গণপূর্তের অতি: প্রধান প্রকৌশলীসহ ১১ জনকে দুদকে তলব

গণপূর্তের অতি: প্রধান প্রকৌশলীসহ ১১ জনকে দুদকে তলব
গণপূর্তের অতি: প্রধান প্রকৌশলীসহ ১১ জনকে দুদকে তলব - ফাইল ফটো

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৮:৫৭

ক্যাসিনো ও জি.কে শামীমসহ অন্যান্য ঠিকাদারি কাজে অনিয়মের অভিযোগের তদন্তে গণপূর্ত অধিদপ্তরের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী ও তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলীসহ ১১ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ।

মঙ্গলবার দুদকের প্রধান কার্যালয় থেকে পাঠানো চিঠিতে তাদেরকে ১৮, ১৯ ও ২৩ ডিসেম্বর হাজির হতে বলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রনব কুমার ভট্টাচার্য্য।

যাদেরকে তলব করা হয়েছে তারা হলেন গণপূর্ত অধিদপ্তরের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী উৎপল কুমার দে, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. রোকন উদ্দিন, আব্দুল মোমেন চৌধুরী, নির্বাহী প্রকৌশলী স্বপন চাকমাকে ১৮ ডিসেম্বর।

১৯ ডিসেম্বর তলব করা হয়েছে গণপূর্ত অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শওকত উল্লাহ, মো. ফজলুল হক ও আব্দুল কাদের চৌধুরী ও মো. আফসার উদ্দিন।

২৩ ডিসেম্বর তলব করা হয়েছে নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ ইলিয়াছ আহমেদ, মো. ফজলুল হক মধু ও উপ-সহকারী প্রকৌশলী আলী আকবর সরকার।

দুদক পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেন সই করা চিঠিতে বলা হয়েছে, জি কে শামীমসহ অন্যান্য ঠিকাদার ও তাদের বিভিন্ন কাজের অনিয়ম,সরকারি কর্মকর্তাদের শত শত কোটি টাকা ঘুষ লেনদেন এবং ক্যাসিনো ব্যবসা করে অবৈধ সম্পদ অর্জনসহ বিদেশে অর্থ পাচার অভিযোগ অনুসন্ধান তাদের বক্তব্য প্রয়োজন।

গত ১৮ই সেপ্টেম্বর থেকে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানে ক্যাসিনোর সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী নেতা গ্রেপ্তার হন। এর ধারাবাহিকতায় ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে ক্যাসিনোর মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনকারীদের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান শুরু করে। শুদ্ধি অভিযান শুরুর পর অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে এ পর্যন্ত ১৬টি মামলা দায়ের করে দুদক।

যাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে তারা হলেন ঠিকাদার জি কে শামীম, বহিষ্কৃত যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া, আওয়ামী লীগ নেতা এনামুল হক এনু ও তাঁর ভাই রুপন ভূইয়া, অনলাইন ক্যাসিনোর হোতা সেলিম প্রধান, বিসিবি পরিচালক লোকমান হোসেন ভূইয়া, কলাবাগান ক্লাবে সভাপতি শফিকুল আলম ফিরোজ, কাউন্সিলর হাবিবুর রহমান মিজান, তারেকুজ্জামান রাজীব, ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট, এনামুল হক আরমান, যুবলীগ নেতা জাকির হোসেন, কাউন্সিলর এ কে এম মমিনুল হক সাঈদ, যুবলীগের দপ্তর সম্পাদক আনিসুর রহমান ও তাঁর স্ত্রী সুমি রহমান।

তাদের বিরুদ্ধে পৃথক পৃথক মামলা করে দুদক। কমিশনের পরিচালক সৈয়দ ইকবালের নেতৃত্বে সাত সদস্যের একটি টিম অনুসন্ধানের দায়িত্ব পালন করছেন। অপর সদস্যরা হলেন উপ-পরিচালক মো. জাহাঙ্গির আলম, সালাহউদ্দিন আহমেদ, সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ চৌধুরি, সাইফুল ইসলাম, আতাউর রহমান ও মোহাম্মদ নেয়ামুল আহসান গাজী।

মানবকণ্ঠ/এআইএস




Loading...
ads






Loading...