ভারতে নতুন কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে কৃষকরা অনড়


poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ২১:৩৬

ভারতে নয়া কৃষি আইনের বাতিলের দাবিতে কৃষকদের আন্দোলন আজও অব্যাহত রয়েছে। এনিয়ে একটানা সাত দিন ধরে কৃষক আন্দোলন চলছে। গতকাল মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমরের সাথে কৃষক নেতাদের আলাপ-আলোচনা ফলপ্রসূ হয়নি।

এ ব্যাপারে কমিটি গড়ার কথা হলে কৃষকরা বলেছেন, কমিটির ব্যাপারে তাঁদের কোনও আপত্তি নেই কিন্তু যতক্ষণ না ওই কমিটি কোনও কংক্রিট সিদ্ধান্তে না আসবে তাদের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।

আজ বুধবার (২ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর বলেন, আগামীকাল ৩ ডিসেম্বর কৃষক ইউনিয়নের লোকজন আসবেন। তারা তাঁদের বক্তব্য বলবেন, সরকার তাদের কথা বলবে। দেখা যাক কীভাবে সমাধান হতে পারে।

অন্যদিকে, সিঙ্ঘু সীমান্তের কৃষকরা বলেছেন, যতক্ষণ পর্যন্ত সরকার তিনটি কৃষি আইন প্রত্যাহার না করবে ততক্ষণ এই আন্দোলন এভাবেই চলবে এবং যদি এভাবে চলতে থাকে তবে আন্দোলন আরও তীব্র হবে।

আজ (বুধবার) দিল্লি সীমান্তে আন্দোলনরত বিভিন্ন কৃষক সংগঠন এক সংবাদ সম্মেলনে তাদের উদ্দেশ্য স্পষ্ট করেছে। কৃষকদের বক্তব্য, সরকার দীর্ঘ আলোচনা চালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে। এক কৃষক নেতা বলেন- কেন্দ্রীয় সরকারের সাথে কথা বলার জন্য কৃষকদের ছোট কমিটি গঠন করা হবে না। আমরা সাত অথবা দশ পৃষ্ঠার খসড়া সরকারকে পাঠাবো, সরকার রাজি না হলে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়া হবে। আন্দোলনরত কৃষকরা সংসদের বিশেষ অধিবেশন ডেকে কৃষি সংক্রান্ত আইন বাতিল করার দাবি করেছেন।

ভারতীয় কিষাণ ইউনিয়নের (ভানু) জাতীয় সভাপতি ঠাকুর ভানু প্রতাপ সিং কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে কৃষক কমিশন গঠনের দাবি জানিয়েছেন। এবং আমলা ও নেতাদের এ থেকে দূরে রাখতে বলেছেন। ভানু প্রতাপ সিং তাঁর কয়েকশো সমর্থকসহ কৃষি সংক্রান্ত নয়া আইনের বিরুদ্ধে গতকাল সন্ধ্যা থেকে চিল্লা সীমান্তে জড়ো হয়েছেন এবং তাঁরা দিল্লির যন্তরমন্তরে যাওয়ার দাবি করছেন।

অন্যদিকে, কেন্দ্রীয় কৃষি আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। তিনি বলেন, আমরা সংলাপে বিশ্বাসী। বিভিন্নভাবে ভারতীয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে আমাদের উদ্বেগের কথা জানিয়েছি।

কানাডার প্রধানমন্ত্রীর এ ধরণের মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে ভারত। ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব বলেছেন, ভারতের কৃষকদের সম্পর্কে কানাডা নেতৃত্বের কিছু তথ্যহীন মন্তব্য দেখেছি। এ ধরণের মন্তব্য অযাচিত। কারণ, এটা একটা গণতান্ত্রিক দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়। রাজনৈতিক স্বার্থে কূটনৈতিক আলোচনার অপব্যাখ্যা না করাই ভালো বলেও ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সাফ জানানো হয়েছে-পার্সটুডে।

মানবকণ্ঠ/এইচকে






ads