পুরুষের অনুমতি ছাড়া একা থাকতে পারবেন সৌদি নারীরা


  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১১ জুন ২০২১, ১৯:১১,  আপডেট: ১১ জুন ২০২১, ১৯:১৬

সৌদি আরবে প্রাপ্তবয়স্ক, বিবাহিত, অবিবাহিত ও সেপারেটেড যেকোন নারী চাইলে তারা পুরুষ অভিভাবকের অনুমতি ছাড়াই একা থাকতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে তাদের দরকার হবে না স্বামী, বাবা ও অন্যকোন পুরুষের অনুমতি।

সম্প্রতি সৌদি কর্তৃপক্ষ দেশটির শরিয়াহ আইনের আর্টিকেল ১৬৯ এর বি ধারাটি বাতিল করে। যেখানে লেখা ছিল বিবাহিত, অবিবাহিত ও সেপারেটেড নারীদের তাদের পুরুষ অভিভাবকের অধীনস্থ থাকতে হবে। নতুন আইনে প্রাপ্তবয়স্ক নারীর আলাদা থাকার অধিকার রয়েছে। এক্ষেত্রে নারীর কোন অপরাধ ছাড়া পুরুষ অভিভাবক তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ করতে পারবেন না।

নতুন আইনে আরও বলা হয়েছে, যদি কোনো নারী দণ্ডপ্রাপ্ত হয় এবং সাজার মেয়াদ শেষ হলে কারাগার থেকে তাকে অভিভাবকের হাতে সোপর্দ করা হবে না। যদি উক্ত নারী না চান। নাঈফ আল মানসি নামের এক আইনজীবী বলেন, একজন প্রাপ্তবয়স্ক নারী কোথায় থাকবেন সে ব্যপারে সিদ্ধান্ত নেয়ার অধিকার তার রয়েছে। কেউ যদি একা থাকতে চায় পরিবারও তার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ দায়ের করতে পারবে না।

দীর্ঘদিন ধরে সৌদি আরবে প্রত্যেক নারীকে একজন পুরুষের অধীনে থাকার নিয়ম ছিল। যিনি হবেন তার স্বামী, ভাই, ছেলে, বাবা অথবা চাচা। সৌদি আরবের যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের পরামর্শে দেশটি ভিশন ২০৩০ বাস্তবায়ন নিয়ে কাজ করছে। সেই লক্ষ্যে এসব বাধা তুলে দিচ্ছে সৌদি আরব।

এরআগে গত ২০১৯ সালের আগস্টে নারীদের ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় সৌদি সরকার। ২১ বছরের বেশি হলেই পুরুষ অভিভাবকের অনুমতি ছাড়াই পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে পারছেন এবং ইচ্ছে মতো পছন্দের জায়গায় ভ্রমণ করতে পারছেন সৌদি নারীরা।

মানবকণ্ঠ/এমএ

 


poisha bazar

ads
ads