দেশে বুদ্ধিজীবীরা এখনো নিপীড়নের শিকার: সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ


  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ১৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১৯:১০

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় সাংবাদিক নেতারা বলেছেন, বুদ্ধিজীবীরা স্বাধীন সার্বভৌমত্ব রাষ্ট্র চেয়েছিলেন বলেই কর্তৃত্ববাদী গোষ্ঠী তাদেরকে হত্যা করেছে। দেশে বুদ্ধিজীবীরা এখনো নিপীড়নের শিকার হচ্ছেন। সরকারি নিপীড়নে বহু বুদ্ধিজীবীকে বিদেশে চলে যেতে হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৪ ডিসেম্বর) রাজধানীতে এক আলোচনা সভায় এমন কথা বলেন তারা। জাতীয় প্রেস ক্লাবে ইউনিয়ন কার্যালয়ে এই আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন-বিএফইউজে ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন-ডিইউজে। এ সময় তারা বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও সাংবাদিক নেতা রুহুল আমিন গাজীর মুক্তি দাবি করেন।

বিএফইউজে সভাপতি এম আবদুল্লাহ বলেন, বুদ্ধিজীবীদের কেন হত্যা করা হয়েছিল? কারণ তারা একটি স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্র চেয়েছিলেন। তাই কর্তৃত্ববাদী গোষ্ঠী তাদেরকে হত্যা করেছে। এসময় তিনি সংগ্রাম সম্পাদক আবুল আসাদ, ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন, মাহমুদুর রহমান, রুহুল আমিন গাজীসহ বর্তমান বুদ্ধিজীবীদের নির্যাতনের কথা তুলে ধরেন এর নিন্দা জানান।

বিএফইউজে মহাসচিব নুরুল আমিন রোকন বলেন, আমরা বুদ্ধিজীবী হত্যার সঠিক তদন্ত চাই। এদেশে যদি মানবাধিকার থাকতো তাহলে বেগম খালেদা জিয়াকে চিকিত্সার সুযোগ না দিয়ে আটকে রাখা হতো না। বিচার বিভাগের স্বাধীনতার জন্য সাংবাদিকরা আন্দোলন করেছি। আমরা কি তাদের কাছ থেকে ন্যায় বিচার পাচ্ছি? আজকে আইনের দোহাই দিয়ে বেগম জিয়াকে বিদেশ চিকিত্সা নিতে যেতে দিচ্ছে না। আমি বলবো আইনের জন্য মানুষ না, মানুষের জন্য আইন।

ডিইউজে সভাপতি কাদের গনি চৌধুরী বলেন, বুদ্ধিজীবী ভীতির আবর্তে চলছে বাংলাদেশ। এখনো দেশের বুদ্ধিজীবীরা নিরাপদ নন। প্রতিনিয়ত সাংবাদিক বুদ্ধিজীবীরা সরকারের রোষানলে পড়ে স্বাধীন মতামত ব্যক্ত করতে পারছেন না। সাংবাদিকরা আজ স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছেন না। এখনো রাষ্ট্রীয় বাহিনী দিয়ে, কখনো কালো আইন করে সাংবাদিকদের কণ্ঠরোধ করা হচ্ছে।

বিএফইউজে সভাপতি এম আবদুল্লাহর সভাপতিত্বে ও ডিইউজে সাধারণ সম্পাদক মো. শহিদুল ইসলামের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন- বিএফইউজে সাবেক মহাসচিব এম এ আজিজ, ডিইউজে সাবেক সাধারণ সম্পাদক বাকের হোসেন, বিএফইউজে সিনিয়র সহ-সভাপতি মোদাব্বের হোসেন, ডিইউজে সিনিয়র সহ-সভাপতি শাহিন হাসনাত, সহ-সভাপতি বাছির জামাল, বিএফইউজে কোষাধ্যক্ষ মুহাম্মদ খায়রুল বাশার, নির্বাহী সদস্য একেএম মহসীন, ডিইউজের সাবেক সহ-সভঅপতি সৈয়দ আলী আসফার, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. দিদারুল আলম প্রমুখ।


poisha bazar


ads