রূপ পাল্টাচ্ছে ডেঙ্গু

- সংগৃহীত

poisha bazar

  • মাহমুদ সালেহীন খান
  • ০৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ০০:৫৮

এ বছরের শুরুতে গবেষকরা সতর্ক করে বলেছিলেন, আগামী ৬০ বছরের মধ্যে বিশ্বের অধিকাংশ অঞ্চলে ডেঙ্গু ছড়িয়ে পড়বে। মশাহীন ঠাণ্ডা দেশে রাজত্বের পথও খুঁজে নিয়েছে ডেঙ্গু। শারীরিক সম্পর্কের মাধ্যমে সংক্রমণযোগ্য রোগের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছে ডেঙ্গু। স্পেনের এই পিলে চমকানো ঘটনা বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থাকেও ভাবিয়ে তুলেছে।

ডেঙ্গু ছড়ানোর একমাত্র মাধ্যম মনে করা হতো মশাকেই। কিন্তু সম্প্রতি উদ্বেগজনক তথ্য দিয়েছে স্পেনের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ। তারা বলছেন, যৌন সংসর্গেও ডেঙ্গু ছড়াতে পারে। অন্তত একজন রোগীর ক্ষেত্রে যৌন সংসর্গে ডেঙ্গু সংক্রমণের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। দ্য টেলিগ্রাফের প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়।

মাদ্রিদের ৪১ বছর বয়সী এক পুরুষের ক্ষেত্রে যৌন সংসর্গে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হওয়ার প্রমাণ মিলেছে। তিনি তার এক পুরুষ সঙ্গীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করেছিলেন। তার এই সঙ্গী কিউবা ভ্রমণে গিয়েছিলেন। তিনি সেখানে মশার কামড়ে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হন। এমন তথ্য দিয়েছেন মাদ্রিদ অঞ্চলের জনস্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা সুজানা জিমেনেজ।

রিয়াল মাদ্রিদের এই ঘটনায় বাংলাদেশের উদ্বেগ হওয়ার তেমন কিছু নেই বলে জানিয়েছেন দেশের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা। তবে তারা এটাও বলছেন. আফ্রিকা কিংবা ল্যাতিন আমেরিকার প্রবাসী কিংবা পর্যটকদের প্রতি নজরদারিতে রাখতে হবে। কারণ বাংলাদেশেও ডেঙ্গুর ক্ষণে ক্ষণে রূপ পাল্টাচ্ছে।

ঢাকা শমরিতা হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. হারুন অর রশীদ বলেন, স্পেনের এই খবরটি আমি পড়েছি।  এটি উদ্বেগজনক। কিউবা থেকে ইউরোপেও এই রোগ ছড়িয়ে পড়েছে। আমরা শুধু মশা মারার কথা চিন্তা-ভাবনা করছি। কিন্তু যৌন সম্পর্কের মাধ্যমেও ডেঙ্গু হতে পারে তাও আমাদের মাথায় রাখতে হবে। প্রয়োজনে বিদেশি পর্যটক কিংবা আমাদের প্রবাসী ভাই বোনদেরও দেশে আসার পর পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখা উচিত। যদিও কাজটি আমাদের জন্য অনেকটা চ্যালেঞ্জের হবে। কিন্তু একটু সচেতন থাকলেই এই উদ্বেগ থেকে আমরা রেহাই পেতে পারি।

বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু ও মেডিসিন বিভাগের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডা. এ আই জোয়ারদার বলেন, সাম্প্রতিক সব আলামত ডেঙ্গু চেনার এই প্রচলিত রীতিকে রীতিমতো চ্যালেঞ্জ করে বসেছে। ডেঙ্গু যখন শিরোনামে ছিল, তখন দু-একজন চিকিৎসক কিন্তু জ্বর ছাড়াও ডেঙ্গুর দেখা মেলার কথা বলতে শুরু করেছিলেন, আগে
ডেঙ্গু হলে জ্বর অনেক বেশি থাকত, তবে বর্তমানে কিছু কিছু ক্ষেত্রে জ্বর তেমন পাওয়া যাচ্ছে না। এটা উদ্বেগজনক।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে এখনো বিষয়টি নিয়ে তেমন কথাবার্তা কানে না এলেও দক্ষিণ এশিয়ার অনেক দেশ বিষয়টি আমলে নিয়েছে। তারা বেশ চিন্তিত। ডেঙ্গুর এই নতুন চ্যালেঞ্জ নিয়ে এখনই খোলা দিলে আলোচনা-গবেষণা শুরু করা উচিত। জ্বর বা কোনো উপসর্গ ছাড়াই ডেঙ্গু দেশে দেশে, ডেঙ্গু চেনা নতুন চ্যালেঞ্জ হয়ে উঠছে।

ডেঙ্গু বিশেষজ্ঞরা জ্বরের উপসর্গ ছাড়া নতুন এই ডেঙ্গুর নাম দিয়েছেন এফিব্রিল ডেঙ্গু। গত বছরের আগস্ট মাসে প্রথম এফিব্রিল ডেঙ্গু সম্পর্কে একটি গবেষণা জার্নালে (জার্নাল অব দ্য অ্যাসোসিয়েশন অব ফিজিশিয়ান, ভলিউম ৬৬) বিশদ তথ্যপ্রমাণ পেশ করা হয়।

