ভ্রাম্যমাণ আদালতে শিশুদের সাজা অবৈধ: হাইকোর্ট

ভ্রাম্যমাণ আদালতে শিশুদের সাজা অবৈধ: হাইকোর্ট

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১১ মার্চ ২০২০, ২০:০২,  আপডেট: ১১ মার্চ ২০২০, ২০:০৫

ভ্রাম্যমাণ আদালতে শিশুদের সাজা দেয়া অবৈধ ঘোষণা করে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে বিভিন্ন বয়সী ১২১টি শিশুকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের দেয়া সাজা অবৈধ ও বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে।

বুধবার বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি মো. মাহমুদ হাসান তালুকদার সমন্বয়ে গঠিত একটি হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ এ রায় দেন।

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন ব্যারিস্টার আবদুল হালিম ও ইশরাত হাসান।অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার।

৩১ অক্টোবর ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে দণ্ডিত হয়ে শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে থাকা ১২ বছরের কম বয়সী শিশুদের মুক্তির নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে শিশু আদালত ব্যতীত অন্যান্য আদালতের অধীনে সাজাপ্রাপ্ত ১২ বছর বয়সী থেকে ১৮ বছর পর্যন্ত বয়সী শিশুদের ছয় মাসের জামিন দেন হাইকোর্ট।

‘আইনে মানা, তবু ১২১ শিশুর দণ্ড’ শিরোনামে পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন আমলে নিয়ে হাইকোর্ট স্ব-প্রণোদিত হয়ে রুলসহ আদেশ দেন। এরপর বিভিন্ন সময়ে শিশুদের মুক্তি দেয়া হয়।

ব্যারিস্টার আব্দুল হালিম সাংবাদিকদের বলেন, ১২১ শিশুর দণ্ড দেয়া নিয়ে রুল জারি করেছিল হাইকোর্ট। সে রুলের শুনানি শেষে আজ রায় হয়েছে। ১২১ শিশুর দণ্ড সম্পূর্ণরূপে অবৈধ বলে রায় দিয়েছেন। আদালত আরও বলেছেন- কোনো শিশুদেরকে মোবাইল কোর্ট দণ্ড দিতে পারবে না। কারণ মোবাইল কোর্ট কোনো শিশুকে দণ্ড দিলে সেই দণ্ড সংবিধানের ৩০ এবং ৩৫ অনুচ্ছেদে মৌলিক ও মানবাধিকার লঙ্ঘিত হবে। ১২১ শিশুকে দণ্ডদানের ক্ষেত্রেও মৌলিক ও মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ভ্রাম্যমাণ আদালতের কোনো শিশুকে দণ্ডদানের ক্ষমতা কোনো আইনে নেই। একমাত্র শিশু আইনে শিশু আদালত শিশুদেরকে দণ্ড দিতে পারবে। অন্য কোনো আদালত কোনো অবস্থাতেই তাদেরকে দণ্ড দিতে পারবে না।

‘আইনে মানা, তবু ১২১ শিশুর দণ্ড’ শীর্ষক শিরোনামে গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনটি ৩১ অক্টোবর আদালতের নজের আনেন ব্যারিস্টার আব্দুল হালিম। প্রতিবেদনে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতে ১২১টি শিশুকে সাজা দিয়ে তাদের শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঠানোর তথ্য উল্লেখ করা হয়।

মানবকণ্ঠ/আরবি



poisha bazar

ads
ads