সাবরিনাকে আদালতে তুলে রিমান্ড চাইবে পুলিশ


poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১২ জুলাই ২০২০, ১৮:৩৮,  আপডেট: ১৩ জুলাই ২০২০, ১১:০৫

করোনাভাইরাস টেস্ট নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা আরিফকে সোমবার আদালতে হাজির করে চার দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার আবেদন করবে পুলিশ। রোববার (১২ জুলাই) বিকেলে এ তথ্য জানান তেজগাঁও উপ পুলিশ কমিশনার হারুনুর রশীদ।

তিনি বলেন, হাজারো মানুষকে করোনার ভুয়া রিপোট দিয়ে তাদের জীবনকে ঝুঁকিতে ফেলেছে জেকেজি। আর চেয়ারম্যান হিসেবে সাবরিনা কোনোভাবেই এর দায় এড়াতে পারেন না।

তিনি বলেন, তেজগাঁও থানার প্রতারণার মামলায় সাবরিনাকে আগামীকাল (১৩ জুলাই) আদালতে তোলা হবে। সেখানে সাবরিনার ৪ দিনের রিমান্ড চাইবে পুলিশ। রিমান্ডে সাবরিনার কাছ থেকে জেকেজির প্রতারণার সব তথ্য বের হয়ে আসবে।

এর আগে দুপুর ১টায় তেজগাঁও উপ পুলিশ কমিশনার কার্যালয়ে আসেন আত্মগোপনে থাকা ডা. সাবরিনা। এরপরই শুরু হয় পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদ। যা চলে টানা ৩ ঘণ্টা। করোনার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা না করেই ভুয়া রিপোর্ট দেয়ার প্রতারণার মামলায় পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

পুলিশ জানায়, জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের করা একটি প্রশ্নেরও দিতে পারেনি জেকেজির চেয়ারম্যান। অস্বীকার করতে থাকেন সব অভিযোগ। এ কারণেই স্বামী আরিফের মতোই প্রতারণার মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয় সাবরিনাকে। পরে পুলিশের গাড়িতে করে সাবরিনাকে নেয়া হয় তেজগাঁও থানায়।

প্রসঙ্গত, জেকেজি হেলথকেয়ারের করোনা টেস্ট নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে এরই মধ্যে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী আরিফ চৌধুরীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সাবরিনা তারই স্ত্রী। এর আগে গত ৪ জুন স্বামী আরিফুলের বিরুদ্ধে মারধরের অভিযোগ তুলে সাবরিনা তেজগাঁও বিভাগের একটি থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। তবে অন্তত দুই মাস আগে তাদের মধ্যে বিবাহবিচ্ছেদের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলে ডা. সাবরিনা দাবি করেন।

জেকেজির বিরুদ্ধে অভিযোগ, সরকারের কাছ থেকে বিনামূল্যে নমুনা সংগ্রহের অনুমতি নিয়ে বুকিং বিডি ও হেলথকেয়ার নামে দুটি সাইটের মাধ্যমে টাকা নিচ্ছিল এবং নমুনা পরীক্ষা ছাড়াই ভুয়া সনদ দিত। এমন অভিযোগের সত্যতা পেয়ে ২২ জুন জেকেজি হেলথকেয়ারের সাবেক গ্র্যাফিকস ডিজাইনার হুমায়ুন কবীর হিরু ও তার স্ত্রী তানজীন পাটোয়ারীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তাদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে পরে প্রতিষ্ঠানটির সিইও আরিফকেও গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনার পর ২৪ জুন জেকেজি হেলথকেয়ারের নমুনা সংগ্রহের যে অনুমোদন ছিল তা বাতিল করে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ

 





ads






Loading...