ভ্রমণ হোক প্রশান্তির

মানবকণ্ঠ
ভ্রমণ হোক প্রশান্তির - ছবি : সংগৃহীত।

poisha bazar

  • ০৯ মার্চ ২০২০, ১৩:৫২

যারা ভ্রমণ করে প্রকৃতির বিশালতায় নিজেকে উৎসর্গ করার জন্য। ক্লান্তি থেকে নিজেকে স্বস্তি দিতে। তারা আসলে জীবনকে বোঝে। জীবনের মানে খুঁজে পায়। পৃথিবীর নানা বাঁকে- তৈয়্যবা রহমান

আরাফ ইন্তিসার। বর্তমানে তিনি একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে অধ্যয়নরত আছেন। জীবনের লক্ষ্য নিজেকে ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে প্রতিষ্ঠিত দেখতে চাইলেও অনেক ছোট থেকেই তার সুপ্ত ইচ্ছা ছিল ভ্রমণ বিষয়ে সবার জন্য কিছু করার। ছোট থেকেই ভ্রমণ তার নেশা। ছুটি পেলেই ব্যাগ প্যাক, ক্যামেরা আর নিত্যসঙ্গী ল্যাপটপ নিয়ে বেরিয়ে পড়েন। গত এক বছরে তিনি যেখানেই ঘুরতে বেড়িয়েছেন তৈরি করে ফেলেছেন তার ফলোয়ারদের জন্য গল্পের নানা রঙের ভ্রমণ বøগ। সবার সঙ্গে শেয়ার করেন তার ভ্রমণের ভালো-মন্দ সব অভিজ্ঞতা। আর তার সঙ্গে জুড়ে দেন তার ক্যামেরায় বন্দি করা স্মৃতিময় নিসর্গের ছবি।

তিনি জানেন, বর্তমানে তরুণ প্রজšে§র কাছে খুবই জনপ্রিয় মাধ্যম এখন ইউটিউব। তবে ইউটিউবার হিসেবে নিজেকে খ্যাত করার ইচ্ছা মনে মনে থাকলেও কখনো ভাবেননি তার স্বপ্ন সত্যি হতে যাচ্ছে। অনেক স্বপ্ন আর প্রত্যাশা নিয়ে গত ২০১৯ সালের ২ মার্চ তৈরি করলেন তার ইউটিউব চ্যানেল। তার মূল উদ্দেশ্য ছিল তিনি যেখানে ভ্রমণ করবেন তার খুঁটিনাটি বিষয়গুলো ভিডিওর মাধ্যমে দর্শকদের জন্য উপস্থাপন করা। এই যেমন কোথায় ঘুরতে যাবেন, কোথায় থাকবেন, কোথায় খাবেন, সেখানে পরিবেশ কেমন ইত্যাদি। প্রযুক্তি ব্যবহার করে তিনি গোটা বিশ্বের কাছে পৌঁছে দিচ্ছেন তার ভøগগুলো। তার এই ভিডিওগুলো অন্যদের ঘুরতে যাওয়ায় উৎসাহ জোগায়, প্রয়োজনীয় তথ্য পেয়ে ঘুরে আসছেন অনেকেই।

ঘুরতে যান ভালোবেসে: পৃথিবীতে দুই ধরনের মানুষ আছে। এক হলো তারা- যারা ভ্রমণ করে প্রকৃতির বিশালতায় নিজেকে উৎসর্গ করার জন্য আর ক্লান্তি থেকে নিজেকে অবসাদ দিতে অন্যদিকে আরেক দল হলো তারা, যারা ভ্রমণে যায় না বা যাওয়ার প্রয়োজনও বোধ করে না। আরাফ হলেন প্রথম দলের মানুষদেরই একজন। তিনি ভ্রমণ করতে ভীষণ পছন্দ করেন। তাই ঘুরতে গিয়ে তার স্মৃতিগুলো ফ্রেমবন্দি করতে ভোলেন না। সঙ্গে খুঁটিনাটি বিষয়গুলো জানিয়ে দেন ভিডিওতে যেন তার দর্শকরা পুরোপুরি গুছিয়ে ভ্রমণে যেতে পারেন। তিনি ভ্রমণকে ভালোবেসে নিজের অভিজ্ঞতা সারাবিশ্বের কাছে তুলে ধরতে আগ্রহী। সম্প্রতি দর্শকরা খুব আগ্রহের সঙ্গে অপেক্ষায় থাকছেন তার নতুন ভিডিওর জন্য। মূলত ট্র্যাভেলিং তার নেশা।

‘সাজেক ভ্রমণ’ দিয়েই শুরু: গত ২০১৯-এর ২ মার্চ এ চ্যানেলটির উদ্বোধন করেছিলেন। আর তার ঠিক দুই দিন পরই আপলোড করেছিলেন তার প্রথম বøগ ‘সাজেক ট্যুর।’

সঙ্গী নির্বাচন: ঘুরতে যাওয়ার সঙ্গীর কথা জানতে চাইলে আরাফ জানান, ‘আমি যেখানেই ভ্রমণে যাই, যাওয়ার আগে ঠিক জায়গা অনুযায়ী কতজন নিয়ে গেলে একটা বাজেট ট্যুর করা সম্ভব সেদিকটা খেয়াল করে সঙ্গী নির্বাচন করি। যাতে আমার দর্শকরা একটা পরিপূর্ণ তথ্য পায় এবং কম খরচে তাদের প্রিয় জায়গায় ঘুরে আসতে পারে।’

পরিবারের সহযোগিতা: একজন মানুষের তার কর্মক্ষেত্রে সফলতার পেছনে তার পরিবার খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা পালন করে। যেমনটি পেয়েছেন আরাফ। এই ক্ষেত্রে আরাফ সর্ব প্রথম ধন্যবাদ জানাতে চান তার পুরো পরিবারকে। কাজের শুরু থেকেই পরিবারের প্রত্যেকের সম্পূর্ণ সমর্থন ছিল বরং তারাও খুবই আগ্রহ নিয়ে ভিডিওগুলো দেখেন।

সম্পাদনা নিজেই: আরাফ তার প্রথম বøগটি মোবাইলে করলেও পরের ভিডিওগুলো করেন তার একটি ক্যামেরার মাধ্যমে। প্রকৃতি নিজেই এক অনবদ্য জীবন্ত শিল্পকর্ম। তবুও ভ্রমণের সময় যেই দৃশ্যটি অসাধারণ বলে মনে হয়েছে সেটিই ধারণ করে ফেলেন তার ক্যামেরায়। এরপর কিছু অডিও সংযোজন করেন এবং ভিডিও এডিট করেন। তিনি এই এডিটিংয়ের কাজগুলো তার নিজের স্টুডিওতে বসেই করেন। ভিডিও এডিটিং শিখেছিলেন তার বড় ভাইয়ের কাছ থেকে। এখন নিজেই পুরো ভিডিও সম্পাদনা করেন।

মান ভালো রাখতে: আরাফ সবচেয়ে গুরুত্ব দেন তার ভিডিওটির মানের দিকে, কেননা কনটেন্ট যদি দর্শকদের দেখার উপযোগী না হয় তবে দর্শক সেটা পছন্দ করবে না। এ ব্যাপারে তিনি জানান, ‘আমি ভিডিওগুলো খুব যত্নের সঙ্গে উপস্থাপন করি যাতে দর্শকরা ঠিক সেই জায়গাটার আসল অনুভ‚তিটা বুঝতে পারেন।

মানবকণ্ঠ/এইচকে




Loading...
ads






Loading...