুরী সুমনের উত্থান শুরু। শৈশব থেকেই চাঁদাবাজি সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ও ব্যাকমেইল ছিল সুমনের প্রধান পেশা। দূরদর্শী চতুর ও মাস্টারমাইন্ড সুমন রাজনীতিবিদদের সঙ্গে সখ্য গড়ে তোলেন। ২০০১ সালে পৌরসভার কমিশনার মানিক মিয়াকে যাত্রা প্যান্ডেলে গিয়ে হত্যার পর তিনি আলোচনায় আসেন। এরই মধ্যে পাপিয়া চৌধুরীকে বিয়ে করেন সুমন। এরপর তার স্ত্রী পাপিয়াকে রাজনীতিতে কাজে লাগান।

প্রয়াত মেয়র লোকমান হোসেন হত্যাকাণ্ডের পর দুর্বৃত্তায়ন রোধকল্পে বর্তমান মেয়র কামরুজ্জামান কামরুল সন্ত্রাসী সুমন ও তার স্ত্রী পাপিয়া চৌধুরীকে আওয়ামী লীগের কর্মকাণ্ডে আসতে নিষেধ করেন। পরে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃত্বের বিভাজকে কেন্দ্র করে পাপিয়া চৌধুরী ও তার স্বামী মফিজুর রহমান চৌধুরী সুমন সদর আসনের এমপির বলয়ে যোগ দেয়। পাশাপাশি তাদের ঢাকার সংরক্ষিত আসনের একজন নারী এমপির সঙ্গে সখ্য গড়ে ওঠে।

দল থেকে পাপিয়াকে বহিষ্কার: নরসিংদী জেলা যুবমহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক শামিমা নূর পাপিয়াকে আজীবনের জন্য সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।  সোমবার যুবমহিলা লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি নাজমা আকতার ও সাধারণ সম্পাদক অপু উকিল স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বহিষ্কারের তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, নরসিংদী জেলা যুবমহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক শামিমা নূর পাপিয়াকে সংগঠনের ২২ (ক) উপধারা অনুযায়ী দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করা হলো। এ সিদ্ধান্ত অবিলম্বে কার্যকর হবে।

মানবকণ্ঠ/এমএইচ




Loading...
ads






Loading...