• বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২
  • ই-পেপার

সূর্যের জীবন সংশয়, ধেয়ে আসছে ভয়াল সৌর ঝড়


  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১৮ আগস্ট ২০২২, ১৪:১৫

নতুন সৌর চক্রের শীর্ষে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সূর্য গত সপ্তাহে ১৭টি করোনাল ভর নির্গমন (সিএমই) এবং নয়টি সানস্পট সহযোগে বিস্ফোরিত হয়। এর মধ্যে দুটি করোনাল ভর এখন ছুটে আসছে পৃথিবীর দিকে, যেখানে তারা উপগ্রহ এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সিস্টেমে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে, মহাকাশ আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করেছেন।

সূর্যে এতই সৌর-ঝড় চলছে যে, তার শিখা বেরিয়ে আসছে, বেরিয়ে আসছে করোনাল ভর। সৌর ঝড়ের সঙ্গে সঙ্গে করোনাল ভর নির্গমন হওয়ায় সূর্যের জীবন সংশয় দেখা দিয়েছে। এবং যে দুটি করোনাল ভর পৃথিবীর দিকে এগিয়ে আসছে, সেগুলো একে অপরকে ধ্বংস করতে পারে যাতে তারা আরও শক্তিশালী বিস্ফোরণ সৃষ্টি হতে পারে। এই ধরনের ঘটনা তখন ঘটে যখন একটি করোনাল ভর সূর্যের বাইরে নিক্ষিপ্ত হয় এবং তারপরে আরও শক্তিশালী এবং দ্রুত বিস্ফোরণ হয়, যা পরে অপরটিকে গ্রাস করে।

বৃহস্পতিবার বা শুক্রবার এই জুটি পৃথিবীতে আসবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কিছু সম্ভাবনা আছে যে তারা একটি জি৩ শ্রেণীর ভূ-চৌম্বকীয় ঝড়ের পরিণতি ঘটাবে, যাকে ‘শক্তিশালী’ ঝড় হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে। এই ধরনের ঘটনাগুলোকে জি১ থেকে জি৫ পর্যন্ত চলমান একটি স্কেলে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়েছে, যার মধ্যে বিস্তৃত পাওয়ার সিস্টেম সমস্যা এবং যোগাযোগ বন্ধের কথা বলা হয়েছে।

তবে সবচেয়ে খারাপভাবে, এই সপ্তাহের সৌর ঝড়গুলি শুধুমাত্র জি৩ তে পৌঁছবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এটি কিছু পাওয়ার সিস্টেমের জন্য ছোটখাটো সমস্যা, স্যাটেলাইটের উপর প্রভাব এবং নেভিগেশন সিস্টেমের জন্য সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। এর মানে এমনও হতে পারে যে অরোরা বা উত্তরের আলো স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক বেশি দক্ষিণে দৃশ্যমান হবে। এ ক্রিয়াকলাপের অর্থ হল উত্তর ইংল্যান্ড বা নিউ ইয়র্কের আকাশে আলো দৃশ্যমান হতে পারে, মেট অফিস অনুসারে।

সূর্য একটি বিশেষভাবে সক্রিয় সময়ের মধ্যে রয়ে গেছে, পর্যবেক্ষকরা পরামর্শ দিচ্ছেন যে, আগামী কয়েক দিন সৌর কার্যকলাপের ‘উচ্চ’ স্তর চলতে পারে। এর ফলে সূর্য থেকে আরও বেশি শিখা আসতে পারে। সম্প্রতি গাইয়া মহাকাশযান সূর্যে একটি মানচিত্র প্রকাশ করেছে। তাতেই স্পষ্ট হয়েছে সূর্যের অতীত ও ভবিষ্যৎ। জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা এই ধারণায় উপনীত হয়েছে যে, সূর্যের এখন মাঝবয়সী অবস্থা। সূর্যের আনুমানিক বয়স ৪.৫৭ বিলিয়ন বছর।

বিজ্ঞানীরা এখন খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে, এই পরিস্থিতি কী কারণে হল। নক্ষত্রের কত ভর রয়েছে, তার রাসায়নিক গঠন কী, তার মধ্যে দিয়েই খোঁজার চেষ্টা চালানো হচ্ছে। আর এই কাজে বিজ্ঞানীদের সহযোগী হয়ে উঠেছে গাইয়া মহাকাশ যানের প্রেরিত ডেটাসেট। ফ্রান্সের অবজারভেটারি দে লা সিটি ডি’আজুর এ ব্যাপারে সবথেকে সঠিক পর্যবেক্ষণ দিতে সক্ষম হয়েছে।

এ পরিস্থিতিতে আমাদের সূর্যের ভবিষ্যৎ কী হতে চলেছে। গবেষকরা এ ব্যাপারে উপসংহারে পৌঁছেছে। সূর্য চার বিলিয়ন বছর বয়সে সর্বোচ্চ তাপমাত্রায় পৌঁছবে। তারপর এটি শীতল হবে। আকারেও বৃদ্ধি পাবে। এবং লাল দৈত্য নক্ষত্রে পরিণত হবে। ১০১১ বিলিয়ন বছর বয়সে সূর্য তার জীবনের শেষ পর্যায়ে পৌঁছে যাবে। সূত্র: দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট। 

 

মানবকণ্ঠ/পিবি


poisha bazar