‌‌‘প্রতিবন্ধীদের অধিকার নিশ্চিত করবে সরকার’

প্রতিবন্ধীদের অধিকার নিশ্চিত করবে সরকার
প্রতিবন্ধীদের অধিকার নিশ্চিত করবে সরকার - ছবি: সংগৃহীত

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৬:০৩

সকল প্রকার প্রতিবন্ধীদের অধিকার নিশ্চিতে সরকার কাজ করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা । তিনি বলেন, সরকার প্রতিটি উপজেলায় প্রতিবন্ধীদের জন্য প্রশিক্ষণ ও ক্রীড়া সুবিধা এবং চাকরির ব্যবস্থা করবে।

বৃহস্পতিবার সকালে মিরপুরে জাতীয় প্রতিবন্ধী ফাউন্ডেশনে ২৮তম আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস ও ২১তম জাতীয় প্রতিবন্ধী দিবস উদযাপন এবং জাতীয় প্রতিবন্ধী কমপ্লেক্স 'সুবর্ণ ভবন' এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের সমাজটাকে আমরা গড়ে তুলতে চাই। একটা বৈষম্যহীন সমাজ। কারণ জাতির পিতা আমাদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। কাজেই এই স্বাধীন দেশের সকল মানুষ সমান অধিকার নিয়ে বসবাস করবে। সেটাই হচ্ছে আমাদের লক্ষ্য, আর সেই লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করে যাচ্ছি। প্রতিবন্ধীদের সম্পর্কে নেতিবাচক মানসিকতা বদলের ওপর গুরুত্ব দেন তিনি।

তিনি বলেন, অটিজম নিয়ে আমাদের দেশে কোনো সচেতনতা ছিল না। আজকে সেই অবস্থা নেই। মানুষ এখন যথেষ্ট সচেতন। আমরা সবসময় চেষ্টা করে যাচ্ছি। আমরা মানুষের কাছে এই কথাটাই বোঝাতে চাই অটিজম বা প্রতিবন্ধিতা এটা কোনো অসুস্থতাও না, কোনো রোগও না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা চাই দেশের উন্নয়ন। এই উন্নয়নের ক্ষেত্রে আমরা প্রতিবন্ধীদের গুরুত্ব দিয়ে থাকি। তারা যেন কোনোরকম পেছনে পড়ে না থাকে।

দেশের প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠীর জন্য সরকারের নেয়া বিভিন্ন উদ্যোগ এবং ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের খেলাধুলায় বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। আমাদের সংসদ ভবনের সাথে একটা জায়গা আছে। আসলে ওই জায়গাটা ছিল সমাজকল্যাণেরই। ওখানে একটা মুক ও বধির স্কুল ছিল। পরবর্তীতে যখন মিরপুরে এই জায়গাটা করা হয়, ওরা ওখান থেকে সরে আসে। সে জায়গাটা খালি পড়েছিল।

তিনি বলেন, আমাদের কোনো এক ব্যবসায়ী সে আবার অনেক ইন্ডাস্ট্রির মালিক আবার অনেক পত্রিকারও মালিক। হঠাৎ শুনলাম সে এক দলিল বানিয়ে নিয়ে আসছে। ওই জায়গাটা নাকি তার বাপ-দাদার পৈত্রিক সম্পত্তি। আমি যেহেতু জানি, কারণ ওই মুক-বধির স্কুলে আমার বাবা ছোটবেলায় আমাদের নিয়ে যেতেন। ওদের স্পোর্টস হত, আমরা সেখানে যেতাম। সেজন্য আমার জানা আছে। এই জায়গাটা কোনোমতেই কারও ব্যক্তিগত জায়গা না। এটা সমাজকল্যাণের জায়গা।”

সংসদ সদস্য মকবুল হোসেনকে জায়গাটি সম্পর্কে খোঁজ খবর নিয়ে উদ্ধারের নির্দেশ দিয়েছিলেন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এটা কোনোমতেই তার বাপ-দাদার সম্পত্তি হতে পারেনা। তার পরে দেখা গেল ঠিকই তাই। পরে জাতীয় সংসদের স্পিকার হুমায়ুন রশীদ চৌধুরীকে সেই জায়গা সংসদের জায়গা হিসেবে নিয়ে রাখতে বলা হয়। এখন সেই জায়গাটা আমরা উন্নয়ন করে দিচ্ছি। সেখানে আমাদের প্রতিবন্ধীরা যারা খেলাধুলা করে, তাদের প্র্যাকটিসের জন্য। সেখানে একটা জায়গা করে দিচ্ছি।

সরকার প্রধান বলেন, “বাংলাদেশ এখন ডিজিটাল বাংলাদেশ। কাজেই এই তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহারে আমাদের প্রতিবন্ধীদেরও যাতে কর্মসংস্থান হয় সে ব্যবস্থা আমরা নিয়েছি।”

তিনি বলেন, “আমরা আমাদের প্রতিবন্ধীদের শিক্ষা, চিকিৎসা, প্রশিক্ষণ, পুনর্বাসন, আবাসিক সুবিধা এই সমস্ত বিষয়গুলো নিয়ে ‘সুবর্ণ ভবন’ নির্মাণ করেছি। সেখানে আমরা ট্রেনিং দিতে পারব। নানা ধরনের খেলাধুলা করতে পারব, চিত্ত বিনোদনের ব্যবস্থা থাকবে সেদিকে লক্ষ্য রেখে এটা তৈরি করা হয়েছে।”

সমাজকল্যাণমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ, প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ, মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব জুয়েনা আজিজ, জাতীয় প্রতিবন্ধী ফোরামের সভাপতি মো. সাইদুল হকসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ




Loading...
ads






Loading...