গবেষকরা বলছেন, যেসব এলাকায় ডেঙ্গু ছড়িয়েছে সেসব এলাকায় বর্ষার পর জ্বর ছাড়া ডেঙ্গু দেখা দিতে পারে। অনেক দিন থেকে বহুমূত্র রোগে ভুগছেন, প্রবীণ মানুষ বা কোনো কারণে যাদের শরীরের প্রতিরোধ শক্তি কমে গেছে বা এখনো সেভাবে গড়ে ওঠেনি (যেমন শিশু) তাদের বিনা জ্বরের ডেঙ্গু হওয়ার আশঙ্কা বেশি।

বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত এ রকম ‘ঠান্ডা ডেঙ্গু’তে কতজন আক্রান্ত হয়েছে, তার কোনো তথ্য নেই। তবে ভারতের পশ্চিমবঙ্গসহ নানা রাজ্যে বিশেষ করে যেখানে বাংলাদেশের মানুষের বেশি যাতায়াত (চেন্নাই), সেসব জায়গায় এ ধরনের ডেঙ্গুর ‘আবাদ’ বেড়েই চলেছে।

যারা ডেঙ্গুর একটু-আধটু খোঁজখবর রাখেন, তারা জানেন ডেঙ্গু ইতোমধ্যে ইউরোপে পৌঁছে গেছে এবং বহালতবিয়তে সেখানে ‘রাজত্ব’ করার পরিস্থিতি তৈরির তালে আছে।


ময়মনসিংহ চরপাড়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক ডা. আব্দুল হালিম বলেন, যারা ডেঙ্গুকে চিনে ফেলেছেন বলে মনে করছেন আর মশা মারার ফগিং মেশিন আর ওষুধ আমদানি করে ডেঙ্গুকে চিৎপাত করার স্বপ্ন দেখছেন, তারা ঠিক করছেন না। ডেঙ্গুর ওপর আমাদের ধারাবাহিক গবেষণা চালু রাখার কোনো বিকল্প
নেই।

বিশ্বে প্রতি বছর ১০ কোটির বেশি মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়। আর মারা যায় প্রায় ১০ হাজার মানুষ। বাংলাদেশে এ বছর ডেঙ্গু মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। ডেঙ্গুজ্বর নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা লাখ ছাড়িয়েছে।

এর আগে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এত মানুষ হাসপাতালে ভর্তি হয়নি। এবারই প্রথম ঢাকাসহ ৬৪ জেলায় এই রোগ
ছড়িয়েছে। এবার ডেঙ্গুতে শতাধিক মানুষ মারা গেছে। বেসরকারি হিসাবে মৃতের সংখ্যা প্রায় তিনশ’। আর সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (ইইডিসিআর) বলছে, এ বছর ১০৭টি মৃত্যু নিশ্চিতভাবে ডেঙ্গুতে হয়েছে।

দেশে, এই সংখ্যাও ডেঙ্গুতে মৃত্যুর নতুন রেকর্ড। বিশ্বে প্রতি বছর ১০ কোটির বেশি মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়। আর মারা যায় প্রায় ১০ হাজার মানুষ। বাংলাদেশে এ বছর ডেঙ্গু মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। ডেঙ্গুজ্বর নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা লাখ ছাড়িয়েছে।

এর আগে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এত মানুষ হাসপাতালে ভর্তি হয়নি। এবারই প্রথম ঢাকাসহ ৬৪ জেলায় এই রোগ ছড়িয়েছে। এবার ডেঙ্গুতে শতাধিক মানুষ মারা গেছে। বেসরকারি হিসাবে মৃতের সংখ্যা প্রায় তিনশ’।

আর সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) বলছে, এ বছর ১০৭টি মৃত্যু নিশ্চিতভাবে ডেঙ্গুতে হয়েছে। দেশে, এই সংখ্যাও ডেঙ্গুতে মৃত্যুর নতুন রেকর্ড।

বিশ্বে প্রতি বছর ১০ কোটির বেশি মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়। আর মারা যায় প্রায় ১০ হাজার মানুষ। বাংলাদেশে এ বছর ডেঙ্গু মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। ডেঙ্গুজ্বর নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা লাখ ছাড়িয়েছে। এর আগে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এত মানুষ হাসপাতালে ভর্তি হয়নি।

এবারই প্রথম ঢাকাসহ ৬৪ জেলায় এই রোগ ছড়িয়েছে। এবার ডেঙ্গুতে শতাধিক মানুষ মারা গেছে। বেসরকারি হিসাবে মৃতের সংখ্যা প্রায় তিনশ’। আর সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) বলছে, এ বছর ১০৭টি মৃত্যু নিশ্চিতভাবে ডেঙ্গুতে হয়েছে। দেশে, এই সংখ্যাও ডেঙ্গুতে মৃত্যুর নতুন রেকর্ড।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রোগ্রাম ম্যানেজার রিজওয়ান শামীম জানান, বাস্তবতার সঙ্গে খাপ খাইয়ে মানুষের জন্য, দেশবাসীর জন্য বার্তা তৈরি করতে হবে। গণমাধ্যম, বিজ্ঞান আর বিজ্ঞানীদের সঙ্গে নিতে হবে, আস্থায় রাখতে হবে। বিজ্ঞানের কথাকে পাত্তা দিতে হবে। তাহলে ডেঙ্গু থেকে উত্তরণের পথ খুঁজে পাব।

 

মানবকণ্ঠ/এসআর




Loading...
ads





Loading...