নতুন ধানের চাল আসছে, দামও বাড়ছে

মানবকণ্ঠ
ছবি - সংগৃহীত।

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২০ নভেম্বর ২০১৯, ১০:৫৯

গত ১৫ দিনে কেজিপ্রতি চালের দাম ২ থেকে ৪ টাকা করে বেড়েছে। যদিও নতুন ধান কাটার পর স্বল্প পরিসরে চাল বাজারে আসতে শুরু করেছে। রাজশাহীতে গত ১৫ দিনের ব্যবধানে মোটা ও চিকন—সব ধরনের চাল কেজিতে অন্তত চার টাকা বেড়েছে। আর নাটোরে গত তিন দিনে চালের দাম বেড়েছে কেজিপ্রতি ২ টাকা।

রাজশাহীর পাইকারি বাজারে বিআর-২৮ জাতের চালের ৫০ কেজির একটি বস্তা ১ হাজার ৬০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এখন বস্তাপ্রতি ২০০ টাকা বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। একই চালের ৮৪ কেজির বস্তা বিক্রি হয়েছে ২ হাজার ৬০০ টাকায়। গতকাল পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে ২ হাজার ৮০০ থেকে ৩ হাজার টাকায়। মিনিকেট চালের ৫০ কেজির বস্তা ৩০০ টাকা আর বাসমতী ৫০০ টাকা বেশি দামে বিক্রি হয়েছে। এর প্রভাব পড়েছে খুচরা বাজারেও।

নাটোরের খুচরা বাজারে মিনিকেট ৩৮, ছাঁটা মিনিকেট ৪০, ইরি–২৮ চাল ৩৪, কাঠারী ৪৮ থেকে ৫২, একই দামে বিক্রি হচ্ছে শম্পা কাঠারী। আর গুটি চাল বিক্রি হচ্ছে ২৬ টাকা কেজি দরে।

রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক সামছুল হক জানান, গতকাল পর্যন্ত লক্ষ্যমাত্রার ৩৭ শতাংশ রোপা ও আমন ধান কাটা হয়েছে। এর মধ্যে অল্প করে নতুন চাল বাজারে উঠছে। ১০ থেকে ১২ দিনের মধ্যে পুরোদমে নতুন চাল বাজারে চলে আসবে।

চালের দাম ঊর্ধ্বমুখী হওয়ার কারণ সম্পর্কে নাটোর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপপরিচালক (শস্য) মোস্তফা কামাল বলেন, চালের দাম ঊর্ধ্বমুখী হওয়ার কোনো কারণ নেই। এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী গুজব ছড়িয়ে চালের দাম বাড়াচ্ছে।

মোস্তফা কামাল জানান, ২০১৯-২০ উৎপাদন বর্ষে প্রতি কেজি চালের উৎপাদন খরচ দাঁড়িয়েছে ২৮ টাকা ৭১ পয়সা। সরকারি খাদ্যগুদামে চাল কেনা হচ্ছে প্রতি কেজি ৩৬ টাকা দরে। ভোক্তা ও উৎপাদকদের স্বার্থ বিবেচনা করেই এ দাম নির্ধারণ করা হয়েছে।

মানবকণ্ঠ/এইচকে




Loading...
ads





Loading...