গরিব দেশের ভরসা অক্সফোর্ডের টিকা

- ফাইল ছবি

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২২ নভেম্বর ২০২০, ২০:১৩

চীনের উহান থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা ইতোমধ্যে ১৩ লাখ ৮৬ ছাড়িয়েছে। প্রতিদিন মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েই চলছে। সমগ্র বিশ্ববাসী এখন ভাইরাসটি প্রতিরোধে একটি কার্যকর ভ্যাকসিনের অপেক্ষায় দিন গুনছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বেশকয়েকটি প্রতিষ্ঠানের তৈরি ভ্যাকসিনের চূড়ান্ত পর্যায়ের ট্রায়াল চলছে। আশা করা হচ্ছে নভেম্বরে ফলাফল পাওয়া যাবে। তবে এই মুহূর্তে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হয়ে উঠেছে, ভ্যাকসিনের দরদাম। এ নিয়েও চলছে জোর আলোচনা।

স্বাস্থ্য পরামর্শকদের ধারণা, প্রতি ডোজ ভ্যাকসিনের দাম ৩ থেকে ৩০ ডলারেরও বেশি হতে পারে। দাম যেন গরিব দেশগুলোর সাধ্যের মধ্যে থাকে, এ নিয়ে বিল গেটস-সহ জনস্বাস্থ্য অ্যাডভোকেটরা বেশ সরব।

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই ভ্যাকসিন দৌড়ে সবচেয়ে বেশি আলোচনায় রয়েছে অ্যাস্ট্রা-অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন। সম্ভাব্য এই ভ্যাকসিনের চূড়ান্ত পর্যায়ের ট্রায়াল চলছে।

অ্যাস্ট্রা-অক্সফোর্ড ভ্যাকসিনের ওপর ভরসা করার অন্যতম প্রধান কারণ এটির প্রাথমিক দাম। অ্যাস্ট্রা জানিয়েছে, মহামারিকালে তারা মুনাফা করবে না। তাই প্রতি ডোজ কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের দাম ৪ থেকে ৫ ডলার বা প্রায় ৩৪০ থেকে ৪২৫ টাকার মধ্যে রাখবে।

সংকট বিবেচনায় এই কোম্পানিসহ অন্যরা ডোজপ্রতি ভ্যাকসিনের দাম শেষ পর্যন্ত কত করে নেবে, এ নিয়ে অবশ্য স্বাস্থ্য পরামর্শকদের মনে উৎকণ্ঠা রয়েছে।

এর আগে, জুলাইয়ে ফাইজার ও বায়োটেকের ভ্যাকসিন প্রতি ডোজ ১৯.৫০ ডলার বা প্রতি দুই-শট ইমুনাইজেশন ৩৯ ডলারে কেনার ব্যাপারে সম্মত হয় যুক্তরাষ্ট্র।

এদিকে, অর্ডারের ওপর নির্ভর করে মডার্নার ভ্যাকসিনের দাম ডোজপ্রতি ২৫ থেকে ৩৭ ডলারের মধ্যে পড়বে বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী স্টিফেন ব্যানসেন।

সব মিলিয়ে, অক্সফোর্ড ভ্যাকসিনই ভরসা হয়ে উঠতে পারে গরিব দেশগুলোর জন্য।

ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য বলছে, রোববার সকাল পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫ কোটি ৮৪ লাখ ৮৭ হাজার ৭৫৪ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ১৩ লাখ ৮৬ হাজার ৩৩৪ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৪ কোটি ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৩৭৭ জন মানুষ।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে সংক্রমণ ও মৃত্যুর দিক থেকে শীর্ষে থাকা দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ১ কোটি ২৪ লাখ ৫০ হাজার ৬৬৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৬১ হাজার ৭৯০ জনের।

দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে এখন পর্যন্ত সংক্রমিত হয়েছেন ৯০ লাখ ৯৫ হাজার ৯০৮ জন এবং মারা গেছে ১ লাখ ৩৩ হাজার ২৬৩ জন।

তৃতীয় অবস্থানে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত করোনায় ৬০ লাখ ৫২ হাজার ৭৮৬ জনের বেশি মানুষ সংক্রমিত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৬৯ হাজার ১৬ জনের।

চতুর্থ অবস্থানে থাকা ফ্রান্সে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ২১ লাখ ২৭ হাজার ৫১ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ৪৮ হাজার ৫১৮ জন।

পঞ্চম স্থানে থাকা রাশিয়ায় করোনায় সংক্রমণের সংখ্যা ২০ লাখ ৬৪ হাজার ৭৪৮ জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৩৫ হাজার ৭৭৮ জনের।

মানবকণ্ঠ/এসকে






ads