সাড়ে ছয় বছরে কোনো আন্তর্জাতিক নির্বাচনে হারিনি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

সাড়ে ছয় বছরে কোনো আন্তর্জাতিক নির্বাচনে হারিনি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
সাড়ে ছয় বছরে কোনো আন্তর্জাতিক নির্বাচনে হারিনি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৯ অক্টোবর ২০১৯, ১৮:৪৯

বাংলাদেশ কূটনৈতিকভাবে অন্য যেকোনো সময়ের তুলনায় সফল বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন। তিনি বলেন, ২০০৯ সাল থেকে গত সাড়ে ছয় বছরে বাংলাদেশ কোনো আন্তর্জাতিক নির্বাচনে হারেনি।

বুধবার রাজধানীর একটি হোটেলে কূটনীতিবিষয়ক ম্যাগাজিন ডিপ্লোম্যাটস আয়োজিত ‘গত দশকে বাংলাদেশের কূটনৈতিক সাফল্য’ শীর্ষক সেমিনার শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করার সময় তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সর্বশেষ ভারত সফর সবচেয়ে সফল বলে দাবি করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

এ সময় বাংলাদেশের কূটনৈতিক সাফল্যের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে আবদুল মোমেন বলেন, অন্য দেশ যেখানে সমস্যা সমাধানের জন্য বল প্রয়োগের পথ বেছে নেয়, বাংলাদেশ সেখানে আলোচনার পথে হাঁটে। ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গেও আগে আমরা আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করেছি। রোহিঙ্গা সমস্যাও আলোচনার মাধ্যমেই সমাধান করব বলে আশা করছি। এর জন্য দ্বিপক্ষীয় ও অন্য বন্ধু রাষ্ট্র-সংস্থাকে সঙ্গে নিয়ে আমরা আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের পররাষ্ট্রনীতির একটি শক্তিশালী দিক হচ্ছে, আমরা নিরপেক্ষতা বজায় রাখি। কোনো একটি নির্দিষ্ট জোটের সঙ্গে আমরা পুরোপুরি মিলিয়ে যাই না। অনেকেই আমাকে প্রশ্ন করেন যে, আমরা ভারত-চীনের মতো দুটি দেশের সঙ্গে কীভাবে সুসম্পর্ক বজায় রাখি? এর উত্তর হচ্ছে, ভারত ও চীনের সঙ্গে নিজেদের এবং দ্বিপক্ষীয় স্বার্থ-সম্পর্ক বজায় রাখি। তাদের দুই দেশের মধ্যে সমস্যা থাকতেই পারে, সেটা তাদের নিজেদের বিষয়। আমরা তার মধ্যে পড়ি না।

তিনি বলেন, জাতিসংঘে প্রায় সাড়ে ছয় বছর স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেছি। শুধু নিজের সময়ের কথা যদি বলি, প্রায় ৫২টি নির্বাচনে অংশ নিয়েছে বাংলাদেশ, যার একটিতেও হারেনি। এর কারণ হচ্ছে, বাংলাদেশ সবার সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রেখেছে, কারো সঙ্গেই শত্রুভাবাপন্ন কিছু করেনি।

ড. আবদুল মোমেন বলেন, নির্বাচনের আগে বাংলাদেশের যে প্রতিশ্রুতি ছিল, দায়িত্বের পাশাপাশি সেগুলোও রক্ষা করেছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন ছিল, এই দেশ বিশ্ববাসীর জন্য শান্তির দ্বীপ হবে (পিস আইল্যান্ড)। সত্যি সত্যি অদূর ভবিষ্যতে তাই হবে বাংলাদেশ।

এবারের ভারত সফর সবচেয়ে সফল হয়েছে, এ দাবি করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এই সফর থেকে আমরা অনেক কিছু পেয়েছি। বিশেষ করে, আমাদের ছেলেমেয়েরা সেখানে প্রশিক্ষণের জন্য যাবে। বিদেশ থেকে গ্যাস এখানে এনে তাদের দেশে বিক্রি করা হবে। এতে বিক্রির একটা জায়গা হলো, দুই দেশের মধ্যকার সম্পর্ক আরো জোরালো হলো।

আমরা বাংলাদেশের গ্যাস ভারতে দিচ্ছি না, মন্তব্য করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এখানে তথ্যটা ভুল। আমরা কোত্থেকে গ্যাস বিক্রি করব? মূলত আমরা বিদেশ থেকে গ্যাস এনে এটাকে এলএনজিতে রূপান্তর করে সিলিন্ডারে ঢোকাব। অর্থাৎ বিদেশ থেকে গ্যাস এনে এটাকে সিলিন্ডারাইজেশন করে আমরা ভারতে দেব। এতে আমাদের মার্কেট বড় হবে। আমাদের দেশের উন্নতি হবে। আমরা রি-এক্সপোর্ট করতেছি।

তিনি বলেন, অনেকের ধারণা, আমরা আমাদের গ্যাস দিয়ে দিচ্ছি। নো ওয়ে। আমরা এটা রি-এক্সপোর্ট করব, এটা দুনিয়ার সব দেশেই হয়।

ফেনী নদীর পানি ভারতকে দেয়ার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে ড. আবদুল মোমেন বলেন, অনেকেই এটা নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে, আর আপনারা (মিডিয়া) সেটাকে প্রমোট করছেন। ভারত আগেও পানি নিত, ভুটান থেকে নিত। এখন সেটা একটা লিগ্যাল রূপ পেল। এটা তো আমাদের জন্য ভালো হয়েছে।

ডিপ্লোম্যাটস ম্যাগাজিনের সম্পাদক ও সাবেক রাষ্ট্রদূত শাহেদ আকবরের সভাপতিত্বে সেমিনারে আরো বক্তব্য রাখেন- সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রবিষয়ক সংসদীয় কমিটির চেয়ারম্যান ফারুক খান, সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আবুল হাসান চৌধুরী, ডিপ্লোম্যাটস ম্যাগাজিনের নির্বাহী সম্পাদক নাজিনুর রহিম, উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ফারহানা চৌধুরী। সেমিনারে জার্মানি, ইংল্যান্ডসহ বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও কূটনীতিকরা উপস্থিত ছিলেন।

মানবকণ্ঠ/এআইএস




Loading...
ads




Loading...