শীতকালীন সুরক্ষায় গিজার রক্ষণাবেক্ষণ করুন সঠিকভাবে

মানবকণ্ঠ
ছবি - সংগৃহীত।

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১১ নভেম্বর ২০১৯, ১৫:৪৮

লেপ বা কম্বলের আরামদায়ক উষ্ণতা উপভোগ করতে শীতকাল অনেকের কাছেই খুব প্রিয়। কিন্তু শীতের কনকনে ঠান্ডা পানিতে গোসলের কথা ভাবলে গায়ে জ্বর আসেনা এমন মানুষ খুব কমই আছেন। তাই গোসলে অনেকেরই প্রয়োজন পড়ে গরম পানির। কিন্তু গ্যাসে পানি গরম করা যথেষ্ট সময়সাপেক্ষ। তাড়াহুড়ো থাকলে যা সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। আর এই সময়ের মুশকিল আসান হল গিজার অথবা ইলেক্ট্রিক ওয়াটার হিটার। এর সাহায্যে খুব সহজে এবং কম সময়ে পানি গরম করে নেওয়া যায়।

বাজারে এখন বিভিন্ন আকার এবং দামের গিজার পাওয়া যায়। সাধারণত লিটারভেদে এর মূল্য নির্ধারিত হয়। গ্যাস অথবা ইলেক্ট্রিক, বেছে নিতে পারেন যে কোনও ধরনের ওয়াটার হিটার। যদিও বাড়ি বা ফ্ল্যাটে ইলেক্ট্রিক গিজারের ব্যবহারই বেশি দেখা যায়। গিজার যেহেতু একটি ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যাপ্লায়েন্স, তাই কেনার সময় অবশ্যই এর সুরক্ষা সংক্রান্ত বৈশিষ্ট্যগুলো দেখে নিন।

শীতকালেই যে শুধু গরম পানির প্রয়োজন হয় তা নয়। প্রায় সারাবছরই পরিবারের শিশু ও প্রবীণ সদস্যদের গোসলের জন্য গরম পানি ব্যবহার করা হয়। তবে শীতকালেই এর ব্যবহার হয় সবচেয়ে বেশি। আর এজন্যে গিজারের কোন জুড়ি নেই। তবে, নিরাপদে গিজার ব্যবহার করার জন্য প্রয়োজন তার সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ। তাই গিজারের রক্ষণাবেক্ষণে মেনে চলতে পারেন এই পরামর্শ-

নতুন গিজার লাগানোর সময় সঠিকভাবে বৈদ্যুতিক সংযোগ হয়েছে কি না অথবা গিজারের পাইপের সংযোগ ঠিক হয়েছে কিনা সেই দিকে নজর রাখুন। পাইপগুলি আয়রনের হলে বেশি ভালো হয়।

গিজার স্বয়ংক্রিয়ভাবে কাজ করে। অর্থাৎ, বিদ্যুৎ সংযোগ পাওয়ার পর পানি গরম হয়ে গেলে নিজে থেকেই তা বন্ধ হয়ে যায়। বাড়ির গিজারটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে কাজ করছে কি না সে দিকে খেয়াল রাখুন।

গিজারে একটা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পানি গরম হয়ে যায়। খেয়াল রাখুন তা হচ্ছে কি না। না হলে বুঝবেন গিজারে কোনও গোলযোগ হয়েছে।

পানি গরম হয়ে গেলে গিজারটি বন্ধ রাখুন। এতে যেমন বিদ্যুতের সাশ্রয় হবে, তেমনি গিজারটিও দীর্ঘদিন ভাল থাকবে।

পানি গরম হয়ে গেলে সম্পূর্ণ পানি গিজার থেকে বের করে নিন। পানি মজুত হতে থাকলে গিজারে আয়রণ জমে গিয়ে তা দ্রুত বিকল হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে।

ত্রুটিযুক্ত গিজার থাকলে তা দ্রুত ঠিক করার ব্যবস্থা করুন। না হলে এটি ব্যবহারের ফলে বিপদ ঘটতে পারে।

মানবকণ্ঠ/জেএস




Loading...
ads





Loading...