বিশ্বে ফের বাড়ছে করোনায় মৃত্যু, শীর্ষে ইন্দোনেশিয়া-ব্রাজিল


  • অনলাইন ডেস্ক
  • ৩০ জুলাই ২০২১, ১০:২৩

মহামারি করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা কার্যক্রম বিশ্বজুড়ে চলমান থাকলেও মৃত্যু-সংক্রমণের গতি কিছুতেই থামছে না। গত ২৪ ঘণ্টায় আগের দিনের তুলনায় ২০০ মৃত্যু বেড়ে সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০ হাজার ২৯০ জনে। এতে বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে ৪২ লাখ ১৩ হাজার ১২০ জনে।

পুরো জুলাইয়ে মৃত্যুর হার কমে ৭ থেকে ৮ হাজারের মধ্যে থাকলেও মাসের শেষ সপ্তাহ থেকেই আবারও বাড়তে শুরু করেছে এ ভাইরাসে মৃত্যু।

এদিকে একদিনে কিছুটা কমেছে এ ভাইরাসের আক্রান্তের সংখ্যা। নতুন করে ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বের ৬ লাখ ৫৫ হাজার ৫২০ জন মানুষ এতে আক্রান্ত হয়েছেন। আগের দিনের তুলনায় নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা কমেছে প্রায় ২ হাজার। এতে মহামারির শুরু থেকে ভাইরাসে আক্রান্ত মোট রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৯ কোটি ৭৩ লাখ ১৩ হাজার ৪২২ জনে।এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১৭ কোটি ৮৪ লাখ ৯১ হাজার ১৮৪ জন।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটার থেকে শুক্রবার (৩০ জুলাই) সকালে এই তথ্য জানা গেছে।

ওয়ার্ল্ডওমিটারের সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ৩ কোটি ৫৫ লাখ ৮৪ হাজার ১৯২ জন আর মারা গেছেন ৬ লাখ ২৮ হাজার ৪৮৭ জন।

করোনায় আক্রান্তের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারত। দেশটিতে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ কোটি ১৫ লাখ ৭১ হাজার ২৯৫ জনে। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৪ লাখ ২৩ হাজার ২৪৪ জনের।

লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল করোনায় আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় ও মৃত্যুর সংখ্যায় তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগী ১ কোটি ৯৮ লাখ ৩৯ হাজার ৩৬৯ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৫ লাখ ৫৪ হাজার ৬২৬ জনের।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশ ইন্দোনেশিয়ায়। এই সময়ের মধ্যে দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১ হাজার ৮৯৩ জন এবং নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৩ হাজার ৪৭৯ জন। এছাড়া মহামারির শুরু থেকে দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৩৩ লাখ ৩১ হাজার ২০৬ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৯০ হাজার ৫৫২ জনের।

এখন পর্যন্ত ফ্রান্সে ৬০ লাখ ৭৯ হাজার ২৩৯ জন, রাশিয়ায় ৬২ লাখ ১৮ হাজার ৫০২ জন, যুক্তরাজ্যে ৫৮ লাখ ১ হাজার ৫৬১ জন, ইতালিতে ৪৩ লাখ ৩৬ হাজার ৯০৬ জন, তুরস্কে ৫৬ লাখ ৮২ হাজার ৬৩০ জন, স্পেনে ৪৪ লাখ ২২ হাজার ২৯১ জন, জার্মানিতে ৩৭ লাখ ৭২ হাজার ৩০৭ জন এবং মেক্সিকোতে ২৭ লাখ ৯০ হাজার ৮৭৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

অন্যদিকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ফ্রান্সে এক লাখ ১১ হাজার ৭৬৪ জন, রাশিয়ায় এক লাখ ৫৬ হাজার ৯৭৭ জন, যুক্তরাজ্যে এক লাখ ২৯ হাজার ৫১৫ জন, ইতালিতে এক লাখ ২৮ হাজার ২৯ জন, তুরস্কে ৫১ হাজার ১৮৪ জন, স্পেনে ৮১ হাজার ৪৪২ জন, জার্মানিতে ৯২ হাজার ১৩১ জন এবং মেক্সিকোতে ২ লাখ ৩৯ হাজার ৬১৬ জন মারা গেছেন।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীন থেকে সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর বিশ্বব্যাপী ছড়িয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। গত বছরের ১১ মার্চ করোনাভাইরাস সংকটকে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

মানবকণ্ঠ/এনএস


poisha bazar

ads
ads