কোনো পরিস্থিতিতেই প্রথমে পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করবে না রাশিয়া : পুতিন


  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ১৩:১৩

ইউক্রেন যুদ্ধে রাশিয়া আগ বাড়িয়ে পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করবে না বলে জানিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তিনি বলেছেন, রাশিয়া পাগল হয়ে যায়নি যে প্রথমে পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করবে। কেবল ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞের জবাব দেওয়ার প্রয়োজন হলেই এটি ব্যবহার করবে মস্কো। তবে পারমাণবিক যুদ্ধের হুমকি ক্রমেই বাড়ছে বলে সতর্ক করেছেন রুশ প্রেসিডেন্ট।

পশ্চিমাদের বিশ্বাস, যুদ্ধে দ্রুত জয়লাভের পরিকল্পনা করেছিলেন পুতিন। তবে বুধবার (৭ ডিসেম্বর) মস্কোয় রাশিয়ার মানবাধিকার কাউন্সিলের বার্ষিক সভায় বক্তব্যকালে রুশ প্রেসিডেন্ট বলেছেন, ইউক্রেন যুদ্ধ দীর্ঘায়িত হতে পারে।

পারমাণবিক যুদ্ধের হুমকি ক্রমেই বাড়ছে জানিয়ে তিনি বলেন, এটি লুকানো ভুল হবে। তবে রাশিয়া কোনো পরিস্থিতিতেই প্রথমে পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করবে না এবং কাউকে হুমকিও দেবে না।

পুতিন বলেন, আমরা পাগল হয়ে যাইনি। আমরা জানি পারমাণবিক অস্ত্র কী জিনিস। আমরা এই অস্ত্রটিকে রেজারের মতো সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে যাচ্ছি না।

তিনি বলেন, অন্য কোনো দেশ বা অঞ্চলে আমাদের কোনো পারমাণবিক অস্ত্র মোতায়েন নেই। কিন্তু আমেরিকার আছে- তুরস্ক ও ইউরোপের কয়েকটি দেশে।

আজ বৃহস্পতিবার প্রকাশিত এক সাক্ষাৎকারে জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎজ বলেছেন, আন্তর্জাতিক চাপের মুখে রাশিয়া পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারের ঝুঁকি কমে গেছে।

অবশ্য পুতিন আগেও বলেছিলেন, রাশিয়ার পারমাণবিক নীতিমালা কেবল প্রতিরক্ষার খাতিরেই এসব অস্ত্র ব্যবহারের অনুমতি দেয়।

এদিন সৈন্য সংখ্যার বিষয়ে রুশ প্রেসিডেন্ট বলেছেন, গত সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে ডাকা তিন লাখ রিজার্ভ সৈন্যের মধ্যে প্রায় দেড় লাখ ইউক্রেনে মোতায়েন করা হয়েছে। যুদ্ধ ইউনিটে রয়েছে ৭৭ হাজার। বাকি দেড় লাখ সৈন্য এখনো প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে রয়েছে।

পুতিন বলেছেন, রাশিয়া ‘নতুন অঞ্চল’ অধিগ্রহণের মাধ্যমে যুদ্ধে ‘উল্লেখযোগ্য ফলাফল’ অর্জন করেছে।

গত সেপ্টেম্বরে ইউক্রেনের চারটি অঞ্চল- খেরসন, জাপোরিঝিয়া, লুহানস্ক ও দোনেৎস্ককে নিজেদের অংশ বলে ঘোষণা দেয় মস্কো। তবে ইউক্রেন এবং জাতিসংঘের বেশিরভাগ সদস্য রাশিয়ার এই অধিগ্রহণকে অবৈধ বলে নিন্দা করেছে।


poisha bazar